Advertisement
২৯ নভেম্বর ২০২২
roads

Traffic Police: রাস্তা সারাচ্ছে না পূর্ত দফতর, দুর্ঘটনা রুখতে গর্ত বোজানোর কাজে নামল ট্র্যাফিক পুলিশই!

বাঁশি মুখে রাস্তার মাঝে দাঁড়িয়ে যাঁদের হাতের ইশারায় যানবাহন সামলাতে দেখা যেত, তাঁদেরই রাস্তা সারাইয়ের কাজ করতে দেখে স্তম্ভিত ঠাণেবাসীরা।

সোমবার সকালে রাস্তার গর্ত বোজাইয়ের কাজে ব্যস্ত ট্রাফিক পুলিশ।

সোমবার সকালে রাস্তার গর্ত বোজাইয়ের কাজে ব্যস্ত ট্রাফিক পুলিশ।

সংবাদ সংস্থা
ঠাণে শেষ আপডেট: ১২ জুলাই ২০২২ ১৩:৫৭
Share: Save:

হাতে বেলচা, কোদাল নিয়ে রাস্তার গর্ত বোজাচ্ছিলেন তাঁরা। সকালে রাস্তায় বেরিয়ে এমন ‘বিরল’ দৃশ্য দেখে হতচকিত হয়ে গিয়েছিলেন পথচলতি মানুষ। অনভ্যস্ত চোখ আটকে গিয়েছিল বেলচা, কোদাল হাতে ওই মানুষগুলির দিকে। না, রাস্তা সারাইয়ের কর্মী নন তাঁরা। ট্র্যাফিক পুলিশ। হ্যাঁ, ঠিকই শুনছেন। ওঁরা ট্রাফিক পুলিশের কর্মী।

Advertisement

বাঁশি মুখে রাস্তার মাঝে দাঁড়িয়ে যাঁদের হাতের ইশারায় যানবাহন সামলাতে দেখা যেত সেই ট্র্যাফিক পুলিশকে রাস্তা সারাইয়ের কাজ করতে দেখে স্তম্ভিত ঠাণেবাসীরা। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যখন রাস্তা সারাইয়ে ‘ব্যর্থ’, জনস্বার্থে ট্র্যাফিক পুলিশের কর্মীরা নিজেরাই হাতে তুলে নেন কোদাল, বেলচা। সোমবার এমনই অনভ্যস্ত দৃশ্য দেখা গেল ঠাণের ঘোড়বন্দর রোড এবং ইস্টার্ন এক্সপ্রেসওয়েতে।

বেপরোয়া গাড়ি চালানোর জন্য যেমন দুর্ঘটনা ঘটে, তেমনই আবার খারাপ রাস্তাও অনেক ক্ষেত্রে দুর্ঘটনায় জন্য দায়ী। দুর্ঘটনা রুখতে এবং সাধারণ মানুষকে এই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দিতেই নিজেরা রাস্তার গর্ত বোজাইয়ের কাজে লেগে পড়েন ট্র্যাফিক পুলিশের কর্মীরা। শুধু তাই-ই নয়, খারাপ রাস্তার জন্য বিপুল যানজট হচ্ছিল, যা সামলাতে হিমসিম খেতে হচ্ছিল ট্র্যাফিক পুলিশকে। সময়মতো গন্তব্যে যেতে পারছিলেন না অনেকেই। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জংশন যেমন, মাজিওয়াড়া, কাপুরবাওড়ি, কোপরির মতো এলাকা যানজটে নাজেহাল হয়ে পড়ে রবিবার।

রাস্তার গর্ত বোজাইয়ের কাজ প্রসঙ্গে ট্র্যাফিক পুলিশের এক আধিকারিক বলেন, “রাস্তার গর্ত বোজাইয়ের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আশ্বাস দিলেও গত এক সপ্তাহে কোনও কাজ হয়নি। তাই বাধ্য হয়েই আমরা এই কাজ নিজেদের হাতে তুলে নিয়েছি। যাতে অফিসযাত্রী, স্কুলপড়ুয়াদের নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছাতে কোনও অসুবিধা না হয়। তা ছাড়া দুর্ঘটনা যাতে না ঘটে সেই জন্যও এই কাজ।”

Advertisement

ন্যাশনাল হাইওয়ে অথরিটি অব ইন্ডিয়া-র প্রোজেক্ট ডিরেক্টর এম আতারদে বলেন, “যে সংস্থাকে কাজ দেওয়া হয়েছে তারা পাঁচটি দল গঠন করেছে রাস্তা সারাইয়ের জন্য। যদি সে কাজ ট্র্যাফিক পুলিশকে করতে হয়, তা হলে অবশ্যই এ বিষয়ে তদন্ত করা হবে।”

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.