এই মুহূর্তটারই অপেক্ষায় ছিলেন তাঁর ভক্তরা। স্টুটগার্টে জিমন্যাস্টিক্স বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের ব্যালেন্স বিম ইভেন্টের স্কোর ঘোষণা করার পরেই লাফিয়ে উঠলেন নিজের জায়গা ছেড়ে সিমোন বাইলস। হাতটা ছুড়ে দিলেন শূন্যে। চওড়া হাসিতে ভরা মুখ। হবে নাই বা কেন! এই জয়ে মার্কিন তারকা যে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে সর্বাধিক পদক জয়ের দুরন্ত রেকর্ড গড়লেন। ভেঙে দিলেন বেলারুশের পুরুষ জিমন্যাস্ট ভিতালি সোশেরবোর ২৩ পদক জয়ের নজির। সিমোন অবশ্য ২৩ নম্বর পদকেই থেমে থাকেননি। ঘণ্টা দু’য়েকের মধ্যেই ২৫ নম্বর পদকও জিতে নেন ফ্লোর এক্সারসাইজে সোনা জিতে।

বিমে নিখুঁত পারফরম্যান্সে ১৫.০৬৬ স্কোর করার পরে ফ্লোর এক্সারসাইজেও ১৫.১৩৩ স্কোর করেন তিনি। পুরো এক পয়েন্টে পিছিয়ে দেন প্রতিদ্বন্দ্বীদের। যদিও তাঁর পা এক বার নির্দিষ্ট অঞ্চলের বাইরে চলে গিয়েছিল এবং পারফরম্যান্সের পরে তিনি দর্শকদের দিকে চুম্বনও ছুড়ে দেন। তাঁর সতীর্থ যুক্তরাষ্ট্রের সানিসা লি পান রুপো এবং ব্রোঞ্জ জেতেন রাশিয়ার অ্যাঞ্জেলিনা মেলনিকোভা।

সব মিলিয়ে চলতি বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে পাঁচটি সোনা জিতলেন সিমোন। মঙ্গলবার দলগত ভাবে সোনা জেতার পরে ব্যক্তিগত অল রাউন্ডে সোনা পান বৃহস্পতিবার এবং ভল্টে সোনা পান শনিবার। আনইভেন বার ইভেন্টে পঞ্চম স্থান পাওয়ায় গত বারের মতো ছটি ইভেন্টেই পদক জেতা হল না এ বার সিমোনের। যেটা তাঁর খেলোয়াড়জীবনের শেষ বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ কি না প্রশ্ন থাকছে। কারণ, তিনি আগামী বছর অলিম্পিক্সের পরেও খেলোয়াড়জীবন চালিয়ে যাবেন কি না সেটা এখনও জানাননি। সব মিলিয়ে তাঁর ২৫টি বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ খেতাবের মধ্যে ১৯টি সোনা। সোশেরবোর সেখানে ২৩টি পদকের ১২টি সোনা।

এর আগে রাশিয়ার নিকিতা নাগরনি পুরুষদের ভল্টে সোনা জেতেন। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে এই নিয়ে তাঁর তৃতীয় সোনা। ২০১০ সালের পরে তিনি প্রথম ইউরোপীয় পুরুষ হিসেবে ভল্টে সোনা জিতলেন। দুটি ভল্টের পরে তাঁর স্কোর দাঁড়ায় ১৪.৯৬৬। রুপো পান তাঁর সতীর্থ আর্তুর ডালালোইয়ান। ব্রোঞ্জ জেতে ইউক্রেনের ইগর রাদিভিলভ।