দিল্লিতে নির্ভয়া কাণ্ডের পর থেকে পরিবহণ ব্যবস্থায় মহিলাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে কেন্দ্রের তরফে রাজ্যগুলিকে নানা নির্দেশিকা পাঠানো হয়েছিল। তার মধ্যে অন্যতম ছিল সরকারি বাসে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করা এবং অফিস টাইমে ‘মহিলা বাস’ চালু করা। ঘটনাচক্রে এ রাজ্যে এত দিন বিষয়টি অবহেলাতেই ছিল। কিন্তু রাজ্যে পর পর মহিলাদের উপরে অত্যাচারের ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় এ বার সরকারি বাসে মহিলাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে সচেষ্ট হল প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার পরিবহণ দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, মহিলাদের নিরাপত্তার স্বার্থে ক্লোজ্‌ড সার্কিট ক্যামেরা বসানো হবে কলকাতা রাষ্ট্রীয় পরিবহণ নিগমের (সিএসটিসি) বাসে। আপাতত ওই ক্যামেরা বসানো হচ্ছে কেন্দ্রীয় সাহায্যে জেএনএনইউআরএম প্রকল্পে কেনা বাসগুলিতে। পরে সব সরকারি বাসেই ওই ব্যবস্থা চালু করার ভাবছে সরকার। যে সব বাসে সিসিটিভি চালু করা হচ্ছে, সেগুলিতে সর্বক্ষণ নজরদারির জন্য তৈরি হচ্ছে কন্ট্রোল রুমও। প্রয়োজনে কোনও ব্যবস্থা নিতে সেখান থেকে পুলিশের সঙ্গে সমন্বয় তৈরির কথাও ভাবা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

দফতর সূত্রে খবর, কলকাতা-সহ আশপাশের এলাকায় প্রাথমিক ভাবে সিএসটিসি-র ৫৮২টি বাসে এই ব্যবস্থা চালু হচ্ছে। প্রতিটি বাসে বসবে তিনটি করে সিসিটিভি। এর মধ্যে দু’টি বসবে বাসের ভিতরে, অন্যটি বাসের বাইরে পিছন দিকে। ভিতরের দু’টি ক্যামেরাকে এমন ভাবে বসানো হবে যাতে প্রতিটি যাত্রীর উপরেই নজরদারি সম্ভব হয়। এ দিনই বিষয়টি চূড়ান্ত করতে কলকাতা পুলিশের একটি বিশেষজ্ঞ দল বাসগুলিতে বসানো সিসি ক্যামেরা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখেছেন। পরিবহণ দফতরের এক শীর্ষ কর্তার কথায়, ‘‘কলকাতা পুলিশের ওই দলটি আমাদের এই ব্যবস্থা দেখে খুশি। এ বার শীঘ্রই আমরা সিসিটিভি চালু করে দেব।’’ সিএসটিসি সূত্রে খবর, এ নিয়ে কলকাতা, বিধাননগর, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং হাওড়া পুলিশকে বিস্তারিত তথ্য দেওয়া হয়েছে।
কোনও ঘটনার তদন্ত করতেও এই সিসিটিভি ক্যামেরার সাহায্য নিতে পারবে পুলিশ।

সিএসটিসি-র অধিকর্তা ভীষ্মদেব দাশগুপ্ত জানান, সিসি ক্যামেরা বসলে মহিলাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার পাশাপাশি বাসের মধ্যে চুরি, ছিনতাই, পকেটমারিও নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে। এমনকী, যে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলেও দ্রুত পদক্ষেপ করা যাবে। কোনও দুর্ঘটনা ঘটলেও দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যাবে বলে মত সিএসটিসি কর্তৃপক্ষের। সিএসটিসির এক কর্তা জানান, আপাতত ১০০ জিবি পর্যন্ত ঘটনা তুলে রাখা যাবে ওই সিসিটিভিগুলিতে। তাতে একটি বাস পুরো সময় চললে তিন দিনের ঘটনা রাখা যাবে বলেই দাবি কর্তাদের। প্রয়োজনে সিডি-তেও তুলে রাখা হবে ক্যামেরার ছবি। কন্ট্রোল রুমটি খোলা হবে গণেশচন্দ্র অ্যাভিনিউয়ে সিএসটিসির প্রধান দফতরে। তবে তা পুরোদমে চালু করতে সময় লাগবে আরও ছ’মাস। তত দিন পর্যন্ত বাসগুলি ডিপোয় ফেরার পরে সিসি ক্যামেরার ছবি দেখে নেওয়া হবে।

সিএসটিসি-তে ইতিমধ্যেই জিপিআরএস-এর মাধ্যমে নজরদারি চালু করা হচ্ছে। সঙ্গে সিসি ক্যামেরা চালু হলে সরকারি বাসে নিরাপত্তা এবং যাত্রীসুরক্ষা অনেকটাই বাড়বে বলে মনে করছেন পরিবহণ-কর্তারা।