• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

আমাদের সেই দল বিরাটদের কড়া চ্যালেঞ্জে ফেলত, বলছেন রবি শাস্ত্রী

Shastri
১৯৮৫ সালে ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপের সেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার হাতে শাস্ত্রী। —ফাইল চিত্র।
১৯৮৫ সালে অস্ট্রেলিয়ায় ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপ জেতা ভারতীয় দল কড়া চ্যালেঞ্জে ফেলতে পারত বিরাট কোহালির এই দলকে। এমনই মনে করেন জাতীয় দলের প্রধান কোচ রবি শাস্ত্রী
 
১৯৮৫ সালে সুনীল গাওস্করের নেতৃত্বে ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছিল ভারত। সেই জয়ে বড় অবদান ছিল শাস্ত্রীর। ‘প্লেয়ার অফ দ্য টুর্নামেন্ট’ হয়েছিলেন তিনি। জিতেছিলেন অডি গাড়ি। আবার এখন জাতীয় দলের সঙ্গেও কোচ হিসেবে যুক্ত তিনি। বিশ্ব ক্রিকেটে ভারতীয় দলের ধারাবাহিক পারফরম্যান্সে বড় ভূমিকা রয়েছে তাঁর।
 
ফেসবুকে একটি চ্যানেলের শোয়ে শাস্ত্রী বলেন, “সাদা বলের ক্রিকেটে ভারতের যে কোনও দলকেই চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলার ক্ষমতা রাখত ১৯৮৫ সালের সেই দল। বিরাট কোহালির দলকেও হাড্ডাহাড্ডি লড়তে বাধ্য করত সেই দল।” এমনকি, ১৯৮৩ সালে কপিল দেবের বিশ্বকাপজয়ী দলের চেয়েও সেই দল শক্তিশালী  ছিল বলে দাবি করেছেন শাস্ত্রী। তিনি বলেছেন, “এক ধাপ এগিয়ে এটা বলতে পারি যে, ১৯৮৩ সালের চেয়ে ১৯৮৫ সালের দল বেশি শক্তিশালী ছিল। আপনারা জানেন, দুটো দলেই আমি ছিলাম। বিশ্বকাপজয়ী দলের ৮০ শতাংশই ছিল সেই দলে। কিন্তু বেশ কয়েক জন তরুণ দলে এসেছিল। যেমন শিবরামকৃষ্ণণ, সদানন্দ বিশ্বনাথ, আজহারউদ্দিন। ১৯৮৩ সালের সেই দলের অভিজ্ঞতার সঙ্গে যুক্ত হয়েছিল তারুণ্য।” 
 
 
২০১৮-’১৯ মরসুমে অস্ট্রেলিয়ায় টেস্ট সিরিজ জিতেছিল বিরাট কোহালির ভারত। শাস্ত্রীর মতে, যা ‘ভেরি ভেরি স্পেশাল’। তবে সাদা বলের ক্রিকেটে ১৯৮৫-র কৃতিত্বও ছিল অসীম। তিনি বলেছেন, “এই দুটো দলের সঙ্গেই যুক্ত ছিলাম। কোচ হিসেবে অস্ট্রেলিয়ায় যে কোনও সিরিজ জয়ই ভেরি ভেরি স্পেশাল। ওদের হারানো খুব কঠিন। তা ছাড়া গত ৭১ বছরে এশিয়ার কোনও দল অস্ট্রেলিয়ায় এসে টেস্ট সিরিজ জেতেনি। টেস্টে অস্ট্রেলিয়ায় এসে অস্ট্রেলিয়াকে হারানো যে কত দুরূহ, তা সবাই জানেন। আবার সাদা বলের ক্রিকেটে এক জন ক্রিকেটার হিসেবে ১৯৮৫ সালের সাফল্য অতুলনীয়। দুটো জয়ই অসাধারণ।”

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন