মুম্বই, চেন্নাইয়ের বিমান চলবে অণ্ডালের কাজী নজরুল ইসলাম বিমানবন্দর থেকে। বুধবার টুইট করে এমনটাই জানিয়েছেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়।

এ দিন দুপুরে টুইট করে বিষয়টি জানান সাংসদ। এ দিন দিল্লিতেও মন্ত্রী বলেন, ‘‘উড়ান থ্রি প্রকল্পের অধীনে দুর্গাপুর থেকে মুম্বই ও চেন্নাই রুটে যাতে বিমান চালানো যায়, তার জন্য অনেক দিন ধরেই চেষ্টা করছিলাম। বুধবার একটি বেসরকারি বিমান সংস্থা এই দুই রুটে বিমান চালাতে রাজি হয়েছে।’’ বাবুলের দাবি, ‘‘আমি তাঁদের বোঝানোর চেষ্টা করেছি। তার ভিত্তিতেই ওই সংস্থাটি ‘বিড’ করেছিল।’’

তবে নির্দিষ্ট করে কোন দিন থেকে উড়ান চলবে, সে বিষয়ে এ পর্যন্ত কিছু জানাননি মন্ত্রী। তবে তাঁর আশা, প্রক্রিয়াগত কিছু বিষয় সম্পন্ন হওয়ার পরে দ্রুত পরিষেবা চালু হবে। সেই সঙ্গে মন্ত্রী এ-ও জানান, তিনি দুর্গাপুর-বেঙ্গালুরু রুটেও বিমান চালানোর জন্য চেষ্টা করেন। তবে তা সফল হয়নি। দিল্লি থেকে ‘এয়ারপোর্ট অথরিটি অব ইন্ডিয়া’র চেয়ারম্যান গুরুপ্রসাদ মহাপাত্রও বলেন, ‘‘উড়ান থ্রি-এর বিডিং প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। কোনও এক বিমান সংস্থা দুর্গাপুর থেকে চেন্নাই ও মুম্বইয়ে উড়ান চালানোর প্রস্তাব দিয়েছে।’’ উড়ান প্রকল্পে এত দূরবর্তী উড়ানের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে? গুরুপ্রসাদ জানান, দূরত্বটা বড় কথা নয়। এক দিকে এমন একটি বিমানবন্দর থাকতে হবে, যেখান থেকে উড়ান নেই বা কম রয়েছে। এ ক্ষেত্রে দুর্গাপুর সেই তালিকায় পড়ছে।

দুর্গাপুর বিমানবন্দরের মালিকানা রয়েছে বেঙ্গল অ্যারোট্রপলিস প্রাইভেট লিমিটেডের (বিএপিএল) হাতে। সেই সংস্থার তরফে পার্থ ঘোষ দাবি করেন, ‘‘আমাদের কাছে এ পর্যন্ত নতুন রুটে উড়ান চালানোর বিষয়ে কোনও খবর নেই।’’ সেই প্রসঙ্গে উঠলে বাবুলের বক্তব্য, ‘‘আমি যখন দিল্লিতে বসে আছি, তখন তো বাকিদের থেকে এ সব খবর একটু আগে জানবই।’’

যে বেসরকারি বিমান সংস্থার কথা বাবুল এ দিন বলেন, তাদের একটি সূত্র জানাচ্ছে, এখান থেকে দুর্গাপুর থেকে উড়ান চালু করা নিয়ে যে সমীক্ষা রিপোর্ট দিল্লিতে পাঠানো হয়েছে, সেখানে দুর্গাপুর-দিল্লির উড়ানের কথা বলে হয়েছে। চেন্নাই, মুম্বই যেতে গেলে দিল্লি থেকে অন্য উড়ান ধরতে হবে। 

নতুন উড়ানের খবরে খুশি জেলার শিল্পপতি ও নাগরিকেরা। জেলার বণিক সংগঠনগুলি স়াম্প্রতিক অতীতে বেশ কয়েক বার দুর্গাপুর থেকে দক্ষিণ ভারতে উড়ান চালুর দাবি জানিয়েছে। গত বছর মার্চে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশাসনিক বৈঠকেও দুর্গাপুর চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এ বিষয়ে দাবি জানায়। সম্প্রতি ‘জামুড়িয়া চেম্বার অফ কমার্স’-ও বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে দক্ষিণ ভারতে বিমান পরিষেবা চালুর আর্জি জানায়। দুর্গাপুরের ওই বণিক সংগঠনটির সভাপতি কবি দত্ত বলেন, ‘‘দক্ষিণ ভারতে বিমান পরিষেবা চালুর আর্জি আমরা আগেই করেছিলাম। এখন চেন্নাইয়ের পাশাপাশি মুম্বই-ও দুর্গাপুরের সঙ্গে জুড়লে তো খুবই ভাল হয়।’’