×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৭ মে ২০২১ ই-পেপার

ওয়াটসনরা চাইছেন টেস্ট পিছোক

অজি-টালবাহানার পিছনে শোক না প্লেয়ারের অভাব, প্রশ্ন ক্রিকেটবিশ্বে

নিজস্ব প্রতিবেদন
২৯ নভেম্বর ২০১৪ ০৩:৪৬
শুক্রবার সংবাদমাধ্যমকে বিবৃতি দিচ্ছেন সাদারল্যান্ড। ছবি: রয়টার্স।

শুক্রবার সংবাদমাধ্যমকে বিবৃতি দিচ্ছেন সাদারল্যান্ড। ছবি: রয়টার্স।

আগামী বৃহস্পতিবার থেকে ব্রিসবেন টেস্ট হচ্ছে, না হচ্ছে না?

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট নিয়ে টালবাহানার আসল কারণ কী? ফিল হিউজের অকালপ্রয়াণ? না কি যোগ্য এগারোজনকে খুঁজে না পাওয়ার টেনশন?

অস্ট্রেলিয়ার তরুণ ক্রিকেটার চলে যাওয়ার চব্বিশ ঘণ্টা পরেও এই দু’টো প্রশ্নের কোনও নিষ্পত্তি হল না। অস্ট্রেলিয়ার এক সংবাদপত্র দাবি করল, ব্র্যাড হাডিন, ডেভিড ওয়ার্নার এবং শেন ওয়াটসন নাকি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে জানিয়েছে, প্রথম টেস্ট ম্যাচ পিছোতে। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া—তারাও ব্রিসবেন টেস্টের ভবিষ্যত্‌ নিয়ে এখনও সুস্পষ্ট করে কিছু বলল না। আবার তাদের এমন দীর্ঘ টালবাহানার কারণ আসলে ঠিক কী, সেটাও বোঝা গেল না।

Advertisement

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটমহলের কারও কারও ধারণা হল, অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট বোর্ডের এমন মনোভাবে কারণ যেমন হিউজের মৃত্যু হতে পারে, তেমনই যোগ্য এগারোজনকে খুঁজে না পাওয়াও হতে পারে। প্রথম টেস্টে এমনিতেই মাইকেল ক্লার্কের নামার সম্ভাবনা কম। হাফফিট ব্র্যাড হাডিন— তাঁকেও পাওয়া যাবে কি না সন্দেহ। স্টিভ স্মিথ, চোটে সম্ভবত তিনিও নেই। তা হলে ব্যাগি গ্রিনের ক্যাপ্টেন্সি ব্রিসবেনে করবেন কে? যোগ্য অধিনায়ক কোথায়?

হিউজের ঘনিষ্ঠমহল ইতিমধ্যেই বলতে শুরু করেছে, টেস্ট ম্যাচ হোক। হিউজ জীবিত থাকলে তিনি নিজেই সেটা চাইতেন। মার্ক টেলর, অ্যালান বর্ডারের মতো কোনও কোনও প্রাক্তন অধিনায়করাও টেস্ট করার পক্ষে রায় দিয়েছেন। কিন্তু অস্ট্রেলীয় বোর্ডের সিইও জেমস সাদারল্যান্ড, তিনি স্পষ্ট করে কিছু বলছেন না। তাঁরা এখনও নাকি প্রথম টেস্টে নামা না নামা নিয়ে ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথাই বলে উঠতে পারেননি। ‘‘ক্রিকেট আমরা সবাই ভালবাসি। কিন্তু ফিলিপকে তার থেকেও ভালবাসি। ক্রিকেট হবে ঠিকই, কিন্তু তখনই হবে যখন আমরা প্রস্তুত হব। ক্রিকেটারদের সঙ্গে এখনও এটা নিয়ে কথা বলা হয়নি,” বলেছেন সাদারল্যান্ড।

এখানেই না থেমে তাঁর আরও সংযোজন, “ঠিক সময়ে এটা নিয়ে বসব। আমি জানি কারও কারও কাছে সাত দিনটা খুব দূরের ব্যাপার নয়। কিন্তু কারও কারও কাছে আবার সেটা লক্ষ লক্ষ মাইল দূরের।”

ভারতীয় বোর্ডের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা গেল, তারাও জানে না প্রথম টেস্ট নিয়ে কী হবে। ভারতীয় টিম আজ ক্লোজড ডোর প্র্যাকটিস করল হাতে কালো আর্মব্যান্ড পরে। আর বোর্ড সচিব সঞ্জয় পটেল ফোনে এ দিন আনন্দবাজারকে বললেন, “ওদের আমরা আর কী বলব? আমি ইন্ডিয়া প্লেয়ারদের সঙ্গে কথা বলার সময়ই বুঝতে পারছি ওরা কতটা শক্ড। তা হলে অস্ট্রেলীয়দের মানসিক অবস্থা তো বোঝাই যায়। প্রথম টেস্ট হবে কি হবে না, না পিছিয়ে দেওয়া হবে, কিছুই আমাদের ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া জানায়নি। কিন্তু ওরা যা-ই করুক, মেনে নেব।”

ঘটনা হল, বোর্ড মানলেও স্পনসররা কতটা মানবে তা নিয়ে ভাল সন্দেহ আছে। টিভি স্বত্ত্ব বিক্রি হয়ে গিয়েছে। মনে করা হচ্ছে, এই অবস্থায় টেস্ট বাতিল করাটা মোটেও সহজ হবে না ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে।

হিউজের বন্ধুবর্গ সেটা কোনও ভাবেই চাইছে না। হিউজ-পরিবারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ অ্যান্টনি মাইলস বলেছেন, “আমরা ফিলিপের বাড়ির লোকজনের সঙ্গে এটা নিয়ে কথা বলেছি। সবাই বলেছে যে ফিলিজ আজ থাকলে চাইত, টেস্টটা হোক। যে ভাবে ওর প্রতি সম্মান সবাই দেখাচ্ছে, সেটা দেখলে ও কৃতজ্ঞ থাকত। কিন্তু সঙ্গে ফিলিপ এটাও বলত যে, চলো, মাঠে নামি। ক্রিকেটাররাও আমাদের মতো কষ্ট পাচ্ছে, বুঝতে পারছি। কিন্তু জীবন তো থেমে থাকে না।”

মার্ক টেলরের মনে হচ্ছে, ক্রিকেটই সেরা ওষুধ হতে পারে ক্রিকেটারদের মানসিক ভাবে আবার চাঙ্গা করে তোলার। বলেছেন, “আদর্শ পরিস্থিতি হল, টেস্ট ম্যাচটা খেলে ফিলের প্রতি সম্মান জানানো। প্লেয়ারদের সঙ্গে বসা উচিত বোর্ডের।”

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া কত দিনে ক্রিকেটারদের সঙ্গে এখন বসবে, সেটাই প্রশ্ন।

Advertisement