Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২২ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন ক্রিকেটাররা, স্বস্তিতে গোটা দেশ

পরিস্থিতি নিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে বলে জানান তিনি।

অঞ্জন রায়
ঢাকা ১৫ মার্চ ২০১৯ ১৬:১০
Save
Something isn't right! Please refresh.
হোটেলে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা।— ছবি টুইটারের সৌজন্যে।

হোটেলে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা।— ছবি টুইটারের সৌজন্যে।

Popup Close

ইতিমধ্যেই বাতিল হয়ে গিয়েছে সিরিজ। দ্রুত ক্রিকেটারদের দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, প্রতি মুহূর্তে পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে হাসিনা প্রশাসন। বিষয়টি নিয়ে নিউজিল্যান্ডে কর্মরত বাংলাদেশের কনসুলার জেনারেলের সঙ্গে ইতিমধ্যেই কথা বলেছেন বিদেশমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন। পরিস্থিতি নিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে বলে জানান তিনি।

শুক্রবার নিউজিল্যান্ডে জঙ্গি হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ৪৯ জন। ভাগ্যক্রমে হামলার হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন বাংলাদেশের ক্রিকেট দলের সদস্যরা। কারণ, যে আল নুর মসজিদে এ দিন হামলার ঘটনা ঘটেছে, সেখানেই নমাজ পড়তে যাওয়ার কথা ছিল তাঁদের। সব কিছু সময় মতো হলে হামলার সময় মসজিদেই থাকার কথা ছিল তাঁদের। তাঁদের কিছু ক্ষণ দেরি হওয়ায় রেহাই পেয়ে যান বাংলাদেশের ক্রিকেটারর। ভয়াবহ হামলা থেকে দেশের ক্রিকেটাররা রক্ষা পাওয়ায় স্বভাবতই স্বস্তিতে এ দেশের মানুষ। সাধারণ মানুষ থেকে রাজনৈতিক নেতা— সকলেই মুখেই স্বস্তির কথা। তবে, এ দিনের হামলায় দু’জন বাংলাদেশি নাগরিকের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। আহত হয়েছেন ৫ জন। তাঁদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধতত্ত্ব বিভাগের চেয়ারম্যান জিয়া রহমান এই ঘটনার পিছনে মুসলিম বিরোধী চেতনার বিকাশের দিকে ইঙ্গিত দিয়েছেন। তিনি মনে করেন, ‘‘উদারবাদী চিন্তার জায়গা থেকে এখন অনেক বেশি রক্ষণশীল বা ডানপন্থা বিভিন্ন দেশে আঁকড়ে বসতে শুরু করেছে। যারই ফলশ্রুতি এই হামলা।’’

Advertisement

আরও পড়ুন: সেনার পোশাকে নিউজিল্যান্ডের মসজিদে বন্দুকবাজের হামলা, হত ৪৯, রক্ষা বাংলাদেশ ক্রিকেটারদের

আরও পড়ুন: ভাগ্যিস সাংবাদিক সম্মেলন শেষ হতে দেরি হল...

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে হামলায় বিষয়ে বিসিবি-র সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে বলেছেন, ‘‘এখন থেকে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল যে দেশেই খেলতে যাক না কেন, নিরাপত্তার ন্যূনতম ব্যবস্থা না করলে খেলতে যাবে না।’’ পাপন আরও বলেন, ‘‘যে কোনও দেশের দল আমাদের দেশে খেলতে এলে আমরা তাদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করি। কিন্তু, অনেক দেশের ধারণা এই উপমহাদেশের বাইরে কোথাও খেলোয়াড়দের তেমন নিরাপত্তার দরকার নেই। সে কারণেই অনেক দেশ অতিথি খেলোয়াড়দের নিরাপত্তার বিষয়ে কতটা গুরুত্ব দেয়, তার প্রমাণ আমরা আজ দেখলাম।’’ পাশাপাশি তিনি স্পষ্ট করেন, নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিশ্চিত না করলে বাংলাদেশের ক্রিকেট দলকে বিদেশের মাটিতে পাঠানো হবে না।

(সব গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক খবর জানতে চোখ রাখুন আমাদের আন্তর্জাতিক বিভাগে।)



Something isn't right! Please refresh.

আরও পড়ুন

Advertisement