Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৭ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

বিনোদন

একাধিকবার ধর্ষণ ও দুর্ঘটনার শিকার, নিক জোনাসের ‘স্ত্রী’ মানচাওজেন সিন্ড্রোমে ভুগছেন?

নিজস্ব প্রতিবেদন
২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৪:৩৯
নিক জোনাসের সঙ্গে জামিলা জামিলের বিবাহবিচ্ছেদ! সম্প্রতি এই খবর টুইটারে পোস্ট করে নেটাগরিকদের প্রথমত বিস্ময় এবং দ্বিতীয়ত হাসির কারণ হয়ে উঠেছেন এক ব্যক্তি।

জামিলার জন্ম লন্ডনে এবং নিকের জন্ম থেকে বড় হয়ে ওঠা সবটাই আমেরিকায়। জামিলা একজন অভিনেত্রী, মডেল, লেখিকা। নিক মূলত গায়ক। পাশাপাশি তিনি একজন অভিনেতাও।
Advertisement
জামিলার সঙ্গে নিকের ব্যক্তিগত পরিচয় নেই। অথচ জামিলাকে নিকের স্ত্রী হিসাবে ভুল করে বসেন ওই ব্যক্তি। যার পর বিস্ময় এবং হাসিঠাট্টায় মেতে ওঠে টুইটার।

ওই ব্যক্তি আসলে জামিলার সঙ্গে প্রিয়ঙ্কা চোপড়াকে গুলিয়ে ফেলেছিলেন। নিকের স্ত্রী হলেন প্রিয়ঙ্কা। কিন্তু তিনি জামিলাকেই ভেবেছিলেন নিকের স্ত্রী! ওই পোস্টের নীচে পোস্ট করে স্বয়ং জামিলা তাঁর ভুল ভাঙিয়ে দেন।
Advertisement
সাফ জানিয়ে দেন তাঁর এবং প্রিয়ঙ্কার মুখের মধ্যে কোনও মিল নেই। প্রিয়ঙ্কা এবং নিক একে অপরের সঙ্গে খুব সুখেই রয়েছেন। প্রিয়ঙ্কাও পোস্ট করে ওই ব্যক্তির ভুল ভাঙিয়েছেন। কিন্তু যাঁকে নিয়ে পরপর এতগুলো পোস্ট হয়ে গেল টুইটারে, কে সেই জামিলা জামিল?

অভিনেত্রী, মডেল, লেখিকা— বিশ্বের কাছে এটাই তাঁর পরিচয়। অনুরাগীদের বিনোদন দেওয়াই তাঁর কাজ। কিন্তু তাঁর ব্যক্তিগত জীবনে ঘটে গিয়েছে বহু অঘটন।

লন্ডনে জন্ম হলেও জামিলের ভারতীয় যোগ রয়েছে। তাঁর বাবা আলি জামিল ছিলেন ভারতীয় এবং মা সিরিন পাকিস্তানি। জন্ম থেকেই তাঁর কানের সমস্যা ছিল। ঠিকমতো শুনতে পেতেন না তিনি।

তার উপর ল্যাবাইরিন্থিসিসও ছিল। এই সমস্যার জন্য সারা ক্ষণই তাঁর মাথা ঘুরত। মাঝেমধ্যেই বমি হত। অনেক চিকিৎসার পর এই সমস্যাগুলি থেকে কিছুটা মুক্তি পান জামিল। বাঁ কানে ৭০ শতাংশ এবং ডান কানে ৫০ শতাংশ শুনতে পান তিনি।

মাত্র ৯ বছর বয়সে ফের এক দুরারোগ্য অসুখ বাসা বাঁধে তাঁর শরীরে। হাইপারমোবাইল এলারস-ডানলস সিন্ড্রোম। এটি একটি জিনগত রোগ যা তাঁর শরীরের সমস্ত যোগকলায় প্রভাব ফেলে।

আবার ১২ বছর বয়সে ক্ষুদ্রান্তের এক সমস্যায় জর্জরিত হন তিনি। সেই রোগের জন্য প্রায় কোনও খাবারই খেতে পারতেন না জামিলা। কিছু খেলেই তাঁর পেটের সমস্যা হত। খাদ্য থেকে পুষ্টিগুণ দেহে শোষিত হত না এবং সর্বোপরি খিদে চলে যাওয়ার মতো সমস্যায় ভুগতে শুরু করেন তিনি।

খাবার ঠিকমতো হজম হত না তাই অপুষ্টিতে ভোগেন দীর্ঘ দিন। অনেক চিকিৎসার পর যখন কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠছিলেন তিনি, তখন আবার একটি বিপত্তি ঘটে।

২১ বছর বয়সে তাঁর শরীরে পারদ ঢুকে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। অপুষ্টির জন্য দাঁত প্রায় নষ্ট হতে বসেছিল তাঁর। দাঁতের গর্ত অ্যামালগাম নামে এক সঙ্কর ধাতু দিয়ে ভরেছিলেন। অ্যামালগামের একটি উপাদান হল পারদ। সেখান থেকেই পারদ বেরিয়ে তাঁর শরীরে মিশে গিয়েছিল। পারদ তাঁর খাদ্যনালী ফুটো করে দিয়েছিল।

এত গেল রোগের বিষয়। এগুলো ছাড়াও একাধিকবার গাড়ির ধাক্কা খেয়েছেন তিনি। আর মৌমাছির তাড়া খাওয়া তাঁর নাকি অভ্যাসে দাঁড়িয়ে গিয়েছে!

১৭ বছর বয়সে মৌমাছির তাড়া খেয়ে দৌড়ে রাস্তা পারাপার হওয়ার সময় গাড়ির ধাক্কা খেয়েছিলেন। তাঁর মেরুদণ্ডের অনেকগুলো হাড় গুড়িয়ে গিয়েছিল। চিকিৎসকেরা তাঁর হাঁটার আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন।

অনেক চিকিৎসার পর, মারাত্মক সমস্ত স্টেরয়েড নিয়ে, ফিজিওথেরাপি করিয়ে তিনি আস্তে আস্তে হাঁটতে পারেন।

তারপর ২০১৫ সালে হলিউড হিলস-এ সুরকার মার্ক রনসনের সাক্ষাৎকার নেওয়ার সময় আচমকাই এক ঝাঁক মৌমাছি তাঁকে তাড়া করেছিল। ২০১৬ সালে শ্যুটিং করার সময়ও তাঁকে নাকি কালো রঙের বিষাক্ত মৌমাছি তাড়া করেছিল। তখনও গাড়ির ধাক্কা খেয়েছিলেন তিনি।

একাধিকবার ধর্ষণের শিকারও হয়েছেন তিনি। কখনও স্কুল থেকে ফেরার সময় লন্ডনের রাস্তায়, কখনও লন্ডনের ভূগর্ভস্থ এসকেলেটরে তাঁকে ধর্ষণের শিকার হতে হয়েছে। ২০১৬ এবং ২০১৯ সালে দু’বার সার্ভিকাল ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার দাবিও করেছিলেন জামিলা। এমনকি বিভিন্ন কারণে শারীরিক এবং মানসিক ভাবে ভেঙে পড়ে তিনি দু’বার আত্মহত্যার চেষ্টাও করেছিলেন বলে দাবি করেন।

জামিলার এই সমস্ত দাবি নিয়ে যথেষ্ট বিতর্ক রয়েছে। অনেকেরই মতে, তিনি শুধুমাত্র প্রচারে আসার জন্যই এ সব বানিয়ে বলেন। অনেকের মতে তিনি মানচাওজেন সিন্ড্রোমে আক্রান্ত। এই সিন্ড্রোমে আক্রান্তেরা নিজের সম্পর্কে এ রকমই বানিয়ে কথা বলে থাকেন।