• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মাদক কেনা মানেই চক্রের মাথা নয়, রিয়াকে জামিন দিয়ে জানাল বম্বে হাইকোর্ট

Rhea Chakraborty
—ফাইল চিত্র।

মাদকাসক্ত কোনও ব্যক্তির নেশার জন্য টাকা দেওয়ার মানে তাঁকে উৎসাহ জোগানো নয়। মাদক-মামলায় রিয়া চক্রবর্তীর জামিনের শুনানি চলাকালীন এমনই মন্তব্য করল বম্বে হাইকোর্ট। সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যুতে মাদক-যোগ নিয়ে কাঠগড়ায় তাঁর বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তী। প্রয়াত অভিনেতার জন্য তিনি মাদক জোগাড় করতেন এবং সে বাবদ টাকাও খরচ করতেন বলে মাদক আইনের ২৭-এ ধারা অনুযায়ী রিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে নার্কোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)। সেই অভিযোগের প্রেক্ষিতেই বুধবার এমন মন্তব্য করেছেন বিচারপতি।

শর্তসাপেক্ষে, ১ লক্ষ টাকার বন্ডে এ দিন রিয়ার জামিন মঞ্জুর করেছে আদালত। সেখানে রিয়ার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ নিয়ে বিচারপতি সারং ভি কোতোয়াল বলেন, ‘‘মাদকাসক্তের নেশার জন্য টাকা দেওয়ার অর্থ তাঁকে নেশায় উৎসাহ জোগানো বা তাঁকে আড়াল করা, মাদক আইনে আনা ওই অভিযোগের সঙ্গে একমত হতে পারছি না আমি। ’’

রিয়াকে মাদকচক্রের সক্রিয় সদস্য হিসেবে নিজেদের রিপোর্টে উল্লেখ করেছে এনসিবি। তাই রিয়া মাদক বিক্রির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন কি না, সে প্রশ্নও ওঠে। ব্যক্তিগত ব্যবহার এবং বিক্রির জন্য কতটা পরিমাণ মাদক মজুত রাখা অপরাধ, তা বেঁধে দেওয়া আছে মাদক আইনে। বিক্রির জন্য মাদক মজুত রাখার ক্ষেত্রে, কারও কাছ থেকে যদি নির্দিষ্ট পরিমাণের চেয়ে বেশি মাদক উদ্ধার হয়, সে ক্ষেত্রে তুলনামূলক কঠোর সাজা দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন: মাদক মামলায় কোন পাঁচ শর্তে জামিন পেলেন রিয়া​

কিন্তু রিয়াকে মাদকচক্রের সক্রিয় সদস্য বলে উল্লেখ করলেও, তাঁর বা সুশান্তের বাড়ি থেকে কত পরিমাণ মাদক উদ্ধার হয়েছে, তা বলা নেই এনসিবি-র রিপোর্টে।  তাই রিয়া আদৌ কোনও অপরাধ করেছেন কি না, সেটা বোঝার উপায় নেই বলেও মন্তব্য করেন বিচারপতি।  তিনি বলেন, ‘‘মাদক আইনের ১৯, ২৪ বা ২৭-এ ধারায় শাস্তি পাওয়ার মতো কোনও অপরাধ যে রিয়া করেননি, তা বিশ্বাস করার অনেক কারণ রয়েছে। এর আগে ওঁর বিরুদ্ধে এ রকম কোনও অভিযোগ ওঠেনি। তিনি মাদকচক্রের সঙ্গে যুক্ত নন। অর্থনৈতিক ফায়দার জন্য এক জনের কাছ থেকে মাদক নিয়ে অন্য জনকে সরবরাহ করেননি তিনি। তাঁর বিরুদ্ধে এই ধরনের অপরাধের কোনও অভিযোগ যে হেতু নেই, তাই জামিন পেলেও তাঁর সে রকম কিছু করার সম্ভাবনা নেই।’’

তারকাদের ক্ষেত্রে কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে জনমানসে উদাহরণ তৈরিরও বিরোধিতা করেন বিচারপতি কোতোয়াল। তিনি বলেন, ‘‘এ ব্যাপারে একমত নই আমি। আইনের চোখে সকলেই সমান। কোনও তারকা বা রোল মডেলকে বিশেষ সুবিধা দেওয়া হয় না। আবার তারকা বলেই যে আইনের কাছে তাঁরা বিশেষ ভাবে দায়বদ্ধ, এমনটাও নয়।  কে, কতটা প্রভাবশালী, তার উপর ভিত্তি করে নয়, বরং সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময় তথ্য-প্রমাণই গুরুত্বপূর্ণ।’’

আরও পড়ুন: মাদক মামলায় জামিন পেলেন রিয়া, ভাই শৌভিকের আর্জি খারিজ​

রিয়ার হেফাজতের মেয়াদ বাড়াতে চেয়ে এ দিন আদালতে নতুন করে আর্জি জানায়নি এনসিবি। রিয়া তদন্তে সহযোগিতা করেছেন এবং তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করে তদন্তকারীরা সন্তুষ্ট, তাই জামিনে বাধা নেই বলেও মন্তব্য করেন বিচারপতি।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন