বছর দুয়েক আগেও প্রয়োজনে জোর করে (বুলডোজ) শুধুই বৈদ্যুতিক-সহ বিকল্প জ্বালানির গাড়ি রাস্তায় চালানোর জন্য শিল্প মহলকে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহণমন্ত্রী নিতিন গডকড়ী। তা নিয়ে বিতর্ক শুরু হওয়ায় সম্প্রতি কিছুটা সুর নরম করে তিনি জানান, পেট্রল-ডিজেল গাড়ি নিষিদ্ধ করার কোনও পরিকল্পনা কেন্দ্রের নেই। ফের একই দাবি করে গডকড়ী  ফের জানালেন, বৈদ্যুতিক গাড়ির চাহিদা স্বাভাবিক নিয়মেই বাড়ছে। 

সোমবার দিল্লিতে ক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারি শিল্পের এক সভায় গডকড়ী বলেন, ‘‘আমি সব সময়েই বৈদ্যুতিক গাড়ি, বাইক ও বাসের কথা বলেছি। এখন তা স্বাভাবিক নিয়েমেই বাড়ছে। তা বাধ্যতামূলক করার কোনও দরকার নেই। দু’বছরের মধ্যে সব বাস বৈদ্যুতিক বা বায়ো-ইথানল ও সিএনজি-তে চলবে।’’ 

কলকাতায় হিরো ইলেকট্রিক ইন্ডিয়ার সিইও তথা সোসাইটি অব ম্যানুফ্যাকচারার্স অব ইলেকট্রিক ভেহিকলসের ডিজি সোহিন্দর গিল জানান, বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার বাড়াতে তাঁরা কেন্দ্রের কাছে চার দফা প্রস্তাব পেশ করবেন। লুধিয়ানায় বৈদ্যুতিক দু’চাকার গাড়ি কারখানার উৎপাদন দ্বিগুণ করতে ২৫০ কোটি টাকা লগ্নিও করবে তাঁর সংস্থা।