‘ইন্দু সরকার’ আসলে একটি প্রেমের কাহিনি। এমনটাই দাবি করলেন ছবির নায়িকা কীর্তি কুলহারি। মঙ্গলবার এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, ছবিতে প্রেমের গল্প বোনা হয়েছে এ দেশের জরুরি অবস্থার প্রেক্ষাপটে।

মুক্তির দু’দিন আগে ছবিতে নিজের চরিত্র নিয়েও আলোচনা করেছেন ‘পিঙ্ক’ খ্যাত অভিনেত্রী। জানিয়েছেন, এক অনাথের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন তিনি। যাঁর স্বামী-সন্তান নিয়ে সংসার করার ইচ্ছেই জীবনের একমাত্র লক্ষ্য। অনাথ আশ্রমেই বড় হওয়া ইন্দু কবিতা লিখতে ভালবাসে। জীবনে একে একে সব সুখ এলেও কী ভাবে জরুরি অবস্থার সময় স্বামী ও তাঁর মতবিরোধের জেরে সংসার ভেঙে যায়, সেই কাহিনিই দেখানো হয়েছে মধুর ভাণ্ডারকরের ‘ইন্দু সরকার’-এ। অনাথ, তোতলা এক নারীর সব বাধা পেরিয়ে জীবনযুদ্ধে জয়ের কাহিনিই আসলে ছবির প্লট।

আরও পড়ুন, ‘গুজরাত দাঙ্গায় মোদীর ভূমিকা নিয়ে ছবি করলে বোর্ড আটকাবে তো?’

প্রেমের কাহিনির মাঝেই সত্তরের দশকে দেশ জুড়ে জরুরি অবস্থার সময়ে রাষ্ট্রীয় নিপীড়নের টুকরো টুকরো ছবি ফুটে উঠেছে ইন্দু সরকারে। ট্রেলার রিলিজের পর থেকেই ইন্দিরা গাঁধী সরকারের ভূমিকার ‘ভুল ব্যাখ্যা’ হয়েছে বলে তীব্র প্রতিবাদে নেমেছে কংগ্রেস। ইতিমধ্যেই সেন্সর বোর্ড ছবির ১২টি দৃশ্যে কাঁচি চালিয়েছে। ‘ইন্দু সরকার’-এ কীর্তি কুলহারির সঙ্গে অভিনয়ে রয়েছেন টলিউডের টোটা রায়চৌধুরী। ইন্দিরা গাঁধীর ভূমিকায় দেখা যাবে সুপ্রিয়া বিনোদকে। সঞ্জয় গাঁধীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন নীল নীতিন মুকেশ। ছবিটি মুক্তি পাবে শুক্রবার।