Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ ই-পেপার

URL Copied

ব্যবসা

১২৮ কোটির প্রাসাদ, আইপিএল যোগ... রাণা কপূরের জীবন যেন ফিল্ম

নিজস্ব প্রতিবেদন
০৮ মার্চ ২০২০ ১২:২৮
ব্যাঙ্ক কেলেঙ্কারির অভিযোগে গ্রেফতার হলেন ইয়েস ব্যাঙ্কের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা, প্রাক্তন সিইও রাণা কপূর। রাণা কপূরের ওরলি-র বাড়ি ‘সমুদ্র ভবনে’ ইডি (এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট) শনিবার থেকেই তল্লাশি শুরু করেছিল।

ইয়েস ব্যাঙ্কের যে দেউলিয়া পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে এবং তার জন্য লাখ লাখ গ্রাহকের মাথায় হাত পড়েছে, তার অন্যতম কারণ হিসাবে উঠে আসছে রাণা কপূরের কিছু সিদ্ধান্তের কথা। কে এই রাণা কপূর, কী ভাবে তাঁর ইয়েস ব্যাঙ্কের কর্ণধার হয়ে ওঠা?
Advertisement
১৯৫৭ সালে দিল্লিতে জন্ম রাণা কপূরের। পারিবারিক অবস্থা প্রথম থেকেই স্বচ্ছল ছিল তাঁর। ১৯৭৩ সালে দিল্লির ফ্রাঙ্ক অ্যান্টোনি পাবলিক স্কুল থেকে পড়াশোনা শেষ করেন।

এরপর ১৯৭৭ সালে শ্রী রাম কলেজ অব কমার্স থেকে স্নাতক হয়ে উচ্চশিক্ষার জন্য চলে যান নিউ জার্সিতে। সেখানে রুটগার্স ইউনিভার্সিটি থেকে এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেন।
Advertisement
তাঁর ব্যাঙ্কিং কেরিয়ার শুরু হয় ১৯৮০ সালে। প্রথমে ম্যানেজমেন্ট ট্রেনি হিসাবে ব্যাঙ্ক অব আমেরিকায় যোগ দেন তিনি। ১৬ বছর এই ব্যাঙ্কের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন রাণা।

১৯৯৫ সালে তাঁর সামনে একটা বড় সুযোগ নিয়ে ভারতে আসে রাবোব্যাঙ্ক। রাবোব্যাঙ্কের প্রতিনিধিদের সঙ্গে শ্যালক অশোক কপূরকে নিয়ে বৈঠক করেন রাণা কপূর।

১৯৯৭ সালে রাবোব্যাঙ্কের সাহায্যে প্রথমে তাঁরা একটা নন-ব্যাঙ্কিং ফিনান্সিয়াল কোম্পানি তৈরি করেন। ২০০৩ সালে তাঁরা তাঁদের সমস্ত শেয়ার বেচে দেন এবং সেই টাকায় ইয়েস ব্যাঙ্ক প্রতিষ্ঠা করেন। ইয়েস ব্যাঙ্কে রাণা কপূরের ২৬ শতাংশ, অশোক কপূরের ১১ শতাংশ এবং রাবোব্যাঙ্কের ২০ শতাংশ শেয়ার ছিল।

২০০৮ সালে ২৬/১১ সন্ত্রাসবাদী হামলায় অশোক কপূরের মৃত্যু হয়। এর পর বোর্ড ডিরেক্টর কে হবেন তা নিয়ে অশোক কপূরের স্ত্রী এবং রাণা কপূরের মধ্যে দীর্ঘ আইনি যুদ্ধ চলেছিল।

২০১৮ সাল নাগাদ রাণা কপূরের কিছু ভুল সিদ্ধান্তের জেরে ইয়েস ব্যাঙ্কের শেয়ার হু হু করে পড়তে শুরু করে। এর পরই ২০১৯ সালে ৩১ জানুয়ারি রাণাকে সিইও পদ থেকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়। তারপর সিইও হন রভনীত গিল।

রাণা কপূরের তিন মেয়ে। রাধা, রাখি আর রোশনী। ২০১৮ সালে মুম্বইয়ে ১২৮ কোটি টাকার একটি বিলাসবহুল বাড়ি কেনেন রাণা কপূর। ঠিক মুকেশ অম্বানীর বাড়ির পাশেই তাঁর বাড়ি। যদিও এই বাড়ি তাঁর পরিবার কিনেছিল বলে জানান রাণা কপূর।

তাঁর মেয়ে রাখি কপূর আইপিএলে একসময় ভীষণ নজর কেড়েছিলেন। সুন্দরী এই কন্যা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছিলেন। এ ছাড়াও তিনি ছিলেন ইয়েস ব্যাঙ্কের ম্যানেজিং ডিরেক্টর। আর এক মেয়ে রাধা কপূর মুম্বইয়ের ইন্ডিয়ান স্কুল অব ডিজাইন অ্যান্ড ইনোভেশনের প্রতিষ্ঠাতা এবং এগজিকিউটিভ ডিরেক্টর।

রাধা, রাখি এবং রোশনী- রাণা কপূরের এই তিন মেয়ের দিল্লি ও মুম্বইয়ের বাড়িতেও হানা দিয়েছে ইডি। ইডি সূত্রের বক্তব্য, রাণা ইয়েস ব্যাঙ্কের শীর্ষ পদে থাকার সময় এমন বহু সংস্থাকে ঋণ মঞ্জুর করা হয়েছিল, যারা লোকসানে ডুবে রয়েছে। ঋণ শোধ না-হওয়ার আশঙ্কা সত্ত্বেও মূলত রাণার নির্দেশেই ব্যাঙ্কের কর্তারা ঋণ মঞ্জুর করেন।

বিনিময়ে ওই সংস্থাগুলি রাণা, তাঁর স্ত্রী ও তিন কন্যার মালিকানাধীন বিভিন্ন সংস্থায় টাকা ঢেলেছিল। অভিযোগ, এই ভাবে ইয়েস ব্যাঙ্কে আমজনতার সঞ্চয়ের টাকা ঘুরপথে রাণা ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের সিন্দুকে চলে যায়। তল্লাশিতে দাউদ-যোগেরও প্রমাণ পেয়েছে ইডি।

Tags: রানা কপূর