ফের সোয়াইন ফ্ল‌ু-তে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল সল্টলেকের এক বাসিন্দার। মৃতের নাম তপন কর্মকার (৭১)। তপনবাবুকে গত শুক্রবার সল্টলেকেরই একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। মঙ্গলবার গভীর রাতে সেখানেই ওই বৃদ্ধের মৃত্যু হয়। হাসপাতাল সূত্রের খবর, বুকে সংক্রমণ থেকে সেপটিক শক এবং একাধিক অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিকল হয়েই তপনবাবু মারা যান। বিধাননগর পুর এলাকার বাসিন্দা আরও দুই ব্যক্তি সোয়াইন ফ্ল‌ু-তে আক্রান্ত হয়ে ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বলে সূত্রের খবর।

স্থানীয় ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা নীলাঞ্জনা মান্না অবশ্য জানান, তপনবাবু আগে ওই ওয়ার্ডের বিধান আবাসনে থাকতেন। কিন্তু বর্তমানে তিনি অন্যত্র বসবাস করছিলেন বলেই স্থানীয় সূত্রের খবর। এর আগে গত নভেম্বরে সল্টলেকের এফই ব্লকে এক মহিলার মৃত্যু হয়েছিল সোয়াইন ফ্লু-তে। তার পরেও বিধাননগর পুর এলাকায় সোয়াইন ফ্লু-তে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এই জুন মাসেও সোয়াইন ফ্ল‌ু-তে মৃত্যুর ঘটনায় চিন্তা বেড়েছে পুর প্রশাসনের। এর আগেই বিধাননগর পুর প্রশাসন জানিয়েছিল, ডেঙ্গির মোকাবিলায় সব রকমের প্রস্তুতি সম্পর্কে তাঁরা ওয়াকিবহাল। এ বার সোয়াইন ফ্লু ঠেকাতে স্বাস্থ্য দফতরের নির্দেশ মেনে কাজ করা হবে। 

মেয়র পারিষদ (স্বাস্থ্য) প্রণয় রায় জানান, সোয়াইন ফ্লু নিয়ে সচেতনতায় সব চেয়ে বেশি জোর দেওয়া হবে। স্বাস্থ্য দফতরের নির্দেশ মেনে বাসিন্দাদের কী করা উচিত, আর কী করা উচিত নয়, সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দিয়ে লিফলেট তৈরি হচ্ছে। দ্রুত সে সব বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কাজ করা হবে। যে সব এলাকায় সংক্রমণ হচ্ছে বা সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েছে, সে সব জায়গায় এই কাজে বেশি জোর দেওয়া হবে।

মেয়র সব্যসাচী দত্ত জানান, সোয়াইন ফ্ল‌ু-তে আক্রান্ত হয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। এই রোগ প্রতিরোধ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সচেতন করার কাজেই সব চেয়ে বেশি জোর দেওয়া হচ্ছে।