গত মাসে ধাক্কা খেল দেশে যাত্রী গাড়ির পাইকারি বিক্রি। সংস্থাগুলির সংগঠন সিয়ামের পরিসংখ্যান বলছে, ওই সময়ে বিক্রি কমেছে প্রায় ২০%। যা ১৮ বছরে সর্বাধিক। শেষ ২০০১ সালের সেপ্টেম্বরে বিক্রি এতটা (২১.৯১%) কমেছিল। ক্রেতা চাহিদা না-থাকায় কয়েকদিন করে গাড়ি তৈরি বন্ধ রাখার কথা জানিয়েছে বিভিন্ন সংস্থা। এই অবস্থায় গাড়ি শিল্পের জন্য কেন্দ্রের কাছে ত্রাণ প্রকল্পের আর্জি জানিয়েছে সিয়াম। বলেছে, সব গাড়িতে জিএসটি ২৮% থেকে কমিয়ে ১৮% করা হোক।

সিয়ামের পরিসংখ্যান অনুসারে, মে মাসে দেশে যাত্রী গাড়ি বিক্রি হয়েছে ২,৩৯,৩৪৭টি। গত ১১ মাসের মধ্যে অক্টোবর বাদে ১০ মাসেই কমেছে যাত্রী গাড়ি বিক্রি। শুধু যাত্রী গাড়িই নয়, গত মাসে কমেছে দু’চাকা, বাণিজ্যিক গাড়ি বিক্রিও।

মঙ্গলবার সিয়ামের ডিজি বিষ্ণু মাথুর বলেন, বিক্রি ধাক্কা খেলেও, কারখানার চেয়ে ডিলারদের থেকে বিক্রির ছবিটা তুলনায় ভাল। এটাই প্রমাণ করে যে সংস্থাগুলি উৎপাদন কমাচ্ছে। তাঁর আর্জি, ২০০৮-০৯ এবং ২০১১-১২ সালে যে ভাবে শিল্পকে সাহায্য করা হয়েছিল, সে ভাবেই যেন এ বারও ত্রাণ ঘোষণা করে কেন্দ্র।

সংগঠনের ডেপুটি ডিজি সুগত সেন বলেন, ভোট শেষের পরে বিক্রি বৃদ্ধির যে আশা গাড়ি শিল্প করেছিল, তা দেখা যায়নি। তবে তাঁর আশা, বিএস-৬ মাপকাঠির গাড়ি চালুর আগে এ বছরের দ্বিতীয়ার্ধে হয়তো বিক্রি কিছুটা বাড়তে পারে।