Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০২ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

টাকা শেষ, তৈরিই হয়নি ‘রিজেকশন লেটার’, অন্ধকারে এনআরসি-র ভবিষ্যৎ

নিজস্ব সংবাদদাতা
গুয়াহাটি ২৯ মার্চ ২০২১ ০৫:৪৫
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

সব দলই প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে অসমবাসীকে ‘শুদ্ধ, স্বদেশী’ এনআরসি তৈরি করে দেবে। কিন্তু এনআরসি তৈরির আসল দায়িত্ব এনআরসি দফতরের। আর চূড়ান্ত এনআরসি-কে গেজেট নোটিফিকেশন দিয়ে স্বীকৃতি দেওয়ার ভার রেজিস্ট্রার জেনারেল অব ইন্ডিয়া বা আরজিআই-এর। এনআরসি দফতর এখনও তালিকাছুটদের রিজেকশন লেটারই পাঠাতে পারেনি। এই পরিস্থিতিতে, এনআরসি-র কাজ চালানোর জন্য আরও অর্থসাহায্যের আবেদন জানিয়েছিল রাজ্য সরকার। কিন্তু সেই আবেদন খারিজ করে দিয়েছে আরজিআই। তাই ১৬০০ কোটি টাকার এনআরসি-র ভবিষ্যৎ আরও অন্ধকারে!

অসমে ২০১৯ সালের ৩১ অগস্ট এনআরসি-র ‘তথাকথিত’ চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশিত হয়েছিল। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ ছিল, এনআরসি দফতর অনতিবিলম্বে তালিকায় নাম না-ওঠা ১৯ লক্ষাধিক মানুষকে বাদ পড়ার কারণ জানিয়ে রিজেকশন লেটার বা স্পিকিং অর্ডার পাঠাবে। তা হাতে পাওয়ার ১২০ দিনের মধ্যে নাগরিকত্বের প্রমাণ-সহ হাজির হতে হবে ফরেনার্স ট্রাইবুনালে। ট্রাইবুনালের সংখ্যাও বাড়িয়ে ৫০০ করা হবে।

কিন্তু দু’বছর পার হতে চলল, এখনও রিজেকশন লেটার তৈরিই হল না। এনআরসির তালিকায় ঘোষিত ও সন্দেহভাজন বিদেশির প্রচুর নাম ঢুকেছে বলেও জানা গিয়েছে। তাই সব জেলাশাসককে তালিকা নতুন করে যাচাই করে সন্দেহভাজনদের নাম বাদ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন এনআরসি কো-অর্ডিনেটর হিতেশ দেব শর্মা। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে চলা প্রক্রিয়ায় আদালতের অনুমতি না নিয়েই চূড়ান্ত তালিকায় অদলবদল করার নির্দেশ দেওয়ায় বেশ কিছু সংগঠন সুপ্রিম কোর্টে নালিশ ঠুকেছে। ফলে চলছে মামলা। এ দিকে এনআরসি-র জন্য আসা টাকাও শেষ। তাই ডেটা এন্ট্রি অপারেটর, সাধারণ কর্মী এবং তথ্য-প্রযুক্তি কর্মীদের বেতন-ভাতা আটকে। রাজ্য সরকার ২২১ জন ফরেনার্স ট্রাইবুনাল সদস্য নিয়োগ করলেও রিজেকশন লেটারের অভাবে সেই সব ট্রাইবুনালও কাজ শুরু করেনি।

Advertisement

আরও পড়ুন

Advertisement