বাড়ি ফেরার পথে বড় রকমের ব্রেন স্ট্রোক। যার জেরে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ। সেই অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল সল্টলেকের নয়াবাদের বাসিন্দা, ৫৪ বছরের সুমিতা বসুকে। পরিবার সূত্রের খবর, চিকিৎসকদের চার দিনের লাগাতার চেষ্টা সত্ত্বেও বাঁচানো যায়নি সুমিতাদেবীকে। চিকিৎসকেরা জানান, তাঁর ‘ব্রেন ডেথ’ হয়ে গিয়েছে। এর পরে পরিবারের অনুমতি নিয়ে সুমিতার অঙ্গপ্রত্যঙ্গের সাহায্যে অন্য তিন রোগীকে সুস্থ করে তোলার সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকেরা।

সুমিতাদেবীর পরিবার সূত্রের খবর, একটি বেসরকারি স্কুলের চাকুরে ওই মহিলা গত ২২ জানুয়ারি ভর্তি হয়েছিলেন মুকুন্দপুরের এক বেসরকারি হাসপাতালে। চিকিৎসকেরা অনেক চেষ্টা করা সত্ত্বেও সুমিতাদেবীর মস্তিষ্ক কোনও ভাবেই সচল করা যায়নি। চিকিৎসকেরা বুঝতে পারেন, তাঁর ‘ব্রেন ডেথ’ ঘোষণা করতে হবে। তাই পরিবারের সম্মতি নিয়ে তাঁরা স্বাস্থ্য ভবনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। চিকিৎসকেরা সুমিতাদেবীর ‘ব্রেন ডেথ’ ঘোষণা করার পরে শনিবার কলকাতা পুলিশের সাহায্যে ‘গ্রিন করিডর’ তৈরি করে মৃতার একটি কিডনি ও লিভার নিয়ে আসা হয় এসএসকেএম হাসপাতালে। সেখানে ওই দু’টি অঙ্গ অন্য দুই রোগীর দেহে প্রতিস্থাপিত করেন চিকিৎসকেরা।

আরও পড়়ুন: গড়িয়ায় বধূর মৃত্যুতে স্বামীর পুলিশি হেফাজত

যে বেসরকারি হাসপাতালে সুমিতাদেবী মারা যান, সেখানেই তাঁর অন্য কিডনিটি প্রতিস্থাপিত করা হয় আর এক রোগীর শরীরে।