Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৮ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

লাইফস্টাইল

ফেলে ছড়িয়ে খান? এই ভাবে বদলে ফেলতে পারেন বদভ্যাস

নিজস্ব প্রতিবেদন
১৫ অগস্ট ২০১৮ ১২:১৩
প্রতি বছর দেশ গড়ার রাশি রাশি শপথে ভেসে যায় স্বাধীনতা দিবস। কিন্তু এর দায়িত্ব কি শুধুই সরকারের? আমরাও যদি আমাদের ছোটখাটো অভ্যাস বদলাই, তা হলেও কিন্তু দেশের সম্পদ বাঁচে। যেমন ধরুন, খাবার নষ্ট না করা। কবেই কবীর সুমন গেয়েছেন, ‘কেউ যদি বেশি খাও, খাবার হিসেব নাও/কেননা অনেক লোক ভাল খায় না’। ছবি: শাটারস্টক।

কিন্তু সে আর মানি কই আমরা! বরং দিন দিন রান্না হওয়া অতিরিক্ত খাবার নষ্ট করছি রোজ। রেস্তরাঁ হোক বা বাড়ি, প্রতি দিনই ফেলা যায় বিপুল খাবার। এ দিকে অনাহারে বা একবেলা খেয়ে দিন গুজরান করছেন অসংখ্য বুভুক্ষু। তাই আজ থেকেই শপথ নিন খাবার নষ্ট না করার। কিছু সহজ উপায় মানলেই তা সম্ভব। দেখে নিন কী কী। ছবি: শাটারস্টক।
Advertisement
প্রথমেই রান্নার একটি তালিকা বানিয়ে নিন। যে পদই রান্না করুন না কেন, ঠিক যতটুকু প্রয়োজন ও যতটা খাওয়া সম্ভব, ততটুকুই রান্না করুন। ফ্রিজে খাবার জমিয়ে রাখতে চাইলেও নিশ্চিত করুন যে সেই খাবার শেষ হবেই। মোটেই ফেলা যাবে না। ছবি: শাটারস্টক।

রেস্তরাঁয় অর্ডারের সময়ও খেয়াল রাখুন যেন অর্ডার করা পদের পুরোটা খেতে পারেন। না পারলে বাড়িতে প্যাক করে আনুন বাড়তি অংশ। পরে খিদে পেলে তা খেয়ে নিন। এতে খাবার নষ্টের ঝঞ্ঝাট যেমন মিটবে, তেমন ফের রান্না করা থেকেও বিরাম মিলতে পারে। ছবি: শাটারস্টক।
Advertisement
যদি প্রায়ই বাড়িতে রান্না হওয়া খাবার ফেলা যায়, তা হলে আগেই নজর দিন ঠিক কী কী খাবার মূলত নষ্ট হয়। পরবর্তীতে রান্নার সময় রাশ টানুন সে সবে। শরীরের জন্য খুব প্রয়োজনীয় নয় এমন কোনও খাবার যদি বাড়ির সদস্যরা খেতে অপছন্দ করেন, তা হলে রান্নার তালিকা থেকেও বাদ দিতে পারেন তা। ছবি: শাটারস্টক।

এক এক রেস্তরাঁয় খাবারের পরিমাণ এক এক রকম। তাই যখন অজানা কোনও রেস্তরাঁয় খাবারের অর্ডার করছেন, তখন অনেকেই তার পরিমাণ বুঝতে পারেন না। এ ক্ষেত্রে দু’জন খেতে গেলে এক প্লেট করেই অর্ডার করুন সব পদ। খাবার পৌঁছলে তার পরিমাণ বুঝে অর্ডার করুন অতিরিক্ত প্লেট। ছবি: আনস্প্ল্যাশ।

অনেক সময় দেখা যায়, বাড়িতে বিশেষ কোনও পদ রান্না হলে সাধারণ পদগুলি সে ভাবে খাওয়া হয়ে ওঠে না। তেমন হলে, বিশেষ পদ রান্নার দিন আনুষাঙ্গিক সাধারণ রান্নাগুলির পরিমাণ কমান। রান্না করলেও কিছু বিশেষ হাতযশে সেগুলিকেও করে তুলুন স্বাদু, যাতে তা-ও খেয়ে নেন সকলেই। ছবি: আনস্প্ল্যাশ।

বেঁচে যাওয়া খাবার দান করার অভ্যাস ভাল। কিছু রেস্তরাঁও এ পথ ধরে খাবার দান করে পথশিশু ও দরিদ্রদের। তবে, এ ক্ষেত্রে পারলে খাবার এঁটো করার আগেই সরিয়ে রাখুন। কতটুকু খাওয়া সম্ভব— সেই পরিমাণ চোখের আন্দাজেই বোঝা যায় কিন্তু! এতে যাঁকে খেতে দিচ্ছেন তাঁর ভাগ্যেও এঁটো নাড়াঘাটা করা খাবার জুটবে না। ছবি: শাটারস্টক।