অন্দরসজ্জার ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখা যায়, ঘর সাজানোর নানা উপাদানের মধ্যে কার্পেটের ব্যবহার বেশ পুরনো। ইতিহাস সাক্ষী— ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্য এবং তার পর ভারতবর্ষ। কার্পেটের ব্যবহার কয়েকশো বছরের পুরনো। ইরানে কার্পেটের ব্যবহার আড়াই হাজার বছরেরও আগে থেকে চলছে। ভারতবর্ষে আকবর প্রথম কার্পেটের কারখানা তৈরি করেছিলেন।

কার্পেটের ব্যবহার সময়কে হার মানিয়েও জনপ্রিয়। এখনও কোনও রাজসিক অন্দরসজ্জায় কার্পেট পেতে দেওয়া হয়। একসময় এমন একটা ব্যপার ছিল যে কার্পেট শুধুমাত্র রাজরাজারা, কিংবা জমিদার শ্রেনি ব্যবহার করতে পারতেন। কারণ তা সৌখিনতায় এবং মূল্যে মধ্যবিত্তর ধরাছোঁয়ার বাইরেই ছিল বহু কাল।

সামনে শীতের সময়। হালকা হালকা ঠান্ডা পড়তে শুরু করে দিয়েছে। খালি পায়ে মেঝেতে না হেঁটে একটা হাওয়াই চটি পড়ে থাকলে আরাম হয়। মার্বেলের মেঝে হলে তো শীতকালে কথাই নেই।

আরও পড়ুন: এ বার বাড়িতে বসেই পাবেন সিনেমা হলের আমেজ!​

সুতরাং শীতের ঘরের মেঝেতে কার্পেট বিছিয়ে দেওয়া যেতে পারে। মেঝেতে কার্পেট দিলে ঘরে বেশ কিছুটা গরম অনুভুত হয়। মেঝের ঠান্ডা সরাসরি পায়ে লাগে না। কার্পেট থাকলে সব সময় ঘরে স্লিপার পরেও থাকার দরকার নেই। সোফায় আরামে বসে আছেন, কিন্তু মেঝেতে পা রাখতে পারছেন না মেঝের ঠান্ডার জন্য, কার্পেট থাকলে তেমনটা হওয়ার কথা নয়। ড্রইং রুমে যখন কার্পেট পাতবেন, কার্পেটটা যেন এমন ভাবে পাতা থাকে, যাতে সোফায় বসে পা কার্পেটের উপরে থাকে। পুরো ঘরে না পাতলেও চলবে।

শোওয়ার ঘরে কার্পেট পাতার জায়গা প্রায় থাকে না বললেই চলে। তবুও খাট থেকে নামার পর যেখানে পা  রাখবেন,সেখানকার মেঝেতে ছোট একটা কার্পেট পেতে রাখবেন, যাতে মেঝের ঠান্ডাটা সরাসরি পায়ে না লাগে।

তবে কার্পেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু কথা মনে রাখবেন। বাথরুমে কিংবা রান্নাঘরের আশপাশে, মানে ভিজে পায়ে বেড়িয়েই পা দিতে হয়, এমন জায়গায় কার্পেট রাখবেন না একেবেরেই। কারণ জোলো হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। পুরো ঘরটা জুড়ে ওয়াল টু ওয়াল কার্পেট বাড়িতে না লাগানোই ভাল। কারণ ফিক্সড কার্পেট হলে বার বার সরিয়ে ধুলো পরিস্কার করা নিতান্তই সমস্যার। ভ্যাকিউম ক্লিনারটা নিয়মিত ব্যাবহার করবেন কার্পাটের ভিতরে জমে থাকা নোংরা পরিস্কার করতে।

আরও পড়ুন: বদলে ফেলুন চেনা বাথরুম​

কার্পেটে ধুলো জমা একটা সমস্যা। বাড়ির কারও যদি শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা থাকে, তা হলে কার্পেটের ধুলোয় সমস্যা হতে পারে। আর শীতের সময় তো এ ধরনের সমস্যা একটু বেশিই হয়। তাই শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা থাকলে কার্পেটের ব্যবহার না করাই ভাল। করলেও নিয়মিত কার্পেট পরিস্কার রাখবেন।

আজকের দিনে খুব বড় কিংবা ওয়াল টু ওয়াল মাপের কার্পেট একটু পুরনো ধারণা। তার চেয়ে কার্পেট ব্যবহার করলে ছোট ছোট মাপের কার্পেট বিশেষ কিছু জায়গায় ব্যবহার করাই ভাল।