ছিলেন এক সাধারণ স্কুল শিক্ষক। আর এখন তিনি প্রায় ৫৭০ কোটি মার্কিন ডলার (ভারতীয় মুদ্রায় ৩৯ হাজার ২৫৩ কোটি ৬২ লক্ষ টাকার) কোম্পানির মালিক। বাইজু রবীন্দ্রন সাত বছর আগে তৈরি করেছিলেন ‘থিঙ্ক অ্যান্ড লার্ন’ নামে এক কোম্পানি। তারাই তৈরি করে অনলাইন শিক্ষার অ্যাপ বাইজুস।

বাইজুসের সঙ্গে সম্প্রতি চুক্তি হয়েছে ওয়াল্ট ডিজনির। এইচুক্তির ফলে থিঙ্ক অ্যান্ড লার্ন প্রাইভেট ১৫ কোটি ডলার বা ভারতীয় মুদ্রায় ১ হাজার ৩২ কোটি ৬৮ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা পায়। সেই হিসেবে থিঙ্ক অ্যান্ড লার্ন  কোম্পানির মোট মূল্য এখনও পর্যন্ত দাঁড়িয়েছে ৫৭০কোটি মার্কিন ডলার। আগামী বছরের শুরুর দিকেই ডিজনির হাত ধরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও পরিষেবা চালু করতে চলেছে বাইজুস।

থিঙ্ক অ্যান্ড লার্ন প্রাইভেটের ২১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে, প্রতিষ্ঠাতা বাইজু রবীন্দ্রনের হাতে। ফলে ৩৭ বছর বয়সী রবীন্দ্রনের এখন সম্পত্তির পরিমান এখন প্রায় ৮ হাজার ২৪০ কোটি ১৮ লক্ষ ৩৯ হাজার ১০০ টাকা।

আরও পড়ুন : ৪৪২ টাকায় কলা বেচে ২৫ হাজার টাকা জরিমানার মুখে পাঁচ তারা হোটেল

আরও পড়ুন : ইন্দোনেশিয়ার হোটেলে জিনিসপত্র চুরি করে দেশের নাম ডোবাল ভারতীয় পরিবার

বাইজু রবীন্দ্রন চান, ঘরে বসে মাউসের ক্লিকে যেভাবে বিনোদনের দুনিয়া খুলে যায় সেভাবেই শিক্ষার ভাণ্ডার উন্মুক্ত হোক পড়ুয়াদের জন্য।সেই ভাবনা থেকেই এবার ডিজনির সঙ্গে নতুন চুক্তির পর দ্য লায়ন কিংয়ের সিম্বা বা ফ্রোজেনের অ্যানারা প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণির প়ড়ুয়াদের গণিত ও ইংরেজি শেখাবে। এরাই আবার ভিডিয়ো, গেম, গল্প ও ক্যুইজের মাধ্যমে শিক্ষা দেবে। কারণ সিম্বা বা মোয়ানারা শিশুদের মনোযোগ অনেক বেশি আকর্ষণ করতে পারে।

ভারত এখন এমন এক অধ্যায়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে যেখানে প্রচুর মানুষ নিজের কিছু করতে চেষ্টা করছেন। আর এর ফলে ধনীর সংখ্যা বৃদ্ধিতে ভারত অনেকের থেকে এগিয়ে। বিলিয়নিয়ারদের তালিকায় রবীন্দ্রন সাম্প্রতিকতম সংযোজন।

রবীন্দ্রনের মতে, ভারতে অনলাইন শিক্ষার বাজার এখন দিন দিন বাড়ছে। আর এটা সম্ভব হয়েছে কম দামের স্মার্ট ফোন আর সস্তার ইন্টারনেটের জন্য। এই বাজার আরও প্রসারিত হচ্ছে।