বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পর ১৯৯২-এর ৬ ডিসেম্বর রাতেই উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছিলেন কল্যণ সিংহ। ব্যক্তিগত ভাবে ওই ঘটনার ‘নৈতিক দায় স্বীকার’ করে। অযোধ্যার বিতর্কিত জমি মামলার রায়ের পরে এখন তাঁর প্রতিক্রিয়া, ‘‘আইন-শঙ্খলার অবনতির দায় স্বীকার সে দিন আমি দাম দিয়েছিলাম।’’ সঙ্গে এ-ও উল্লেখ করেছেন, ‘‘আমিও রামভক্ত। চাই ওখানে ভব্য রামমন্দির হোক।’’

মাঝে বিজেপি ছেড়ে বেরিয়ে গেলেও রাজস্থানের রাজ্যপাল পদে তাঁর মেয়াদ শেষ হওয়ার পরে ফের বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন কল্যাণ। রাম মন্দিরের জন্য জমি নিশ্চিত হওয়ার পরে তিনি নিজের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে ফের প্রসঙ্গিক থাকতে চাইছেন। তবে বাবরি ধ্বংসের ঘটনা অবৈধ কাজ বলে রায়ে উল্লেখ করেছে সুপ্রিম কোর্ট। এবং তা নিয়ে মামলা চলছে। লালকৃষ্ণ আডবাণী, মুরলীমনোহর জোশী, উমা ভারতীর মতো কল্যাণও অন্যতম অভিযুক্ত। অভিযোগ, বাবরি ধ্বংসের ষড়যন্ত্রে যুক্ত থাকার। রায়কে স্বাগত জানিয়ে এই নেতা সোমবার ফের রামের সঙ্গে রুটিকে জোড়ার কথা বলেছেন। কল্যাণের মতে, রামমন্দির নির্মাণ, ও যোগী অদিত্যনাথের প্রস্তাবিত পথে এগিয়ে অযোধ্যা দেশের সবচেয়ে বিখ্যাত তীর্থস্থানে পরিণত হবে। বহু মানুষের রুটি-রুজির সংস্থান হবে। জানালেন, এ বার অযোধ্যায় যাবেন। কবে? দিন ঠিক করেননি।