• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

দেশ

নতুন ট্রেন্ড ‘বয়কট চায়না অ্যাপ’, বিকল্প নিয়ে কী বলছেন সাইবার বিশেষজ্ঞরা?

শেয়ার করুন
১৬ A1
একের পর এক চিনা অ্যাপ আনইনস্টল, এখন ভারতীয়দের মধ্যে নতুন ট্রেন্ড। প্রথমে চিন থেকে গোটা বিশ্বে করোনা ছড়িয়ে পড়ার অভিযোগ, পরে সীমান্তে উত্তেজনা, সব মিলিয়ে চিনের বিরুদ্ধে চাপা রাগে ফুঁসছেন ভারতীয়রা। এই পরিস্থিতিতে চিনের বিভিন্ন কম্পানির তৈরি একের পর এক জনপ্রিয় অ্যাপ ডিলিট করে শিক্ষা দিতে চাইছেন ভারতীয় নেটাগরিকরা।
১৬ A2
সীমান্ত নিয়ে উত্তেজনার পর প্রথমে শিক্ষাবিদ সোনম ওয়াংচুক চিনের অ্যাপ ডিলিট করার কথা বলেন। সেই আন্দোলনে আরও হাওয়া দিয়ে দেন যোগগুরু রামদেব। যিনি আগেও বিদেশি দ্রব্য বয়কটের কথা বলেছিলেন। সম্প্রতি তিনি টুইটারে একটি ভিডিয়ো শেয়ার করেছেন। যেখানে দেখা যাচ্ছে এক ইউজার তাঁর মোবাইল থেকে একের পর এক চিনা অ্যাপ ডিলিট করছেন। সব মিলিয়ে দেশে চিনা কম্পানিগুলির বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করে ড্রাগনের দেশকে শিক্ষা দিতে চাইছেন নেটাগরিকদের কেউ কেউ।
১৬ A3
চিনের কম্পানিগুলির তৈরি একের পর এক অ্যাপ জনপ্রিয়তা বাড়ছিল ভারতে। তবে অনেকেই ভাবছেন এই অ্যাপগুলি ডিলিট করলে বিকল্প কী ব্যবহার করবেন। টিকটক, শেয়ারইট-এর মতো কিছু অ্যাপ অনেকে ডিলিট করতে চাইলেও বুঝতে পারছেন না বিকল্প কী রয়েছে তাঁদের হাতে। তাঁদের জন্য তুলে ধরা হল এই তালিকা।
১৬ A4
চিনের তৈরি যে অ্যাপটি এই মুহূর্তে ভারতীয়দের মধ্যে সব থেকে জনপ্রিয় সেটি হল টিকটক। এই তালিকায় আছে হ্যালো -র মতো ভিডিয়ো এডিটিং-শেয়ারিং অ্যাপও। এই অ্যাপগুলি থেকে নাকি চিনা কম্পানিগুলি প্রচুর টাকা আয় করে। তবে এগুলি না ব্যবহার করে এর মতো বা অনেক ক্ষেত্রে এর থেকে ভাল প্ল্যাটফর্মও রয়েছে। টিকটক, হ্যালোর মতোই কাজ করে ভারতীয় অ্যাপ, শেয়ার চ্যাট। এছাড়াও ভিডিয়ো শেয়ার করার জন্য ইউটিউব, ইনস্টাগ্রা-এর মতো অ্যাপ তো রয়েইছে।
১৬ A5
টিকটকের বদলে মিত্রোঁ অ্যাপের হয়ে অনেকে সওয়াল করেন। একটি রিপোর্ট দাবি করা হয়েছে, মিত্রোঁ অ্যাপটি পাকিস্তানের এক কম্পানি তৈরি করে। পরে যারা এক ভারতীয় কম্পানিকে মাত্র আড়াই হাজার টাকায় বিক্রি করে দেয়। এই অ্যাপে তথ্য নিরাপত্তা নিয়েও কিছু প্রশ্ন আছে।
১৬ A6
চিনা অ্যাপের তালিকায় সব থেকে পরিচতিদের মধ্যে অন্যতম হল শেয়ারইট এবং জেন্ডার। এই অ্যাপগুলিতে মূলত মোবাইল থেকে মোবাইলে বা কম্পিউটারে ছবি, ভিডিয়ো বা অন্যান্য ডেটা লেনদেন করা হয়। এর বদলে আপনি আপনার ফোনে ডাউনলোড করতে পারেন, জিও সুইচ (ভারতীয়), শেয়ার অল (ভারতীয়), ফাইলস বাই গুগল (মার্কিন) অ্যাপ। এই অ্যাপগুলিও একই ভাবে কাজ করে। ফাইলস বাই গুগলে আবার ডেটা স্টোরেজ, স্টোরেজ ক্লিনআপ বা কম্প্রেস-এর মতো সুবিধাও পাওয়া যায়
১৬ A7
আর একটি চিনা অ্যাপ ক্যামস্ক্যানার। এই অ্যাপের মাধ্যমে মোবাইলের ক্যামেরার মাধ্যমেই ছবি, ডকুমেন্ট স্ক্যান ফর্ম্যাটে নিয়ে আসা যায়। এটি চিনের সাংহাইয়ের একটি কম্পানির তৈরি অ্যাপ। এই অ্যাপ নিয়ে কিছু সমস্যার কথা উল্লেখ করে রাশিয়ার অন্যান্টিভাইরাস প্রস্তুতকারক কম্পানি ক্যাসপারস্কাই। তারপর গুগল প্লেস্টোর থেকে এই অ্যাপ সরিয়েও দেওয়া হয়। পরে ত্রুটি সংশোধন করে ফিরে আসে ক্যামস্ক্যানার। এই চিনা অ্যাপের বদলেও, ডক স্ক্যানার (ভারতীয়), অ্যাডব স্ক্যান (মার্কিন), মাইক্রোসফট লেন্স (মার্কিন)-এর মতো বিকল্প রয়েছে।
১৬ A8
অনেকেই ইউসি ব্রাইজার-এর মতো চিনা ব্রাউজার ব্যবহার করেন। তবে এর থেকেও অনেক জনপ্রিয় বিকল্প রয়েছে। যেমন, গুগল ক্রোম (মার্কিন), মোজিলা ফায়ারফক্স (মার্কিন) বা জিও ব্রাইজার (ভারতীয়)। ইউসি ব্রাইজার বা ইউসি ব্রাউজার লাইট প্রচুর মানুষ প্রথমে ব্যবহার করলেও পরে তা নানান কারণে আনইনস্টল করে দেন।
১৬ A9
ক্লাব ফ্ল্যাক্টরি শপিং অ্যাপ এমনিতেই ভারতে খুব একটা জনপ্রিয়তা পায়নি। তার উপর এর পরিষেবা নিয়েও বিস্তর অভিযোগ সামনে এসেছে বার বার। তাই অনলাইন শপিং যদি করতেই হয় তার জন্য ফ্লিপকার্ট, টাটা ক্লিক-এর মতো ভারতীয় অ্যাপের পাশাপাশি মার্কিন কম্পানির অ্যামাজনের মতো অ্যাপ রাখতে পারেন নিজের ফোনে।
১০১৬ A10
প্যারালাল স্পেস-এর মতো অ্যাপ একটি ফোনে একই অ্যাপের দু’টি অ্যাকাউন্ট রাখতে সাহায্য করে। যেমন একটি ফোনে দু’টি নম্বরের দু’টি হোয়াটসঅ্যাপ রাখা যাবে। প্যারালাল স্পেসের মতো চিনা অ্যাপ আনইনস্টল করে দিতে পারেন। অনেক ক্ষেত্রে ফোনেই ইনবিল্ড এই অপশন থাকে, যার ফলে সমান্তরাল ভাবে একই অ্যাপের দু’টি অ্যাকাউন্ট বজায় রাখা যায়।
১১১৬ A11
ভিডিয়ো বা ছবি এডিট করার জন্য ভিভা ভিডিয়ো নামে চিনা অ্যাপ ব্যবহার করেন অনেকে। একই রকম একটি অ্যাপ আছে পাওয়ার ডাইরেক্টর, যেটি তাইওয়ানে তৈরি। এগুলির বদলে একই রকম কাজ করে ফটো ভিডিয়ো কিং মাস্টার নামের অ্যাপটি। যেটি ভারতীয় কোম্পানির তৈরি।
১২১৬ A12
ফটো এডিটিং-ফিল্টার যোগ করা বিউটি প্লাস অ্যাপটিও চিনের তৈরি। এর বদলে আপনি ব্যবহার করতে পারেন ভারতীয় কম্পানির তৈরি লাইটএক্স ফটো এডিটর। এটি তৈরি করেছে, যে কম্পানি তাদের ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে কম্পানিটিতে প্রায় পনেরো আইআইটি ও আইআইএম-র প্রাক্তনী মিলে কাজ করেন। এছাড়াও দক্ষিণ কোরিয়ার বি৬১২ বিউটি অ্যান্ড ফিল্টার ক্যামেরা অ্যাপ অ্যাপও একই রকম কাজ করে।
১৩১৬ A13
হংকংয়ের এক কোম্পানির তৈরি অ্যাপ্লিকেশন, অ্যাপ লক। এই অ্যাপের সাহায্যে ফোনের বিভিন্ন অ্যাপকে ফিঙ্গার প্রিন্ট, পিন-এর দ্বারা লক করে রাখা যায়। এর একটি বিকল্প হচ্ছে নর্টন অ্যাপ লক। এটি অ্যান্টি ভাইরাস প্রস্তুতকারক মার্কিন কম্পানি নর্টনের তৈরি।
১৪১৬ A14
চিনা অ্যাপের পরিবর্তে এমন বিকল্প অ্যাপের কথা বলা হচ্ছে। বেশ কিছু তালিকাও ঘুরে বেড়াচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তবে সাইবার বিশেষজ্ঞ আবীর আতর্থী জানিয়েছেন, কোনও অ্যাপ ইনস্টল করার পর আমরা ফোনের নানান তথ্য অ্যাক্সেস করার পার্মিশন দিই। অ্যাপটি সেই সব তথ্য কোথায় কী ভাবে ব্যবহার করছে বা তৃতীয় কাউকে তা বিক্রি করছে কি না তা আমরা জানতে পারি না। সে চিনা অ্যাপই হোক বা ভারতীয়, মার্কিন বা অন্য কোনও দেশের তৈরি অ্যাপই ক্ষেতেও হতে পারে। তাই চিনা অ্যাপ মানেই খারাপ উদ্দেশে তৈরি বা ভারতীয় বা অন্য কোনও দেশের হলে তা একদম নিরাপদ তা ধরে নেওয়া ঠিক নয়।
১৫১৬ A15
যেমন ভিডিয়ো কনফারেন্সিং অ্যাপ জুম নিয়েও অনেক অভিযোগ উঠছে। অ্যাপটি তৈরির সঙ্গে জড়িত রয়েছেন এক অনাবাসী চৈনিক ইঞ্জিনিয়ার। তবে এটি একটি এক মার্কিন সংস্থার মালিকানাধিন। অ্যাপটি নিয়ে অভিযোগ উঠার পর অনেকেই জুম আনইনস্টলও করে দেন। আবার রিমুভ চায়না অ্যাপ নামে একটি অ্যাপ্লিকেশন নিয়েও সাধারণ মানুষ থেকে বিশেষজ্ঞের মনে প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে। এটিও নিরাপদ নয় বলে দাবি অনেকের।
১৬১৬ A16
মাল্টি প্লেয়ার অনলাইন গেম পাবজি (প্লেয়ার আননোনস্ ব্যাটেল গ্রাউন্ড)-কে অনেকে চিনা অ্যাপ বলে দাবি করেন। তবে এটি একটি দক্ষিণ কোরিয়ার ভিডিয়ো গেম কম্পানি ব্লুহোল-এর তৈরি। যার মূল অফিস রাজধানী সিওলে অবস্থিত।

Advertisement

Advertisement

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
বাছাই খবর
আরও পড়ুন