সন্তোষ ট্রফিতে এ বার বাংলা দলের কোচ হলেন বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য। দলের গোলকিপার কোচ সন্দীপ নন্দী। পাশাপাশি, জাতীয় গেমসে বাংলা ফুটবল দলের কোচের দায়িত্ব সামলানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে রঞ্জন ভট্টাচার্যকে।

এ দিন আইএফএ দফতরে জামশিদ নাসিরির নেতৃত্বাধীন কোচ নির্বাচন কমিটির সদস্যদের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠকের পরে বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্যের নাম ঘোষণা সচিব উৎপল গঙ্গোপাধ্যায়। বৈঠকে হাজির ছিলেন কোচ নির্বাচন কমিটির বাকি সদস্য প্রদীপ দত্ত, মানস ভট্টাচার্য, রঞ্জিত মুখোপাধ্যায়, কুন্তলা ঘোষ দস্তিদাররা। 

বৈঠক থেকে বেরিয়ে কমিটির সদস্য মানস ভট্টাচার্য বলেন, ‘‘অতীতে সন্তোষ ট্রফিতে বাংলার টেকনিক্যাল ডিরেক্টর (টিডি) হিসেবে দায়িত্ব সামলালেও, এই প্রথম বার বাংলার কোচ হিসেবে দায়িত্ব সামলাবেন বিশ্বজিৎ। গোলকিপার হিসেবে সন্দীপ নন্দীকে বেছে নিয়েছি আমরা। কারণ, নতুনদের সুযোগ দিতে চেয়েছি আমরা।’’ জানা গিয়েছে, এ দিন বৈঠকে রেনবোর কোচ তড়িৎ ঘোষ, জর্জ টেলিগ্রাফের কোচ রঞ্জন ভট্টাচার্যের নামও ওঠে। উঠেছিল গত বছর বাংলা দলের কোচ রঞ্জন চৌধুরীর নামও। কিন্তু অভিজ্ঞতার জন্যই বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্যের নাম অগ্রাধিকার পায়। বৈঠকের মাঝেই আইএফএ সচিব উৎপল গঙ্গোপাধ্যায় ফোন করেছিলেন বিশ্বজিতবাবুকে। তিনি সম্মতি দিলেই, সরকারি ভাবে আইএফএ ঘোষণা করে সন্তোষ ট্রফির কোচের নাম।

অতীতে কলকাতার তিন বড় দলে কোচিং করানো বিশ্বজিৎ গত কলকাতা লিগে পিয়ারলেসের দায়িত্ব সামলেছিলেন। লিগে মহমেডান ও ইস্টবেঙ্গলকে হারানোর পাশাপাশি, মোহনবাগানের সঙ্গে ড্র করেন তিনি। ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বললেন, ‘‘সন্তোষ ট্রফিতে বাংলার কোচ হওয়াটা আমার কাছে সম্মানের ব্যাপার। অতীতে শিশির ঘোষ কোচ থাকার সময় দলের টিডি হিসেবে দায়িত্ব সামলেছি। বাংলাকে চ্যাম্পিয়ন করার চেষ্টা করব। সচিবের সঙ্গে দ্রুত বৈঠকে বসার চেষ্টা করছি। তার পরেই  সন্তোষের দল বেছে নিয়ে দ্রুত অনুশীলনে নেমে পড়তে চাই।’’