×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

বিনোদন

চরিত্রের প্রয়োজনে বলি তারকাদের চেহারার পরিবর্তন চমকপ্রদ

নিজস্ব প্রতিবেদন
২৬ জুলাই ২০১৯ ১৩:৪২
চরিত্রের প্রয়োজনে ফিল্মে তারকারা যে কত কিছু করেন, তার ইয়ত্তা নেই। চরিত্রের সঙ্গে নিজেদের মানানোর জন্য নিজের চেহারাটাই বদলে দেন। অতিরিক্ত ওজন বাড়ানো থেকে ওজন কমানো, বহু বার এই মেকওভারে চমকে দিয়েছেন তারকারা। তেমনই কয়েক জন অভিনেতার সঙ্গে আলাপ করা যাক।

আমির খান: ‘তারে জমিন পর’-এর নিকুম্ভ স্যার থেকে ‘গজনি’র সেই মাসকুলার লুক। চমকে দিতে সর্বদাই তৈরি পারফেকশনিস্ট আমির। ‘দঙ্গল’-এর জন্য এই আমিরই প্রায় ৩০ কেজি ওজন বাড়িয়েছিলেন।
Advertisement
ঋত্বিক রোশন: ‘গুজারিশ’-এ অভিনয়ের জন্য তাঁকে অনেকটা ওজন বাড়াতে হয়েছিল। এরপরই তাঁকে সুপারহিরো হিসেবে দেখা গিয়েছে ‘কৃষ ৩’-তে। প্রায় ১০ সপ্তাহ ধরে আন্তজার্তিক ট্রেনার ক্রিস গোথিনের কাছে ট্রেনিং নিয়েছিলেন তিনি। এমনকি কঠোর ডায়েট প্ল্যানও মেনে চলতে হয়েছে তাঁকে।

অভিষেক বচ্চন: ‘ধুম ২’-তে অভিষেকের লুক আর ‘গুরু’ সিনেমায় তাঁর লুক সম্পূর্ণ অন্যরকম। ‘গুরু’-তে শিল্পপতির চরিত্রে অভিনয় করার জন্য অভিষেক বাড়িয়েছিলেন অনেকখানি ওজন।
Advertisement
প্রিয়ঙ্কা চোপড়া: এই তালিকায় রয়েছেন প্রিয়ঙ্কা চোপড়াও। মেরি কমের বায়োপিকে বক্সারের চরিত্রে অভিনয় করার জন্য তাঁকে করতে হয়েছে কঠোর পরিশ্রম। নিজেকে সম্পূর্ণ বক্সারের লুকে দেখানোর জন্য ওজন বাড়িয়েছিলেন প্রিয়ঙ্কা।

রনদীপ হুডা: ‘সর্বজিৎ’ সিনেমায় অভিনয় করার সময় রণদীপ হুদা প্রায় ১৮ কেজি ওজন কমিয়েছিলেন। চেহারায় এমন পরিবর্তন এসেছিল যে, সেটের লোকজনও প্রথমে তাঁকে চিনতে পারেননি।

ফারহান আখতার: ‘ভাগ মিলখা ভাগ’ সিনেমায় মিলখা সিংহ-এর ভূমিকায় অভিনয় করার জন্য ফারহান আখতার প্রায় ১৩ মাস ধরে নিজেকে তৈরি করেছিলেন। এর জন্য সপ্তাহে ৬ দিন প্রায় ৫-৬ ঘণ্টা তিনি ওয়ার্ক আউট করতেন।

রাজকুমার রাও: ‘বহেন হোগি তেরি’-তে  ৬ প্যাকে দেখা গিয়েছিল রাজকুমারকে। তার পরেই ‘ট্র্যাপড’ সিনেমার জন্য তিনি নিজের ওজন কমিয়েছিলেন অনেকটাই। এর পরে ‘বোস’ ওয়েব সিরিজে নিজেকে সুভাষচন্দ্রের ভূমিকায় মানিয়ে নেওয়ার জন্য বেশ কিছুটা ওজন বাড়িয়েছিলেন তিনি।

ভূমি পেদনেকর: ‘দম লাগাকে হাইসা’ সিনেমায় এক গৃহবধূর ভূমিকায় অভিনয় করার জন্য ভূমি প্রায় ৩০ কিলোগ্রাম ওজন বাড়িয়েছিলেন। পরে সেই ওজন তিনি কমিয়ে একাবের তাক লাগিয়ে দেন।

সিদ্ধার্থ মলহোত্র: শরীরচর্চা করলেও কখনই তিনি তেমন মাস্কুলার ছিলেন না। কিন্তু ‘ব্রাদার’ সিনেমায় বক্সারের ভূমিকায় অভিনয় করার জন্য নিজেকে সম্পূর্ণ পাল্টে ফেলে মাস্কুলার হয়েছিলেন সিদ্ধার্থ।

জন আব্রাহাম: বলিউডের বডি বিল্ডার হিসেবে খ্যাত জনকে প্রায় প্রতি সিনেমায় চরিত্রের দাবি রাখতে নিজের চেহারার পরিবর্তন করতে দেখা গিয়েছে। ‘ঝুঠা হি সহি’ সিনেমায় তাঁকে দেখা গিয়েছিল সম্পূর্ণ অন্য রূপে এবং ‘ফোর্স’ সিনেমায় তাঁকে দেখা গিয়েছে সম্পূর্ণ অন্য চেহারায়।

শাহরুখ খান: শাহরুখ খানও যে কখনও চেহারা নিয়ে পরীক্ষায় যেতে পারেন, ‘হ্যাপি নিউ ইয়ার’-এর আগে জানাই যায়নি। শুধুমাত্র একটা সিনে অভিনয় করার জন্য তিনি ৬ প্যাক বানিয়ে ফেলেছিলেন!

প্রভাস: ‘বাহুবলি’ খ্যাত প্রভাসও থাকছেন এই তালিকায়। এই সিনেমায় অভিনয় করার জন্য তিনি একেবারে পাল্টে ফেলছিলেন নিজেকে।

রণবীর কপূর: বলিউডের হার্টথ্রব রণবীর ‘সঞ্জু’ সিনেমায় অভিনয় করার জন্য একেবারে লুক পাল্টে ফেলছিলেন। এই একটি মাত্র সিনেমায় অভিনয় করতে তাঁকে পরিবর্তন করতে হয়েছে বেশ কয়েকটি লুক। কখনও ছিমছাম, কখনও মোটা, আবার কখনও ওজনও বাড়াতেও হয়েছে তাঁকে।

শাহিদ কপূর: বলিউডের চকলেট বয় শাহিদ বেশ কিছু সিনেমায় অভিনয় করার জন্য নিজের চেহারায় পরিবর্তন এনেছিলেন। ‘কামিনে’ সিনেমায় অভিনয় করার জন্য তিনি দিনে ৫-৬ ঘণ্টা জিমে ওয়ার্ক আউট করেছেন।

সেফ আলি খান: সেফ আলি খান সম্প্রতি নেটফ্লিক্সের ওয়েব সিরিজ ‘সেকরেড গেমসে’ পুলিশের ভূমিকায় অভিনয় করার জন্য ওজন অনেকখানি বাড়িয়েছিলেন।

রণবীর সিংহ: ‘গোলিয়ো কি রাসলীলা রামলীলা’-এ অভিনয় করার জন্য রণবীর তাঁর চেহারায় ব্যাপক পরিবর্তন করে ফেলেছিলেন। শুধু তাই নয়, ‘পদ্মাবত’-এ অভিনয় করার সময় তিনি যা ওজন বাড়িয়েছিলেন, তার বেশ কিছুটা ‘গাল্লি বয়’ সিনেমায় অভিনয় করার সময় তাঁকে কমাতে হয়েছে।

সলমন খান: ‘সুলতান’ সিনেমায় অভিনয় করার সময় বিশাল ভুঁড়ি বানাতে হয়েছিল সলমনকে। ওই একই সিনেমার জন্য তাঁকে বিপুল ওয়ার্ক আউট করে সুঠাম চেহারার কুস্তিগীর হতে হয়েছে।