Advertisement
২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Lifestyle News

প্রয়োজনের তুলনায় কম প্রোটিন খান ভারতের মহিলারা, বলছে রিপোর্ট

শরীরে সঠিক পুষ্টির জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় উপাদান প্রোটিন। শরীরে প্রতিটা কোষেই প্রোটিন রয়েছে এবং কোষের ক্ষতিপূরণের জন্যও প্রোটিন অন্যতম জরুরি উপাদান।

সংবাদ সংস্থা
শেষ আপডেট: ০৩ মার্চ ২০১৭ ১৩:৪৯
Share: Save:

শরীরে সঠিক পুষ্টির জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় উপাদান প্রোটিন। শরীরে প্রতিটা কোষেই প্রোটিন রয়েছে এবং কোষের ক্ষতিপূরণের জন্যও প্রোটিন অন্যতম জরুরি উপাদান। যারা ফিটনেস রুটিন মেনে চলেও পেশী গঠন করতে চান তাদের ডায়েটে প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন রাখার পরামর্শ দিয়ে থাকেন বিশেষজ্ঞরা।

ঠিক কতটা পরিমাণ প্রোটিন খাওয়া প্রয়োজন তা পুরুষ ও মহিলাদের ক্ষেত্রে একেবারেই আলাদা। পুরুষদের ক্ষেত্রে ডায়েটারি রেফারেন্স ইনটেক প্রতি কিলোগ্রামে ০.৮ গ্রাম প্রোটিন। যে ঘাটতি মেটাতে একজন প্রমাণ ওজনের পুরুষের প্রতি দিন ৫৬ গ্রাম প্রোটিন খাওয়া প্রয়োজন। একজন প্রমাণ ওজনের মহিলার ৪৬ গ্রাম প্রোটিনের প্রয়োজন। কিন্তু অধিকাংশ ভারতীয় মহিলাই এই বিষয় সম্পর্কে সচেতন নন। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, ভারতীয় মহিলারা পুরুষদের তুলনায় অন্তত ১৩ শতাংশ কম প্রোটিন খান। দিল্লির একটি মোবাইল হেলথ অ্যান্ড ফিটনেস সংস্থা হেলদিফাইমি-র প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী বরাবরাই ভারতীয় পুরুষদের তুলনায় ভারতীয় মহিলারা অনেক কম প্রোটিন কম খেয়ে থাকেন।

বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হয় হেলদিফাইমিটার জেন্ডার ওয়াচ ২০১৭। ১৫ লক্ষ হেলদিফাইমি অ্যাপ ব্যবহারকীদের ৬ কোটি ফুড রেকর্ডের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে এই তথ্য। এই সংখ্যার অর্ধেক মহিলা। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী একজন ভারতীয় প্রাপ্তবয়স্ক মহিলার প্রোটিন, ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট গ্রহণের অনুপাত হওয়া উচিত ২০:৩০:৫০। কিন্তু হেলদিফাইমিটার জেন্ডার ওয়াচ ২০১৭ অনুযায়ী ভারতীয় মহিলারা এই অনুপাতের চেয়ে অনেক কম পরিমাণ প্রোটিন খেয়ে থাকেন। এই সংস্থার সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও তুষার বশিষ্ঠ জানাচ্ছেন, শরীরে প্রোটিনের অভাব হওয়ার ফলে মেটাবলিজম ধীরে হওয়া, ওজন বেড়ে যাওয়া, ক্লান্তি, মনসংযোগের অভাব, মুড সুইংয়ের মতো সমস্যায় ভোগেন মহিলারা।

গুরুগ্রামের মেদান্ত হাসপাতালের চেয়ারম্যান ও এন্ডোক্রিনোলজি ও ডায়াবেটিস বিভাগের প্রধান অম্বরীশ মিত্তল জানাচ্ছেন, প্রোটিন কম খাওয়ার ফলে মহিলাদের হাড় দুর্বল ও ভঙ্গুর হয়ে পড়ে। তার ফলে তারা অস্টিওপরেসিসের মতো রোগে বেশি আক্রান্ত হন। রিপোর্টে দেখা গিয়েছে, প্রোটিন কম খাওয়ার পাশাপাশি পুরুষদের তুলনায় কার্বোহাইড্রেট ও ফ্যাট বেশি পরিমাণে খান। আবার কায়িক শ্রমের ক্ষেত্রেও পুরুষদের তুলনায় মহিলারা ২০ শতাংশ কম পরিশ্রম করেন।

আরও পড়ুন: পিরিয়ডের সময় নির্জীব ত্বকের যত্ন নিন এ ভাবে

প্রোটিন খাওয়ার ক্ষেত্রে নারী-পুরুষ বৈষম্য সবচেয়ে বেশি লক্ষ্য করা গিয়েছে মণিপুর ও অরুণাচল প্রদেশের মতো উত্তর-পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলোতে। এরপরেই রয়েছে জম্মু ও কাশ্মীর, হিমাচল প্রদেশ, ঝাড়খন্ড, পঞ্জাব ও দিল্লির স্থান।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE