Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৩ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

খেলা

বিশ্রামে বিরাট, সৌরভ-যুগের প্রথম দল নির্বাচনেও রইল চমক

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ২৪ অক্টোবর ২০১৯ ১৭:০০
সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বোর্ড প্রেসিডেন্টের চেয়ারে বসেছেন বুধবার। আর আজ, বৃহস্পতিবার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টি টোয়েন্টির দল জানিয়ে দিলেন নির্বাচকরা। বিরাট কোহালি নাগাড়ে খেলে চলেছেন। তাই তাঁকে টি টোয়েন্টি সিরিজে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। রোহিত শর্মার হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে দলের নেতৃত্ব। ঘরোয়া ক্রিকেটে ভাল পারফরম্যান্স করায় দলে ডাক পেয়েছেন দুই তরুণ ক্রিকেটার। সৌরভ-যুগের প্রথম দল নির্বাচনে কারা জায়গা পেলেন জাতীয় দলে? দেখে নেওয়া যাক।

শিখর ধওয়ন- ক্যারিবিয়ান সফর একদমই ভাল যায়নি ধওয়নের। তিন ম্যাচে সংগ্রহ ছিল মাত্র ২৪ রান। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টি টোয়েন্টি সিরিজে ছন্দে ফেরেন বাঁ হাতি ওপেনার। ব্যাটে বড় রান হয়তো আসেনি। দুটো টি টোয়েন্টি ম্যাচ থেকে ৭৬ রান করেন ধওয়ন। অভিজ্ঞ ওপেনার তিনি। বহু কঠিন ম্যাচ খেলেছেন। শাকিবদের বিরুদ্ধে ব্যাট হাতে ওপেন করতে দেখা যাবে তাঁকে।
Advertisement
রোহিত শর্মা- বিরাট কোহালিকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। দলের নেতৃত্বে রোহিত শর্মা। প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে স্বপ্নের ফর্মে ছিলেন তিনি। যদিও টি টোয়েন্টিতে ‘হিটম্যান’-এর ব্যাট কথা বলেনি। কিন্তু, রোহিত এমনই একজন ব্যাটসম্যান, যিনি তিনটি ফরম্যাটের জন্যই দুরন্ত ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অভিজ্ঞ রোহিত ভারতের ব্যাটিং বিভাগকে নেতৃত্ব দেবেন।

লোকেশ রাহুল- দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টি টোয়েন্টি সিরিজে দলে থাকলেও তিনি খেলেননি। টেস্ট দল থেকেও বাদ দেওয়া হয় তাঁকে। টেস্টে ওপেন করতে নেমে রোহিত শর্মা নিজের জায়গা পাকা করে ফেলেন দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে। নিজেকে প্রমাণ করতে বাংলাদেশ সিরিজ খুব গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে রাহুলের জন্য।
Advertisement
শ্রেয়াস আইয়ার- ক্যারিবিয়ান সফরে একদিনের সিরিজে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন তিনি তৈরি। মণীশ পাণ্ডে সুযোগ পেয়েও ব্যর্থ হয়েছেন বার বার। তাই প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে সিরিজের শুরু থেকেই তাঁকে দেখে নেন বিরাট। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দুটো টি টোয়েন্টি ম্যাচে অবশ্য আইয়ার নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অন্য মেজাজে আইয়ারকে দেখা যেতেই পারে।

ঋষভ পন্থ (উইকেটরক্ষক)- মহেন্দ্র সিংহ ধোনি যে বাংলাদেশ সিরিজেও মাঠে ফিরবেন না, তা আগে থেকেই স্থির ছিল। তিনি না থাকায় ঋষভ পন্থকে তৈরি করতে চান নির্বাচকরা। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে পন্থের দিকে নজর থাকবে সবার। সাম্প্রতিক কালে তাঁকে নিয়েই সব চেয়ে বেশি চর্চা হয়েছে।

সঞ্জু স্যামসন— ঘরোয়া ক্রিকেটে সঞ্জু স্যামসন দুর্ধান্ত পারফরম্যান্স করেছেন। ডাবল সেঞ্চুরিও হাঁকিয়েছেন বিজয় হজারে ট্রফিতে। অনেক দিন ধরেই গৌতম গম্ভীরের মতো প্রাক্তন ওপেনার সঞ্জুর জন্য গলা ফাটিয়ে আসছেন। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টি টোয়েন্টি সিরিজে তাঁকে সুযোগ দিলেন নির্বাচকরা।

মণীশ পাণ্ডে — মণীশ পাণ্ডে বিজয় হাজারে ট্রফিতে রানের মধ্যে রয়েছেন। ৯টি ম্যাচে ৫২৫ রান করেছেন তিনি। ঘরোয়া ক্রিকেটে রান পাওয়ার জন্য বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দলে রাখা হয়েছে মণীশ পাণ্ডেকে।

ক্রুণাল পাণ্ড্য- ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ক্রুণাল পাণ্ড্যর অলরাউন্ড পারফরমান্স নজর কেড়েছিল। প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে না পারেলও ব্যাট ও বলের হাত ভাল হওয়ায় বাংলাদেশ সিরিজেও তাঁকে রাখা হয়েছে।

শিবম দুবে— সদ্য অস্ত্রোপচার হয়েছে হার্দিক পাণ্ড্যর। এখনই মাঠে ফেরার সম্ভাবনা নেই তাঁর। হার্দিক পাণ্ড্যর অনুপস্থিতিতে শিবম দুবে নিজেকে প্রমাণ করার চেষ্টা করবেন বাংলাদেশের বিরুদ্ধে। ঘরোয়া ক্রিকেটে মুম্বইয়ের হয়ে খেলে নজর কাড়েন তিনি। আইপিএলে খেলেন আরসিবি-র হয়ে। দেশের জার্সিতে এ বার তিনি কেমন খেলেন, সেই দিকে দৃষ্টি থাকবে সবার।

রাহুল চহার — খুব কাছ থেকে দেখেছেন ইমরান তাহিরকে। তাঁর কাছ থেকেই ফ্লিপার রপ্ত করেছেন রাহুল চহার। বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানরা তাঁর ফ্লিপার কী ভাবে সামলান সেটাই দেখার।

ওয়াশিংটন সুন্দর- অফস্পিনার, ব্যাটের হাতটাও বেশ ভাল। পাওয়ারপ্লে চলাকালীন বল করতে পারেন। খুব বেশি বল হয়তো ঘোরান না। কিন্তু, টি টোয়েন্টিতে তাঁর হাতে নতুন বলও তুলে দেওয়া হয়েছে বহু বার। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে বড় পরীক্ষা ওয়াশিংটন সুন্দরের।

দীপক চাহার- ক্যারিবিয়ান সফরে শেষ টি ২০-তে সুযোগ পেয়েছিলেন। তিন ওভার বল করে চার রান দিয়ে তুলে নিয়েছিলেন তিন উইকেট। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দু’টি ম্যাচ থেকে নিয়েছিলেন দুই উইকেট। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নজরে থাকবে তাঁর পারফরম্যান্স।

খলিল আহমেদ— ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে নজর কাড়েন খলিল। তাঁর বোলিংয়ে বেগ পেতে হয়েছিল ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যানদের। সেই কারণেই বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টি টোয়েন্টি দলে নেওয়া হয়েছে খলিল আহমেদকে। উইকেট নেওয়ার পরে তাঁর উদযাপন ইতিমধ্যেই বিখ্যাত হয়ে গিয়েছে। প্রতিপক্ষের উইকেট তুলে নেওয়ার পরে কাউকে ফোন করছেন এই ভঙ্গিতে ছুটতে দেখা যায় তাঁকে। বাংলাদেশের বিরুদ্ধেও একই ভঙ্গিতে দেখা যাবে খলিল আহমেদকে।

যুজবেন্দ্র চহাল— বিরাট কোহালির হাতের অন্যতম তাসকে দেখা যাবে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে। বিশ্বকাপে চহাল নিয়েছিলেন ১২টি উইকেট। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দলে জায়গা পাননি চহাল। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ফেরানো হয়েছে তাঁকে। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা চহালকে কীভাবে সামলান সেটাই দেখার।

শার্দুল ঠাকুর — বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টি টোয়েন্টি সিরিজে দলে এলেন শার্দুল ঠাকুর। নবদীপ সাইনির চোট থাকায় জাতীয় দলের দরজা খুলে যায় শার্দুলের জন্য। গত বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে টেস্ট অভিষেক ঘটেছিল তাঁর। ১০টি বল করার পরে চোট পেয়ে ছিটকে যেতে হয় তাঁকে। সাত সপ্তাহ রিহ্যাব করতে হয় তাঁকে। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টি টোয়েন্টি সিরিজে ফিরে এলেন তিনি। এ বার নিজেকে প্রমাণ করার পালা শার্দুলের।