×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৩ জানুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

নারীবিদ্বেষী মন্তব্যে করে বিতর্কে মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস বিধায়ক, পরে ক্ষমা চাইলেন

সংবাদ সংস্থা
ভোপাল২৫ জুন ২০২০ ১২:২৮
মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস বিধায়ক জিতু পাটওয়ারি। ছবি- টুইটারের সৌজন্যে।

মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস বিধায়ক জিতু পাটওয়ারি। ছবি- টুইটারের সৌজন্যে।

মোদী সরকারের কাজকর্মের সমালোচনা করতে গিয়ে অযথা নারীবিদ্বেষী মন্তব্য করে বিতর্কে জড়ালেন মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস বিধায়ক জিতু পাটওয়ারি। পরে নিন্দা, সমালোচনার জেরে সোশ্যাল মিডিয়ায় টুইট করে ক্ষমা চাইতে হল ওই বিধায়ককে। জিতু রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী ও প্রদেশ কংগ্রেসের কার্যকরী সভাপতি।

নোটবন্দি, জিএসটি-সহ বিভিন্ন কেন্দ্রীয় পরিকল্পনার সমালোচনা করে বুধবার জিতু তাঁর টুইটে লেখেন, ‘‘দেশের মানুষ পুত্রসন্তান লাভের আশা করেছিল। কিন্তু তাঁদের পাঁচটি কন্যাসন্তান দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাঁদের একটিও পুত্রসন্তান দেওয়া হল না। এখনও জন্মাল না বিকাশ। উন্নয়ন।’’

জিতুর ওই মন্তব্যের প্রথম নিন্দা করেন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংহ চৌহান। জিতুর এই মন্তব্য নিয়ে তিনি কী মনে করেন, তা দলের নেত্রী সনিয়া গাঁধীর কাছে জানতে চান শিবরাজ।

Advertisement

আরও পড়ুন: ঘুরিয়ে তিব্বত তাস, চিনকে বার্তা ভারতের

আরও পড়ুন: দিল্লিকে রুখতেই গালওয়ান-ছক

জিতুর মন্তব্যের নিন্দা করে শিবরাজ তাঁর টুইটে লেখেন, ‘‘যখন দেশে রানি দূর্গাবতীর আত্মবলিদানকে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করা হচ্ছে, তখন একটি পুত্রসন্তান চেয়ে পাঁচটি কন্যাসন্তান পাওয়ার মতো মন্তব্য অত্যন্ত নিন্দনীয়। কন্যাসন্তানের জন্ম দেওয়া কি অপরাধ? কন্যাসন্তাদের অপমান করার জন্য সনিয়াজি কি তাঁর দলের নেতাদের দায়িত্ব দিয়েছেন?’’

মধ্যপ্রদেশের রাউ কেন্দ্রের বিধায়ক জিতুর টুইটের লক্ষ্য ছিল ২০১৪ এবং ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ‘সবকা সাথ, সবকা বিকাশ’ শ্লোগান।

কিন্তু ওই মন্তব্যের পরেই সমালোচনার ঝড় বয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। ক্ষমা চাইতে বাধ্য হন কংগ্রেস বিধায়ক। পরে আর একটি টুইটে জিতু লেখেন, ‘‘আমার মন্তব্যে কেউ আহত হলে আমি দুঃখিত। কন্যাসন্তান তো স্বর্গীয় জিনিস।’’

তবু তাঁর মন্তব্যের পক্ষে সওয়াল করতেও দ্বিধা করেননি জিতু। বলেছেন, ‘‘মোদী সরকারের বিভিন্ন কাজকর্মকে বিঁধতেই আমি এ কথা বলেছিলাম।’’

Advertisement