• সুচরিতা সেন চৌধুরী
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মাঠে আসছেন তো? সমর্থকদের ডাক এটিকে কোচের

ATK Coach
এটিকে কোচ শেরিংহ্যাম। ছবি: আইএসএল।

নেই, নেই, কিছু নেই... তবুও তো আছে কিছু... আর সে জন্যই বোধহয় ডাকটা দেওয়ার সাহস পাচ্ছেন টেডি শেরিংহোম।

তাঁর দলের নেই-ভাণ্ডারটা বেশ বড়। সেখান থেকে টুর্নামেন্ট শুরুর আগে থেকেই চোটের জন্য ছিটকে গিয়েছেন অনেকে। সেই তালিকায় রয়েছেন দলের মার্কি প্লেয়ার রবি কিন। আশুতোষ মেহতা, জয়েশ রানেরাও রয়েছেন। কিন্তু, তার মধ্যেই ঘরের মাঠে আত্মবিশ্বাস নিয়ে গ্যালারি ভরানোর ডাক দিয়ে রাখলেন এটিকে কোচ শেরিংহ্যাম।

কোচিতে ভর্তি গ্যালারি দেখে এসেছেন। তা দেখেই আপ্লুত শেরিংহ্যাম। এ বার ‘নিজের শহর’ কলকাতাকে ডাক দিলেন তিনি। শনিবার যুবভারতী স্টেডিয়ামে বসে শেরিংহ্যাম বলেন, ‘‘এটিকে ফ্যানদের প্যাশনের কথা শুনেছি। তাঁদের জন্যই এই ম্যাচটা জিততে চাই। সবাইকে বলছি, মাঠে আসুন।’’

আরও পড়ুন

এটিকের জার্সিতেও দেবজিতের লক্ষ্য জাতীয় দল

সামনে যখন এটিকে কোচ তখন রবি কিনের প্রসঙ্গ আসবেই। এলও। কোচ অবশ্য স্পষ্ট করে জানিয়ে দিলেন, পুণে সিটি এফসি-র বিরুদ্ধে দলে থাকছেন না রবি। কিন্তু, ম্যাচের দিন হয়তো মাঠে থাকছেন। কলকাতায় পৌঁছতে ইতিমধ্যেই রওনা দিয়েছেন তিনি। দলের হয়ে গলা ফাটাতে মাঠে থাকবেন কি না তা নিয়ে নিশ্চিত ভাবে না জানালেও, অন্তত আরও এক সপ্তাহ যে তিনি মাঠে নামতে পারবেন না, সেটা নিশ্চিত করে দিলেন কোচ। সেটা বেড়ে দু’সপ্তাহও হতে পারে!

এর মধ্যেই কোচ অবশ্য জানিয়ে দিলেন, আশুতোষের হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট। নতুন করে এমআরআই করা হয়েছে। এ রকম চোট সারতে সময় লাগে। অন্য দিকে, জয়েশ রানের হাঁটুর চোটে দ্রুত উন্নতি হচ্ছে বলে জানান কোচ। পাশাপাশি রবির না থাকা নিয়ে যদিও ভাবতে নারাজ শেরিংহ্যাম। বাকি দল নিয়েই জয়ের লক্ষ্যে ঝাঁপাবেন তিনি। সেটা স্পষ্ট করতে কোচ বলে দিলেন, ‘‘আমার হাতে স্ট্রাইকিং-এ রবিন সিংহের মতো বিকল্পও তো রয়েছে।’’ যদিও পুণে সিটি এফসির খেলা দেখার পর তাদের সমীহ না করে পারছেন না শেরিংহ্যাম। দিল্লির কাছে হারতে হয়েছে ঠিকই। কিন্তু, ৩-০ গোলে পিছিয়ে পড়ে যে ভাবে ৩-২-এ ম্যাচ শেষ করেছিল, আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য সেটাই যথেষ্ট। এটাই আরও এক বার মনে করিয়ে দিলেন এটিকে কোচ। তাঁর কথায়, ‘‘পুণে সিটিতে এমন কয়েক জন প্লেয়ার রয়েছেন, যাঁরা ম্যাচের রং বদলে দিতে পারে।’’ 

আরও পড়ুন

ভবিষ্যৎ হাতে লেখা থাকে? ওরা কিন্তু বদলে দিয়েছে

যুবভারতীর মাঠে অনুশীলন করার সুযোগ না পাওয়াকে যদিও ‘ডিসঅ্যাডভান্টেজ’ মানতে নারাজ এটিকে কোচ। বরং পাল্টা বলেন, ‘‘ঘরের মাঠে খেলা সব সময়ই অ্যাডভান্টেজ। আমরা সমর্থকদের সঙ্গে নিয়ে খেলব।’’ অন্য দিকে, পুণে এগিয়ে থাকবে তাদের বিদেশি খেলোয়াড়দের জন্য। কারণ ওদের প্রায় প্রত্যেকেই এই আইএসএল-এ খেলে গিয়েছেন কোনও না কোনও দলের হয়ে। যে কারণে এই পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারবেন দ্রুত। সে দিক থেকে এটিকে-তে সকলেই নতুন বিদেশি। সেই ভারতীয় ফুটবলের সঙ্গে পরিচিত বিদেশিদের সামলাতে অবশ্য প্রস্তুত এটিকের ডিফেন্ডাররা।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন