Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৩ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

তেলঙ্গানার বিদ্যুৎ পরিষেবাতেও চিনা হানা, সরকারি তৎপরতায় এড়ানো গেল বিভ্রাট

সংবাদ সংস্থা
হায়দরাবাদ ০৩ মার্চ ২০২১ ১০:৫৪
—প্রতীকী চিত্র।

—প্রতীকী চিত্র।

মহারাষ্ট্রের পর চিনা হ্যাকারদের হানা এ বার তেলঙ্গানার সরকারি বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রে। তবে সে বার মুম্বইয়ে বিপর্যয় এড়ানো না গেলেও এ ক্ষেত্রে সরকারি তৎপরতাতে এড়ানো গেল বিদ্যুৎ বিপর্যয়।

সম্প্রতি তেলঙ্গানার বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রে হানা দেয় চিনা হ্যাকাররা। কিন্তু বিদ্যুৎ সরবরাহ প্রযুক্তিতে ভাইরাস (ম্যালওয়্যার) ঢুকে পড়েছে বলে সোমবার রাজ্য সরকারকে সতর্ক করে দেয় কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রকের অধীনস্থ ‘ইন্ডিয়ান কম্পিউটার এমার্জেন্সি রেসপন্স টিম’। সঙ্গে সঙ্গে হ্যাকারদের আইপি অ্যাড্রেস আটকে করে দেওয়া হয়। বিদ্যুৎ পরিষেবা দফতরের ডিজিটাল লগ ইন আইডি এবং পাসওয়ার্ডও পাল্টে দেওয়া হয় তড়িঘড়ি। অত্যন্ত দ্রুততায় এই সব কাজ করার ফলে বিভ্রাট এড়ানো সম্ভব হয়।

তেলঙ্গানার দুই সরকারি বিদ্যুৎ পরিষেবা কেন্দ্র, টিএস ট্রান্সকো এবং টিএস জেনকো­-র তথ্য চুরি করে সেখানকার ৪০টি সাব স্টেশনের প্রযুক্তিকে চিনা হ্যাকাররা প্রায় কাবু করে ফেলেছিল। রাজ্যের বিদ্যুৎ পরিষেবা বিপর্যস্ত করে দেওয়ার চেষ্টা করছিল তারা। গত বছর অক্টোবরে মুম্বইয়ে বিদ্যুৎ বিভ্রাটের পিছনে চিনা সংস্থা ‘রেডএকো’-র হাত ছিল বলে সম্প্রতি সামনে এসেছে। ওই সংস্থার ছাড়া ভাইরাসই তেলঙ্গানার বিদ্যুৎ পরিষেবা প্রযুক্তিতে ঢুকে পড়েছিল কি না, তা যদিও এখনও পর্যন্ত নিশ্চিত ভাবে জানা যায়নি।

Advertisement

ট্রান্সকো এবং জেনকো-র চেয়ারম্যান তথা ম্যানেজিং ডিরেক্টর ডি প্রভাকর সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘‘কেন্দ্রের তরফে ইমেলে সতর্কবার্তা পেয়েই ৪০টি ভাইরাস সরিয়ে দিই আমরা। নিরাপত্তা আরও বাড়ানো হয়। রাজ্যের যে ৭টি অঞ্চলে বিদ্যুৎ পরিষেবা বিপর্যস্ত করে দেওয়ার চেষ্টা করেছে চিন, তেলঙ্গানা তার মধ্যে অন্যতম।’’

তবে এই প্রথম বার নয়। এর আগে ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে ‘তেলঙ্গানা স্টেট সাদার্ন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড’-এর ওয়েবসাইটেও ক্ষতিকর ভাইরাস ধরা পড়ে। ‘রবিনহুড’ নামের ওই ভাইরাস ছড়িয়েছিলেন যে হ্যাকার, তিনি সেই সময় ৬টি বিটকয়েন দাবি করেছিলেন। তার জেরে ৪ দিন রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় বিদ্যুৎ পরিষেবা ব্যাহত হয়েছিল।

তবে সোমবারের এই ঘটনায় দুশ্চিন্তা দানা বেঁধেছে। কারণ সীমান্ত বিরোধের পাল্টা ভারতের বিদ্যুৎ পরিষেবায় চিনের জাল বিস্তারের বিষয়টিও সম্প্রতি সামনে এসেছে। আমেরিকার সাইবার নিরাপত্তা সংস্থা ‘রেকর্ডেড ফিউচার’ একটি রিপোর্টে জানিয়েছে, লাদাখে রক্তক্ষয়ী সঙ্ঘর্ষ চলাকালীন ২০২০ সালের অক্টোবরে আচমকা অন্ধকারে ডুবে গিয়েছিল দেশের বাণিজ্যনগরী মুম্বই। তার পিছনে চিনা সরকারের মদতপুষ্ট হ্যাকারদেরই হাত ছিল। প্রযুক্তির পক্ষে ক্ষতিকারক ভাইরাস ছড়িয়ে সেখানকার একটি বিদ্যুৎ পরিষেবা কেন্দ্রকে কাবু করে ফেলেছিল তারা। আমেরিকার সংবাদপত্র ‘নিউ ইয়র্ক টাইমস’ সেই নিয়ে একটি প্রতিবেন বেরনোর পর মহারাষ্ট্র সরকারও চিনা সাইবার হানার বিষয়টি মেনে নেয়।

আরও পড়ুন

Advertisement