Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২২ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

মামার কেন্দ্রে রাত কাটিয়ে গেল ভাগ্নে

সংবাদ সংস্থা
অমেঠী ১২ জুলাই ২০১৫ ০৩:১১
অমেঠীতে এক গ্রামবাসীর বাড়িতে ভোজন প্রিয়ঙ্কা-পুত্র রেহানের (ডান দিকে)। রয়েছে তার এক বন্ধুও। ছবি: পিটিআই।

অমেঠীতে এক গ্রামবাসীর বাড়িতে ভোজন প্রিয়ঙ্কা-পুত্র রেহানের (ডান দিকে)। রয়েছে তার এক বন্ধুও। ছবি: পিটিআই।

মামার পথে ভাগ্নে!

মামার নির্বাচনী কেন্দ্র অমেঠী। সেখানে গিয়ে মাঝেমধ্যেই স্থানীয়দের সঙ্গে খাওয়াদাওয়ার পাশাপাশি রাত্রিবাসও করেন তিনি। এ বার মামার কেন্দ্রে আচমকা হাজির ভাগ্নে। শুধু হাজিরই হল না, মামার মতোই সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলল, রাত কাটাল। পাত পেড়ে খেল অমেঠীর সাধারণ খাবার।

মামা কংগ্রেসের যুবরাজ রাহুল গাঁধী। আর ভাগ্নে? প্রিয়ঙ্কা ও রবার্ট বঢরার ছেলে রেহান।

Advertisement

তাই প্রশ্ন উঠছে, রাজনীতিতে কি হাতেখড়ি হয়ে গেল ১৪ বছরের রেহানের? মামার কেন্দ্র থেকেই কি জনসংযোগ গড়ার কাজ শুরু করে দিল এই কিশোর? যদিও কংগ্রেস এই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানায়নি। মুখে কুলুপ স্থানীয় প্রশাসনেরও।

মঙ্গলবার সন্ধেয় রাজীব গাঁধী মহিলা বিকাশ প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত নীলেশ জৈন এবং কে সি যাদবের সঙ্গে গাড়িতে করে অমেঠী এসে পৌঁছয় রেহান ও তার বন্ধুরা। ওঠে গৌরীগঞ্জের বাসিন্দা রামকৃপাল পাণ্ডের বাড়িতে। সনিয়া গাঁধীর নাতিকে দেখে গ্রামবাসীদের চোখ তখন কপালে। এক স্থানীয় জানান, গ্রামবাসীদের কাছে তাঁদের জীবনযাত্রা সম্পর্কে জানতে চায় রেহান। জানতে চায় তাঁদের সুবিধা অসুবিধার কথাও।

এর পরে খাওয়ার পালা। গ্রামবাসীদের মতোই খাটিয়ায় স্টিলের থালা-গ্লাসে ভাত-ডাল-রুটি-সব্জিতেই খাওয়া সারেন রেহান। তার পর খোলা জায়গাতেই খাটিয়া পেতে মশারি টাঙিয়ে লম্বা ঘুম।

রাহুল গাঁধীর পাশাপাশি সনিয়া এবং প্রিয়ঙ্কাও মাঝেমধ্যেই যান অমেঠীতে। এ বার সেই তালিকায় যুক্ত হল রেহানের নাম। সব দেখে এক কংগ্রেস কর্মীর মন্তব্য, ‘‘বুঝতে পারছেন তো অমেঠী এবং অমেঠীর মানুষজনকে গাঁধী পরিবার কতটা ভালবাসে।’’

আরও পড়ুন

Advertisement