এশীয় অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম দিনে মিশ্র ভাবে কাটল ভারতের। দ্যুতি চন্দ নতুন জাতীয় রেকর্ড গড়ে সেমিফাইনালে উঠলেও হিট থেকেই ছিটকে গেলেন ৪০০ মিটারে দেশের সেরা মহিলা অ্যাথলিট হিমা দাস।

অন্য দিকে, ভারোত্তোলনের ৬৭ কেজি বিভাগে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মিলিয়ে ১৫টি রেকর্ড ভাঙলেন ১৬ বছরের ভারতীয় জেরেমি লালরিননুঙ্গা। ৮৬ কেজি বিভাগে অল্পের জন্য ব্রোঞ্জ পদক হাতছাড়া হয়েছে প্রাক্তন বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন মীরাবাঈ চানুর। অন্য দিকে, ৪৫ কেজি বিভাগে রুপো পান ঝিলি দালাবেহরা।

অ্যাথলেটিক্সের ৪০০ মিটার ইভেন্টে জাতীয় রেকর্ডের অধিকারী ও বিশ্ব জুনিয়র চ্যাম্পিয়নশিপে  সোনাজয়ী হিমা দাসকে নিয়ে দোহায় আগ্রহ ছিল প্রবল। কিন্তু এ দিন হিমা পিঠের পেশিতে টান ধরায় হিট শেষ করতে পারেননি। সেখানে প্রথম হয়েছেন শ্রীলঙ্কার নাদিশা রামানায়কে।

তবে চোট গুরুতর নয় বলেই জানা গিয়েছে ভারতীয় অ্যাথলেটিক্স দলের তরফে। সহকারী কোচ রাধাকৃষ্ণন নায়ার জানিয়েছেন, ‘‘মেরুদণ্ডের নিচের দিকের কশেরুকা আর তার সংলগ্ন পেশিতে টান ধরেছিল হিমার। চিকিৎসকরা ওকে পরীক্ষা করেছেন। জানিয়েছেন চোট খুব বড় নয়। দু’একদিনের মধ্যেই সেরে উঠবে ও।’’

ফলে মহিলাদের ৪X৪০০ মিটার রিলে ও মিক্সড ৪X৪০০ মিটার রিলেতে হিমা অংশগ্রহণ করতে পারবেন কি না তা নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। যদিও ভারতীয় দলের তরফে নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্তা জানিয়েছেন, ‘‘সোম কিংবা মঙ্গলবার ফের পরীক্ষার পরে হিমাকে নিয়ে সিদ্ধান্ত হবে। দেখা যাক কী হয়।’’

অ্যাথলেটিক্সে পরের রাউন্ডে গিয়েছেন জিনসন জনসন (৮০০মিটার), মহম্মদ আনাস ও আরোকিয়া রাজীব (পুরুষদের ৪০০ মিটার), প্রবীণ চিত্রাভেল (পুরুষদের ট্রিপল জাম্প) এবং গোমতী মারিমুথু (মহিলাদের ১৫০০ মিটার)। জাতীয় রেকর্ডধারী জনসন পুরুষদের ৮০০ মিটার হিটে সময় করেন ১:৫৩.৪৩ মিনিট।  কাতারের জামিল হায়রেনের পিছনে থেকে দ্বিতীয় হন তিনি। এই ইভেন্টেই সেমিফাইনালে গিয়েছেন আর এক ভারতীয় মহম্মদ আফসল। তিনি সময় করেন ১:৫২.৯৩ মিনিট। মহিলাদের ৮০০ মিটারের ফাইনালে গিয়েছেন গোমতী মারিয়ামুথু।