Advertisement
১৩ জুন ২০২৪
NSG

কাশ্মীরে কাজ না দিয়ে বসিয়ে রাখা হয়েছে ৮০ জন কম্যান্ডোকে!

প্রতিটি বাহিনীকেই নির্দিষ্ট দায়িত্ব দিয়েছে রাজ্য প্রশাসন। অথচ সব থেকে দুর্ধর্ষ শক্তিকেই রীতিমতো বসিয়ে রাখা হয়েছে। কোনও দায়িত্ব না থাকায় আপাতত বিএসএফের হুমহামা সেনাঘাঁটিতে প্রায় ‘ছুটি’ কাটাচ্ছেন ৮০ জন এলিট কম্যান্ডো।

ন্যাশলাল সিকিউরিটি গার্ড। ফাইল চিত্র।

ন্যাশলাল সিকিউরিটি গার্ড। ফাইল চিত্র।

নিজস্ব প্রতিবেদন
শেষ আপডেট: ২৮ নভেম্বর ২০১৮ ১৪:১০
Share: Save:

ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর সবথেকে দুর্ধর্ষ এবং অভিজাত গোষ্ঠী ‘ন্যাশনাল সিকিউরিটি গার্ড’কে কোনও কাজ না দিয়ে বসিয়ে রাখা হয়েছে কাশ্মীর উপত্যকায়। প্রায় ছ’মাস ধরে উপত্যকার সেনাশিবিরে থাকলেও এখনও সন্ত্রাস দমনে কোনও দায়িত্ব দেওয়া হয়নি এই ৮০ জন কম্যান্ডোকে। এমনটাই জানা যাচ্ছে সংবাদমাধ্যম সূত্রে।

সূত্রের খবর, এই ৮০ জন কম্যান্ডোকে উপত্যকায় পাঠানো হয়েছিল জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের নির্দেশেই। জম্মু ও কাশ্মীরের জনবহুল এলাকায় জঙ্গিরা লুকিয়ে থাকায় বিভিন্ন অভিযান চালাতে গিয়ে বড় সংখ্যায় মারা যাচ্ছেন ভারতীয় জওয়ানরা। কম্যান্ডো অভিযান চালানো হলে নিজেদের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে নিখুঁত লক্ষ্যে অপারেশন চালিয়ে জঙ্গিদের কাবু করা সম্ভব হবে, সেই উদ্দেশ্যেই উপত্যকায় পাঠানো হয়েছিল ৮০ জন কম্যান্ডোকে। একই সঙ্গে সরাসরি বিভিন্ন অভিযানে যুক্ত থাকলে কম্যান্ডোদের ক্ষিপ্রতা আরও বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করা হয়েছিল। কিন্তু শেষ ছ’মাস ধরে তাঁদের দিয়ে বিভিন্ন আধাসামরিক বাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ করানো হয়। কোনও প্রত্যক্ষ অভিযানে তাঁদের এখনও পর্যন্ত কোনও ভূমিকা নেই।

গত মাসের শুরুতেই কাশ্মীরে গিয়েছিলেন ন্যাশনাল সিকিউরিটি গার্ডের ডিরেক্টর জেনারেল সুদীপ লাখটাকিয়া। তিনি দেখা করেন রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক এবং জম্মু ও কাশ্মীরের পুলিশ প্রধান দিলবাগ সিংহের সঙ্গে। সংবাদ মাধ্যমকে তিনি জানান, ‘‘ কোনও বাহিনীকে কী ভাবে ব্যবহার করা হবে, তা ঠিক করে রাজ্য প্রশাসনই। আমরা কিন্তু রাজ্যের অনুরোধেই বাহিনী পাঠিয়েছিলাম কাশ্মীরে। আমরা থাকলে যে কোনও অভিযানের গতি ও ক্ষিপ্রতা অনেক বেড়ে যায়।’’

আরও পড়ুন: ‘এনকাউন্টার’-এ নিহত সাংবাদিক শুজাত বুখারি হত্যাকাণ্ডের মূল পাণ্ডা নাভেদ জাট

এই মুহূর্তে ভারতীয় সেনা ছাড়াও অন্যান্য আধাসামরিক বাহিনীর উপস্থিতি রয়েছে কাশ্মীরে। প্রতিটি বাহিনীকেই নির্দিষ্ট দায়িত্ব দিয়েছে রাজ্য প্রশাসন। অথচ সব থেকে দুর্ধর্ষ শক্তিকেই রীতিমতো বসিয়ে রাখা হয়েছে। কোনও দায়িত্ব না থাকায় আপাতত বিএসএফের হুমহামা সেনাঘাঁটিতে প্রায় ‘ছুটি’ কাটাচ্ছেন ৮০ জন এলিট কম্যান্ডো। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সূত্রে খবর, কাশ্মীরে ইতিমধ্যেই বিপুল সংখ্যক নিরাপত্তারক্ষীর উপস্থিতি রয়েছে। তাই নতুন করে আর কম্যান্ডোদের কাজে লাগানোর কথা ভাবছে না জম্মু ও কাশ্মীর প্রশাসন।

আরও পড়ুন: শবরীমালার তীর্থযাত্রায় যাওয়ার ‘শাস্তি’! কেরলের সমাজকর্মীকে সাসপেন্ড করল বিএসএনএল

এই বছর জম্মু ও কাশ্মীর জুড়ে সন্ত্রাসের ঘটনা রেকর্ড বৃদ্ধি পেয়েছে। এখনও পর্যন্ত প্রায় ৪৫০টি নাশকতার ঘটনা ঘটেছে। মারা গিয়েছেন প্রায় ৮৫ জন নিরাপত্তারক্ষী। সেনার পাল্টা আক্রমণে নিহত হয়েছে প্রায় ২৩০ জন জঙ্গিও। এই রকম পরিস্থিতিতে ৮০ জন কম্যান্ডোকে বসিয়ে রাখার ঘটনায় প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে।

(কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী, গুজরাত থেকে মণিপুর - দেশের সব রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।)

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE