• সুজাতা মুখোপাধ্যায়
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

লকডাউনে সন্তান বেশি অশান্ত, কথাই শুনছে না? কী ভাবে সামলাবেন তাকে

child
কিছু কৌশলেই ঠেকান সন্তানের দৌরাত্ম্য। ছবি: শাটারস্টক।

সাধারণ অবস্থায় কাজকর্মে ব্যস্ত থাকেন সকলেই। সন্তানও স্কুল, খেলার মাঠ, কোচিং ক্লাস নিয়ে ব্যস্ত। দেখাসাক্ষাৎ হয় কম। যতটুকু হয়, আদরে-বকুনিতেই কেটে যায় বেলা। কিন্ত তাও মায়ের মন ভাবে ঠিকঠাক সময় দেওয়া হল না বুঝি। ফলে লকডাউনের সময় তা সুদে-আসলে উসুল করার চেষ্টা করছেন অনেকে। আর তাতেই হচ্ছে হিতে-বিপরীত। খুশি হওয়ার বদলে বিরক্ত হচ্ছে সন্তান। রাগারাগি করছে। নষ্ট হচ্ছে বাড়ির পরিবেশ।

অখুশি সন্তান

একে তো খেলাধুলা, হইহুল্লোড় বন্ধ করে বাড়িতে বাবা-মায়ের চোখের সামনে বসে থাকতে হচ্ছে দিনরাত, তার উপর অনলাইন ক্লাস ও টাস্কের চাপ। সেখানেও একটু এ দিক থেকে সে দিক হলে বাবা-মায়ের চোখরাঙানি।

এ দিকে নিজের মতো করে সময় কাটানোর কোনও সুযোগ নেই। সময়ে স্নান করতে ও খেতে হবে, ঘুমোতে হবে সময়ে, ফোনে বেশি ক্ষণ গল্প করা যাবে না, এমনকি ধরে বসে খেলতেও হবে নিয়ম মেনে। তার উপর আগে যতটুকু ভালমন্দ খাওয়া হত— সে রেস্তরাঁয় গিয়ে হোক বা বন্ধুদের টিফিনের ভাগ থেকে— এখন সে সবও বন্ধ। চার বেলা ঘরে বানানো স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হচ্ছে। চিপস, কোল্ড ড্রিঙ্ক, পিৎজা যে আনানো যায় না তা নয়। কিন্তু রোগ ঠেকানোর খাতিরে সে সবও ব্রাত্য। অখাদ্য খাবার অপছন্দ হলেও খেতে হবে বাবা-মায়ের আদেশে। ফলে কথায় কথায় বিদ্রোহ করছে সন্তান।

আরও পড়ুন: লকডাউনে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখুন, কী কী করবেন?

তবে সন্তানকে একটু বুঝলে এই সব সমস্যার সমাধান একেবারেই অসম্ভব নয়।  প্রয়োজনে নিজের ব্যবহারে পরিবর্তন আনুন। যেমন—

সমাধান

• যা করবেন, তার বেশ কিছুটা সন্তানের সঙ্গে আলোচনা করে করুন। তার মতামত অগ্রাহ্য করে নিজের মত চাপালে হবে না সব সময়।

• দু’জনে কথা বলে মোটামুটি একটা রুটিন ঠিক করে নিন। কত ক্ষণ সে পড়বে, কত ক্ষণ টিভি দেখবে, কত ক্ষণ গেম খেলবে আর কত ক্ষণই বা আপনার কাজে সাহায্য করবে। একই ভাবে ঘুমতে যাওয়া, সকালে ওঠা, হালকা ব্যায়াম ও কোনও শখের চর্চা কখন কত ক্ষণ ধরে করবে সে, তার একটা রূপরেখা ঠিক করে নিন। খেয়াল রাখুন সে রুটিন কতটা মানছে। অনিয়ম করলে দিনের শেষে মনে করান। এতে অশান্তি কমবে, সে নিজের দায়িত্বও নিতে শিখবে। শিখবে নিয়মানুবর্তিতা। সব সময় বকাবকি করলে যা হওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই নেই।

সন্তান নিয়ম মানলে তাকে আনন্দ দেয় এমন কিছু উপহার দিন বা রেঁধে খাওয়ান।

• রুটিনের ব্যাপারটা যদি নতুন হয় তা হলে প্রথমে উৎসাহ ভরে রাজি হলেও পরে ঢিলেমি করবে সন্তান। ধৈর্য ধরুন। বকাঝকা না করে নিয়মিত মনে করিয়ে যান। একটা সময় ধাতে চলে আসবে।

• যে দিন পুরো নিয়ম মানবে বা অনিয়ম কম করবে, সে দিন ওর পছন্দের কোনও খাবার বানিয়ে খাওয়াতে পারেন। বা পছন্দের কোনও গেম বা শো আধ ঘণ্টা বেশি খেলার বা দেখার সুযোগ দিতে পারেন। এটা যে তার নিয়ম মানার পুরষ্কার তা ভাল করে বুঝিয়ে দেবেন। অর্থাৎ সে যেন বোঝে নিয়ম মানলে পুরষ্কার ও না মানলে তিরষ্কার পাওয়াটাই নিয়ম।

আরও পড়ুন: সংক্রমণের পরিস্থিতিতে হলুদ মেশানো দুধ নেই খাদ্যতালিকায়? অজান্তেই কী কী ক্ষতি হচ্ছে জানেন!

• তার কোনও বিশেষ দাবিদাওয়া থাকলে আগেই তা নস্যাৎ করে না দিয়ে মন দিয়ে শুনুন সে কী বলতে চায়। ভেবে দেখুন, তাতে তার কোনও ক্ষতি হবে কি না। না হলে ১০টার মধ্যে ৫-৭টা মেনে নিন। তা হলে যেগুলি মানলেন না তা নিয়ে তার অভিযোগ থাকবে না।

• অন্যের সঙ্গে তুলনা করবেন না। তারই কোনও বন্ধু বা পড়শি কত ভাল করে পড়ছে বা ঘরের কাজে সাহায্য করছে আর সে কিছু করছে না, এ সব বলে লাভ তো কিছু হবেই না, বরং অশান্তি বাড়বে।

শেষ কথা

আপনি হয়তো ভাবেন, আপনি টেনশনে আছেন আর সন্তান আছে দিব্যি। তা কিন্তু নয়। সেও নানা উদ্বেগে আছে। কবে স্কুল খুলবে, কবে বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে দেখা হবে, কবে বন্দি দশা ঘুচবে ইত্যাদি নিয়ে তারও মনে খুব অশান্তি। কাজেই সারা ক্ষণ শাসন করে তার ঘরে থাকাটা অসহনীয় করে তুলবেন না। বাড়িতে সে যেন নিয়মও মানে আবার আনন্দেও থাকে সেই ভারসাম্য দু’জনকেই বজায় রেখে চলতে হবে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন