ফের একবার পশুদের উপর অত্যাচারের ছবি ধরা পড়ল ক্যামেরায়। তামিলনাড়ুতে তিনটি হাতিকে বেঁধে নির্মমভাবে আঘাত করার ভিডিয়ো ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা দেখে ক্ষোভ উগরে দেন নেটিজেনরা। ক্ষোভের আরও বড় কারণ,এ ক্ষেত্রে রক্ষকই ভক্ষকের ভূমিকায়। যাঁরা হাতিদের উপর অত্যাচার চালাচ্ছেন তাঁরা বন দফতরের কর্মী। হাতিগুলিতে মাদ্রাজহাইকোর্টের নির্দেশে অন্য জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।

মোবাইলে তোলা ভিডিয়োটি ২৭ সেপ্টেম্বর সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড হয়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, একটি হাতিকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা হচ্ছে। কিন্তু হাতিটি সেখান থেকে নড়তে চাইছে না। তাই সেটিকে সরানোর জন্য লোহার রড দিয়ে মারা হচ্ছে, খোঁচানো হচ্ছে।

এই ভিডিয়োটি তামিলনাড়ুর কাঞ্চিমুট এলাকার। হাতিগুলিকে যখন বন কর্মীর মারছেন, তখন সেখানে কয়েকজন পুলিশ কর্মীকেও উপস্থিত থাকতে দেখা গিয়েছে। সবার সামনেই চলছে হাতিদের উপর অত্যাচার। কিন্তু কারও মধ্যে কোনও হেলদোল দেখা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন : লাইভ চলাকালীন সাংবাদিককে চুমু খেয়ে শাস্তির মুখে এক ব্যক্তি

হাতিগুলি এই এলাকায় একটি জঙ্গলে গত তিন বছর ধরে ছিল। মাদ্রাজ হাইকোর্ট নির্দেশে সেগুলিকে তিরুচিরাপল্লিতেসরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তার জন্য হাতিগুলিকে জঙ্গল থেকে ট্রাকে তুলে নিয়ে যাওয়া চেষ্টা হচ্ছিল। কিন্তু হাতিগুলি যেতে চাইছিল না। তাই তাদের রড দিয়ে মারার পাশাপাশি দড়ি দিয়ে বেঁধে টানাটানি করে ট্রাকে তোলার ছবিও ধরা পড়েছে।

আরও পড়ুন : গোপন ক্যামেরায় স্বামীর বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক ধরতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেলেন মহিলা

যদিও বন দফতর হাতিগুলিকে মারার অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তাদের দাবি, হাতিগুলিকে স্থানান্তরিত করার জন্য প্রশিক্ষিতকর্মীদের ডাকা হয়েছিল। যদিও পশুপ্রেমীরা বন দফতরের তীব্র সমালোচনা করেছেন।