বিদেশে বেআইনি সম্পত্তি রাখার মামলায় গ্রেফতারির চাপের মধ্যে স্বামী রবার্টের পাশে দাঁড়ালেন প্রিয়ঙ্কা গাঁধী বঢরা। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নোটিস পাওয়ার পরে আজ দিল্লিতে ইডির দফতরে হাজির হন রবার্ট। তাঁকে সেখানে পৌঁছে দিয়ে যান প্রিয়ঙ্কা। তার আগে অবশ্য তাঁর বিরুদ্ধে ভুয়ো মামলার অভিযোগ এনে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হন গাঁধী পরিবারের জামাই। 

সকালে ফেসবুকে রবার্ট লিখেছেন, ‘‘আজ পর্যন্ত ১১ বার আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। কেটে গিয়েছে ৭০ ঘণ্টা। তবে ভবিষ্যতেও তদন্তকারী সংস্থার সঙ্গে একই ভাবে সহযোগিতা করব, যত ক্ষণ না পর্যন্ত সব মিথ্যে অভিযোগ থেকে আমি মুক্ত না হই।’’ ওই পোস্টেই রবার্টের পিছনে জওহরলাল নেহরুর ছবি দেখা যাচ্ছিল।  

লন্ডন, দুবাই ছাড়াও রাজস্থান এবং দিল্লি সংলগ্ন এলাকায় সম্পত্তি কেনার বিষয় নিয়ে রবার্টকে আজ জেরা করেছে ইডি। তদন্তকারীদের অভিযোগ, নামে বেনামে লন্ডনে নয়টি সম্পত্তি কিনেছেন রবার্ট। এর মধ্যে তিনটি বাংলো বাড়ি, বাকিগুলি বিলাস বহুল ফ্ল্যাট। যার আনুমানিক মূল্য ১ কোটি ২০ লক্ষ পাউন্ড। ২০০৫ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে, ইউপিএ সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন রবার্ট এগুলি কিনেছিলেন। ইডি সূত্রের খবর, রবার্টের বেনামি সম্পত্তি নিয়ে আরও কিছু নতুন তথ্য মেলায় তাঁকে আজ ফের ডেকে পাঠানো হয়। তদন্তকারীদের দাবি, জেরার সময়ে রবার্ট সহযোগিতা করছেন না। তবে গাঁধী পরিবারের জামাই আজ বলেন, ‘‘আমি মনে করি, দেশের বিচারব্যবস্থা দৃঢ় ভাবে প্রতিষ্ঠিত। তদন্তকারীদের সমন ও তাদের কাজে আমি পুরোপুরি সহযোগিতা করায় বিশ্বাসী।’’