আপনি কি এসবিআইয়ের গ্রাহক? তবে আপনার কিছু বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন, নয়ত যে কোনও মুহূর্তে আপনি আর্থিক প্রতারণার শিকার হতে পারেন।

 তথ্য জানার অধিকারের আওতায় বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে এসবিআই কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, এপ্রিল ২০১৮ থেকে ডিসেম্বর ২০১৮ এর মধ্যে ১,৮৮৫ টি  আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ দায়ের হয়েছে। যার আর্থিক মূল্য প্রায় ৭,৯১৫.৩ কোটি টাকার মধ্যে। এসবিআই ভারতের বৃহত্তম ব্যাঙ্ক হওয়ার দরুণ আর্থিক প্রতারকরা হাজারও গ্রাহকদের মধ্যে থেকে সম্ভাব্য ‘শিকার’ বেছে নেয়। ইদানীং ব্যাঙ্ক থেকে এটিএম সর্বত্রই ছড়িয়ে রয়েছে প্রতারণার জাল। এটিএম স্কিমার, সিম কার্ড সোয়াইপ কিংবা সিসিটিভি ফুটেজ থেকে পিন হাতিয়ে টাকা প্রতারণার ঘটনা বহুবারই ঘটেছে আর তার সিংহভাগ অভিযোগই জমা পড়েছে এসবিআইয়ের নানা ব্রাঞ্চে। 

এখন প্রতারকরা টাকা হাতানোর অন্য এক পন্থা অবলম্বন করছে। ফোন কলের মাধ্যমে গ্রাহককে ব্যস্ত রেখে তাঁর বুঝে ওঠার আগেই টাকা হাতিয়ে নেওয়াই এই প্রতারকদের মূল উদ্দেশ্য।

আপনি যদি এসবিআইয়ের গ্রাহক হন তবে উপরোক্ত বিষয় গুলি আপনাকে আগে থেকে জেনে রাখা উচিত যাতে আপনি এড়াতে পারেন আর্থিক প্রতারণার হাত থেকে।

প্রথমে প্রতারকরা এসবিআই থেকে ফোন করা হয়েছে বলে দাবি করে। তাঁদের কাছে আপনার কিছু তথ্য যেমন আপনার নাম, জন্ম সাল, কিংবা অনান্য তথ্য থাকতে পারে যা আপনার বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জনের স্বার্থে প্রতারকরা ব্যবহার করে থাকে।

আরও পড়ুন:  ধাক্কা গাড়ি বিক্রিতে, শিল্প চায় ত্রাণ প্রকল্প

আরও পড়ুন: বাজারে এল টয়োটার প্রথম হ্যাচ-ব্যাক গাড়ি ‘গ্লানজা'। দাম...

ফোন করে প্রতারকরা আপনাকে ভয় দেখাতে পারে যে আপনার ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড ব্লক হয়ে যেতে পারে।

 প্রতারকরা এরপর আপনার কাস্টমার আইডি চাইতে পারে আপনার কার্ড আনব্লক করার জন্যে।

টাকা হাতানোর তাগিদে আপনাকে নানা প্রলোভন দেখানো হবে, কার্ড আপগ্রেড করে বহু অফার দেওয়ার বিষয়ে আশ্বস্ত করা হবে।

এরপরেই আপনার থেকে ওটিপি চাওয়া হবে টাকার লেনদেন সম্পূর্ণ করার কথা বলে। সেই ওটিপির সাহায্যেই প্রতারকরা কব্জা করবে আপনার অনলাইন ব্যাঙ্কিং অ্যাকাউন্ট।

মুহূর্তে আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা চলে যাবে অন্য রাজ্যের বা দেশের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে।

প্রতারকরা মূলত ল্যান্ডলাইন থেকেই প্রতারণার ফোন কল  করে থাকে।

এই আর্থিক প্রতারণা রুখতেই কিছু কিছু কার্ডের ক্ষেত্রে এসবিআই দিনে সর্বোচ্চ টাকা তোলার সীমা ২০,০০০ টাকা পর্যন্ত বেঁধে দেয়।

মনে রাখবেন এসবিআই ব্যাঙ্ক তথা এসবিআইয়ের কোন প্রতিনিধি আপনাকে আপনার তথ্য, ওটিপি বা পিন জানতে ফোন করবে না। কাজেই প্রতারকদের এ ধরনের ফোন এলে গ্রাহককেই সতর্ক থাকতে হবে।