ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের উৎসাহ দিতে পণ্য ও পরিষেবা কর (জিএসটি)-এ ছাড়ের সীমা দ্বিগুণ করা হল। বছরে তার পরিমাণ ২০ লক্ষ টাকা থেকে বেড়ে হল ৪০ লক্ষ টাকা। আর উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলির ক্ষেত্রে তা দ্বিগুণ হয়ে দাঁড়াল ২০ লক্ষ টাকায়। আগামী ১ এপ্রিল থেকেই তা কার্যকর হবে।

কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির এই ঘোষণাকে অবশ্য লোকসভা ভোটের আগে একটি ‘মোক্ষম চাল’ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

বৃহস্পতিবার দিল্লিতে জিএসটি কাউন্সিলের বৈঠকের পর কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘‘ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ত্রৈমাসিক পর্যায়ে কর মেটানোর পাশাপাশি এ বার বছরের শেষে, এক বারই আয়কর রিটার্ন জমা দিতে পারবেন।’’

আরও পড়ুন- ধাপ ছেঁটে কর সরলের বার্তা​

আরও পড়ুন- ৩৭০০ কোটি টার্মিনালে, আশা শেলেও​

যে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা এত দিন বছরে এক কোটি টাকার টার্ন ওভার থাকলেই জিএসটির অধীনে থাকা ‘কম্পোজিশন প্রকল্পে’র ছাড়ের সুবিধা পেতেন, এ বার বছরে দেড় কোটি টাকা টার্ন ওভার থাকলেও তাঁরা সেই সুবিধা পাবেন। যাঁরা পরিষেবা ও সরবরাহের সঙ্গে জড়িত, সেই ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের বছরে ৫০ লক্ষ টাকার টার্ন ওভার থাকলেও তাঁরা কম্পোজিশন প্রকল্পের সুবিধা পাবেন।

জেটলি অবশ্য এও জানিয়েছেন, তবে সেই ছাড়ের ঊর্দ্ধসীমা ২০ লক্ষ টাকা রাখা হবে নাকি তা বাড়িয়ে ৪০ লক্ষ টাকা করা হবে, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা থাকবে রাজ্য়গুলির হাতেই।

তবে রিয়েল এস্টেট ব্যবসার ক্ষেত্রে জিএসটির কর-হার কী হবে, তা চূড়ান্ত করতে একটি বিশেষ কমিটি গড়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।