বিজেপির হাত থেকে ‘রক্ষা করতে’ বেঙ্গালুরুর এক রিসর্টে বিধায়কদের রেখেছে কংগ্রেস। এ বার সেই রিসর্টেই দুই কংগ্রেস বিধায়কের মধ্যে মারামারির অভিযোগ নিয়ে অস্বস্তিতে পড়ল তারা। বিষয়টি নিয়ে টুইট করে কংগ্রেসের অস্বস্তি বাড়িয়েছে বিজেপি।

সম্প্রতি কংগ্রেস দাবি করে, দল ভাঙিয়ে কর্নাটকে গদি দখলের চেষ্টা করছে বিজেপি। তাই কংগ্রেস বিধায়কদের বেঙ্গালুরুর একটি রিসর্টে রাখা হয়। চার জন বিধায়ক প্রথমে রিসর্টে ও পরে দলের পরিষদীয় দলের বৈঠকে হাজির ছিলেন না। তাঁদের মধ্যে দু’জন অনুপস্থিতির কারণ ব্যাখ্যা করেছেন। বাকি দু’জনকে কারণ দর্শানোর নোটিস পাঠিয়েছে দল।

এরই মধ্যে আজ বেঙ্গালুরুর এক হাসপাতালে ভর্তি হন বিধায়ক আনন্দ সিংহ। তাঁকে দেখতে যান কংগ্রেসের অনেক নেতা। অভিযোগ ওঠে, আর এক কংগ্রেস বিধায়ক জি এন গণেশ আনন্দ সিংহের মাথায় বোতল দিয়ে আঘাত করেছেন। 

বিজেপি এক টুইটে দাবি করে, ‘‘কংগ্রেসের অন্দরে যে সব ঠিক নেই তার আর কোনও প্রমাণের প্রয়োজন আছে কি? কংগ্রেস বিধায়কদের মধ্যে মারামারির জেরে এক বিধায়ক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। কোনও দল খোঁড়া হয়ে গেলে অন্যকে দোষারোপ করতে শুরু করে।’’ কং‌গ্রেস নেতৃত্ব অবশ্য এই দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন। প্রবীণ নেতা ডি কে শিবকুমার ও তাঁর ভাই ডি কে সুরেশ বলেন, ‘‘আনন্দ সিংহের বুকে ব্যথা হয়েছে। তাই তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।’’ 

এরই মধ্যে অন্য একটি  বিষয় নিয়েও অস্বস্তিতে পড়েছে কংগ্রেস। বিজেপি একটি টুইটে দাবি করে, ক‌ংগ্রেস নেতা ও প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়াকে একটি দে়ড় কোটি টাকা দামের মার্সিডিজ গাড়ি উপহার দিয়েছেন বিধায়ক বৈরথী সুরেশ। বিধানসভা ভোটের আগে ৮০ লক্ষ টাকা দামের একটি ঘড়ি নিয়ে বিতর্কে জড়়িয়েছিলেন সিদ্দারামাইয়া। এ নিয়ে ইডি-রও দ্বারস্থ হয়েছিল বিজেপি। 

আজ ফের সেই প্রসঙ্গ টেনে বিজেপির তরফে এক টুইটে বলা হয়, ‘‘বৈরথী সুরেশ সিদ্দারামাইয়াকে দেড়় কোটি টাকা দামের মার্সিডিজ উপহার দিয়েছেন। আগেই ২ লক্ষ টাকার চশমা আর ৮০ লক্ষ টাকার ঘড়ি ব্যবহার করতেন সিদ্দারামাইয়া। মনে হয় সিদ্দারামাইয়া ১০ শতাংশ ঘুষ নেওয়ার সরকার চালিয়ে অনেক টাকা উপার্জন করেছেন।’’ কংগ্রেস নেতা শিবকুমারের দাবি, ‘‘এমন কোনও উপহারের আনুষ্ঠানিক রেকর্ড নেই। দলের নেতারা অনেক সময়েই একে অপরের গাড়ি ব্যবহার করেন। এটা তেমনই একটা ঘটনা।’’ বৈরথী সুরেশ জানিয়েছেন, ওই গাড়িটি তাঁর স্ত্রীর নামে নথিভুক্ত।