ফাঁকা রাস্তায় চলছিল বাসের রেষারেষি। আর তার জেরেই ঘটে গেল দুর্ঘটনা। তবে বড়সড় কোনও দুর্ঘটনা না ঘটলেও সব মিলিয়ে জখম হয়েছেন আট জন যাত্রী। তাঁদের সকলকেই এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রাথমিক চিকিৎসার পরে সকলকে ছেড়ে দেওয়া হলেও এক বৃদ্ধের মাথায় চোট লাগায় তাঁকে ট্রমা কেয়ার সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে। রবিবার দুপুরে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে মেয়ো রোড এবং রেড রোডের সংযোগস্থলে ময়দান থানা এলাকায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, এ দিন দুপুর আড়াইটে নাগাদ দেখা যায় ফাঁকা রাস্তায় একটি বাসের সঙ্গে রেষারেষি করছে অন্য একটি বাস। প্রথমে ছিল ৫২ নম্বর রুটের একটি বেসরকারি বাস। সেটির সামনে একটি ট্যাক্সি থাকায় বাসটি কিছুতেই এগোতে পারছিল না। পুলিশ জানিয়েছে, ওই সময়ে ৫২ নম্বর বাসের কন্ডাক্টর ট্যাক্সি চালককে চিৎকার করলে তিনি আচমকা ব্রেক কষে দাঁড়িয়ে যান। আর তাতেই ঘটে বিপত্তি। নিয়ন্ত্রণ রাখতে না পেরে ৫২ নম্বর বাসটি ট্যাক্সিটিকে পিছন থেকে ধাক্কা মারে।

সেই বাসের পিছনে ছিল আনন্দপুর-হাওড়া রুটের একটি মিনিবাস এবং তার পিছনে গড়ফা রুটের আরও একটি বাস। ফলে একটির পিছনে আর একটি বাস সজোরে ধাক্কা মারে। তাতে কমবেশি ২৫ জনের মতো যাত্রী চোট পান। তবে সকলেরই চোট সামান্য থাকায় আট জনকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ। তার মধ্যে ৬ জন মহিলা এবং দু’জন পুরুষ ছিলেন। যাঁদের মধ্যে এক বৃদ্ধের মাথায় চোট লাগায় তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে এসএসকেএমে। পুলিশ জানিয়েছে, বেসরকারি বাসটি পালিয়ে গেলেও বাকি দু’টি বাস এবং ট্যাক্সিকে চালক-সহ পুলিশ আটক করেছে।