সমাজবাদী পার্টিতে যোগ দিলেন শত্রুঘ্ন জায়া পুনম, লড়বেন রাজনাথের বিরুদ্ধে
উত্তরপ্রদেশে মায়া-অখিলেশের ভোটে ভাগ বসানো তাদের লক্ষ্য নয় বলে আগেই জানিয়ে দিয়েছে কংগ্রেস। এখনও পর্যন্ত লখনউ থেকে কাউকে প্রার্থী ঘোষণা করেনি তারা।
punam sinha

ডিম্পল যাদবের সঙ্গে পুনম সিনহা। ছবি: টুইটার থেকে সংগৃহীত।

বিজেপি ছেড়ে সদ্য কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন শত্রুঘ্ন সিনহা। তাঁর স্ত্রী পুনম সিনহা এ বার গেলেন সমাজবাদী পার্টিতে। মঙ্গলবার লখনউতে অখিলেশ যাদবের স্ত্রী তথা সাংসদ ডিম্পল যাদবের উপস্থিতিতে দলে যোগ দিলেন তিনি। এ বছর উত্তরপ্রদেশে জোট গড়েছেন অখিলেশ যাদব ও মায়াবতী। সেই মহাজোটের হয়ে লখনউ থেকে পুনম সিন্‌হাকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহের বিরুদ্ধে দাঁড় করানো হবে বলে এসপি সূত্রে জানা গিয়েছে। চলতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার তিনি মনোনয়ন জমা দেবেন।

উত্তরপ্রদেশে মায়া-অখিলেশের ভোটে ভাগ বসানো তাদের লক্ষ্য নয় বলে আগেই জানিয়ে দিয়েছে কংগ্রেস। এখনও পর্যন্ত লখনউ থেকে কাউকে প্রার্থী ঘোষণা করেনি তারা। দলের নেতা জিতিন প্রসাদ লখনউ থেকে দাঁড়ানোর ইচ্ছা প্রকাশ করলেও,  নিজের কেন্দ্র দৌরাহাতেই ফিরে যান শেষমেশ। তাই আপাতত লড়াইটা রাজনাথ বনাম পুনম হবে বলেই জল্পনা রাজনৈতিক মহলে। লখনউতে কংগ্রেসকে প্রার্থী না দিতে ইতিমধ্যে অনুরোধও জানিয়েছেন এসপি নেতা রবিদাস মেহরোত্র। তিনি বলেন, “এসপি-বিএসপি-আরএলডি-র হয়ে লখনউ থেকে দাঁড়াবেন পুনম সিনহাজি। ১৮ এপ্রিল মনোনয়ন জমা দেবেন তিনি। কংগ্রেসের কাছে আমাদের অনুরোধ, এখানে প্রার্থী দাঁড় করাবেন না আপনারা। তাহলেই বিজেপিকে হারানো যাবে।”

 উত্তরপ্রদেশের রাজধানী লখনউ কেন্দ্রটি সব দলের কাছেই গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে মোট ভোটারের চার লক্ষ কায়স্থ। মুসলিম সাড়ে তিন লক্ষ। আর সিন্ধি ভোটারের সংখ্যা এক লক্ষ তিরিশ হাজার। তাই ভেবেচিন্তেই জন্মসূত্রে সিন্ধি ও বিবাহসূত্রে কায়স্থ পুনম সিনহাকে এসপি সেখানে প্রার্থী করেছে বলে অভিমত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। সেই সঙ্গে রাজনাথ সিংহের বিরুদ্ধে লড়াইটা খুব একটা সহজ হবে না বলেও দাবি তাঁদের।

সমাজবাদী পার্টির টুইট।

আরও পড়ুন: টাকা দিয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করার চেষ্টা! ভেলোরে নির্বাচন বাতিলের সুপারিশ কমিশনের​

আরও পড়ুন: মাটিতে পা পড়ছে না মোদী-শাহের, ভোটের লড়াই এখন মাঝ আকাশেও​

তবে সেই নিয়ে প্রশ্ন করলে পুনম সিনহা বলেন, “সমস্যা নেই। লড়াইয়ে নামতে প্রস্তুত আমি।” তাঁকে নিয়ে দুশ্চিন্তা প্রকাশ করতে দেখা যায়নি রাজনাথ সিংহকেও। তাঁর কথায়, “কাউকে না কাউকে তো ল়ড়তেই হবে। গণতন্ত্রের এমনটাই রীতি। মর্যাদার সঙ্গে নির্বাচন লড়ব আমরা।”

২০১৪-র নির্বাচনে লখনউয়ে মোট ১০ লক্ষ ৬ হাজার ৪৮৩ ভোট পড়েছিল, যার মধ্যে ৫৫.৭ শতাংশই জিতেছিলেন রাজনাথ।  আগামী ৬ মে, পঞ্চম দফায় লখনউয়ে নির্বাচন।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত