• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

শারদীয়ায় বাংলা মাতিয়ে দীপাবলিতে হিন্দিতে ‘ড্রাকুলা স্যার’

Dracula Sir
দীপাবলিতে হিন্দিতে ‘ড্রাকুলা স্যার’
পরীক্ষায় সফল পরিচালক দেবালয় ভট্টাচার্য। ব্রাম স্টোকারের ড্রাকুলার বঙ্গীকরণ ভাল লেগেছে দর্শকদের। পুজো রিলিজ হিসেবে ২১ অক্টোবর মুক্তি পেয়েছিল ‘ড্রাকুলা স্যার’। মাত্র ৫০ শতাংশ দর্শক প্রবেশের অনুমতি নিয়েই টপার অনির্বাণ ভট্টাচার্য-মিমি চক্রবর্তী। দীপাবলিতে আবারও নয়া চমক একই ছবি ঘিরে। প্রযোজনা সংস্থা এসভিএফ ওই দিন হিন্দিতে সারা দেশে ছড়িয়ে দিচ্ছে অমল-মঞ্জরীর ভালবাসা। যেহেতু এখনও পর্যন্ত কোনও বিগ বাজেটের বলিউড ছবি রিলিজের কথা নেই তাই দীপাবলিতে ভালই ব্যাটিং করবে হিন্দি ‘ড্রাকুলা স্যার’, আশা সংস্থার অন্যতম কর্ণধান মহেন্দ্র সোনির।
 
ছবি যে বাঙালি মনে ভালই আলোড়ন তুলবে, আগেই আঁচ করেছিলেন পরিচালক। তাই আনন্দবাজার ডিজিটালকে দেবালয় ছবি তৈরির ভাবনার কথা জানাতে গিয়ে বলেছিলেন, ‘‘বিদেশি ছবিতে দর্শক যখন ড্রাকুলা চরিত্র দেখেন, তখন তার একটা নির্দিষ্ট আবহ থাকে। দুর্গের মতো বাড়ি, ঘোড়ার গাড়ি, কফিন... এই অনুষঙ্গগুলো ড্রাকুলা কনসেপ্টের সঙ্গে অদ্ভুত ভাবে জড়িয়ে। ‘ড্রাকুলা স্যার’ যেহেতু বাংলায় তৈরি হচ্ছে তাই কাহিনিতে মিশেছে বাঙালি উপাদান। কাহিনির মিথ, তার ব্যাকস্টোরি সব কিছুর মধ্যেই বাঙালিয়ানা।’
 
 
ছবিতে নামভূমিকায় অনির্বাণ ভট্টাচার্য। এই ছবি দিয়ে অনেক দিন পরে কাজে ফিরলেন সাংসদ-তারকা মিমি চক্রবর্তী। সে কারণে ছবিটি তাঁর কাছে স্পেশ্যাল। মিমির কথায়, ‘‘ছবির গল্প, লুক-ফিল সবটাই ভীষণ অন্য রকম। একটা বড় অংশ সত্তরের দশকের প্রেক্ষাপটে। এই ধরনের ছবি আমি আগে করিনি।’’
 
অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে রয়েছেন বিদীপ্তা চক্রবর্তী, রুদ্রনীল ঘোষ।
 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন