×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৩ জুন ২০২১ ই-পেপার

উত্তরপ্রদেশ বিধানসভায় মারাত্মক বিস্ফোরক!

সংবাদ সংস্থা
লখনউ ১৫ জুলাই ২০১৭ ০৪:১৭
উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা।— ফাইল ছবি।

উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা।— ফাইল ছবি।

উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা কক্ষে সমাজবাদী পার্টির বিধায়ক রামগোবিন্দ চৌধুরির আসনের তলা থেকে বুধবার মিলেছিল সাদা পাউডারের প্যাকেট। এ বার ফরেন্সিক পরীক্ষায় জানা গেল তা মারাত্মক বিস্ফোরক পিইটিএন বা পেন্টাঅ্যারিথ্রিটল টেট্রা নাইট্রেট। খাস বিধানসভা ভবনে এ হেন বিস্ফোরক উদ্ধার হওয়ায় চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে লখনউ ও দিল্লিতে। আজ এনআইএ তদন্তের সুপারিশ করেছে উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা।

বুধবার বিধানসভার বাজেট অধিবেশনের আগে রামগোবিন্দ চৌধুরির আসনের তলায় একটি সাদা পাউডার ভর্তি প্যাকেট দেখতে পান সাফাইকর্মীরা। খবর দেওয়া হয় নিরাপত্তা বাহিনীকে। প্যাকেটটি উদ্ধার করে ফরেন্সিক পরীক্ষার জন্য পাঠান নিরাপত্তারক্ষীরা।

গতকাল রিপোর্ট দিয়েছে ফরেন্সিক দল। জানা গিয়েছে, উদ্ধার হওয়া ওই সন্দেহজনক পাউডার আসলে পিইটিএন বা পেন্টাঅ্যারিথ্রিটল টেট্রা নাইট্রেট। যা জঙ্গিরা বড় নাশকতার ক্ষেত্রে বোমা তৈরির মশলা হিসেবে ব্যবহার করে। এর আগেও বড় বিস্ফোরণে এই প্লাস্টিক বিস্ফোরক ব্যবহার হয়েছে। প্যাকেটটিতে ১৫০ গ্রাম বিস্ফোরক ছিল।

Advertisement

বিশেষজ্ঞদের মতে, সাধারণ ভাবে এই বিস্ফোরক শনাক্ত করা খুব কঠিন। এক্স-রে স্ক্যানার কিংবা পুলিশ কুকুরও অনেক সময়ে এই রংহীন বিস্ফোরক খুঁজে পায় না। অথচ সামান্য উত্তাপ বা বিদ্যুতের সংস্পর্শে এলেই মারাত্মক বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে পিইটিএন। ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, মাত্র ৫০০ গ্রাম পিইটিএন পাউডারই গোটা বিধানসভা উ়ড়িয়ে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট। নানা দেশেই বিভিন্ন ধরনের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে পিইটিএনের কেনাবেচা নিয়ে।

আরও পড়ুন: রাশ থাকবে কি পাহাড়ে, উদ্বিগ্ন নেতারা

আজ রাজ্য প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। পরে তিনি বিধানসভায় বলেন, ‘‘এটা জঙ্গিদের এক ভয়ঙ্কর ষড়যন্ত্র। বিধানসভার সুরক্ষা আমাদের দায়িত্ব। উত্তরপ্রদেশ সরকার এনআইএ তদন্ত চেয়েছে।’’ পরে এনআইএ তদন্ত চেয়ে একটি প্রস্তাবও পাশ হয়। বিধানসভায় নিরাপত্তাও বাড়ানো হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে নেমে দেওরিয়া জেলার তারকুলবা থানা এলাকা থেকে এক বছর কুড়ির যুবককে গ্রেফতার করেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। অভিযোগ, ১৫ অগস্ট বিধানসভা উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে উড়ো ফোন করেছিল ফারহান আহমেদ নামে ওই যুবক। তার মোবাইল আটক করেছে পুলিশ।

বিস্ফোরক উদ্ধারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে অবশ্য যোগী সরকারকে এক হাত নিতে ছাড়েনি বিরোধী পক্ষ। সমাজবাদী পার্টির নেতা রাজেন্দ্র চৌধরি বলেন, ‘‘প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও অপরাধের ঘটনা ঘটছে। রাজ্যে মেয়েরা সুরক্ষিত নন। আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থাও বিপন্ন।’’

আজ সংসদ চত্বরে বম্ব স্কোয়াডের বাহিনী আসায় জল্পনা ছড়িয়েছিল। পরে জানানো হয়, প্রতিটি অধিবেশন শুরুর আগে নিয়মমাফিক তল্লাশি চালানোটাই দস্তুর।



Tags:
Uttar Pradesh Assembly Explosiveউত্তরপ্রদেশ বিধানসভাউত্তরপ্রদেশ

Advertisement