Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৬ জুলাই ২০২২ ই-পেপার

URL Copied

খেলা

নিলামের আগে এই মুহূর্তে ঠিক কেমন দেখতে কলকাতা নাইট রাইডার্স দল

নিজস্ব প্রতিবেদন
১৮ নভেম্বর ২০১৮ ১০:১৩
আইপিএলে বাইশ গজের যুদ্ধ শুরু হতে ঢের দেরি। তবে প্রতি বারের মতো এ বারও টুর্নামেন্ট শুরুর আগে থেকেই তার প্রস্তুতিতে নেমে পড়েছে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি। বেশ কিছু ক্রিকেটারকে ছেড়ে দিয়েছে তাঁরা, আবার বেশ কয়েক জনকে রেখেও দিয়েছে। দল বদলের এই বাজারে এই মুহূর্তে ঠিক কী অবস্থায় দাঁড়িয়ে কলকাতা নাইট রাইডার্স? দেখে নেওয়া যাক।

ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটের খোলা হাওয়া নিয়ে এ বারও নাইটদের সংসারে থাকছেন আন্দ্রে রাসেল। দীর্ঘদেহী এই অলরাউন্ডার গত আইপিএলে ব্যাটে-বলে মাঠ মাতিয়েছিলেন। নাইট ফ্যানেদের আশা, আগামী বছরের টুর্নামেন্টেও একই ফর্ম ধরে রাখবেন রাসেল।
Advertisement
২০১৮-তে ক্রিস লিনকে কিনতে ৯.৬ কোটি টাকা ব্যয় করেছিলেন নাইট কর্তৃপক্ষ। তার যোগ্য প্রতিদানও দিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার এই হার্ডহিটার। ১৬ ম্যাচে ক্রিস লিনের ব্যাট থেকে বেরিয়েছিল ৪৯১। এ বারও যে দলে তার জায়গা পাকা থাকবে, তা তো জানাই ছিল।

গৌতম গম্ভীরের পর নাইটদের নেতৃত্বের হাল ধরেছিলেন দীনেশ কার্তিক। অধিনায়কত্বের সঙ্গে সঙ্গে ব্যাটেও দলের অন্যতম ভরসা হয়ে উঠেছিলেন তিনি। ১৬ ম্যাচে করেছিলেন ৪৯৮ রান। এ বারও তাঁকে ছাড়া দল গড়ার কথা তাই ভাবতেই পারেননি টিমের মালিকেরা।
Advertisement
আইসিসি যুব বিশ্বকাপে পারফরম্যান্সের জেরে নজরে এসেছিলেন কমলেশ নাগরকোটি। তবে এমনই দুর্ভাগ্য, আইপিএলে নাইটদের দলে এলেও পায়ের চোটের জন্য তাঁর আর ২০১৮-র আইপিএলে খেলা হয়ে ওঠেনি। এ বার অবশ্য তাঁকে দলে রেখেছেন নাইট কর্তৃপক্ষ।

রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে ইডেনের পিচে কুলদীপ যাদবের সেই ম্যাজিকাল স্পেলটার কথা মনে আছে? মাত্র ২০ রানে একে একে অজিঙ্কে রাহানে, জশ বাটলার, স্টুয়ার্ট বিনি এবং বেন স্টোকসের উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচের সেরা হয়েছিলেন কুলদীপ। ২০১৮-তে ১৬ ম্যাচে ১৭ উইকেট ছিল তাঁর। ভারতীয় দলের নিয়মিত সদস্য এ বারও নাইটদের দলে রয়েছেন।

২০১৮-র আইপিএলে নাইটের হয়ে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেছিলেন বাঁ-হাতি অলরাউন্ডার নীতীশ রাণা। ১৫ ম্যাচে দিল্লির এই অ্যাটাকিং ব্যাটসম্যানের রান ছিল ৩০৪। সেই সঙ্গে ৪টি উইকেটও তুলে নিয়েছিলেন তিনি। এ বারও নাইটদের জার্সিতে দেখা যাবে নীতীশকে।

বয়স মাত্র ২২। আর এরই মধ্যে তাঁর বিগ ম্যাচ টেম্পারামেন্টের জন্য নজর কেড়েছেন কর্নাটকের ডান-হাতি বোলার প্রসিদ্ধ কৃষ্ণা। ৭ ম্যাচে তাঁর শিকার ছিল ১০ উইকেট। আগামী বছরেও নাইটদের ঘরে থাকছেন প্রসিদ্ধ।

টি-টোয়েন্টির অন্যতম সেরা রান-শিকারী সুরেশ রায়নার অন্ধ ভক্ত রিঙ্কু সিংহ। ২০১৮-তে মাত্র ৪টে ম্যাচে দেখা গিয়েছিল এই ডান-হাতি ব্যাটসম্যানকে। তবে মাত্র ২৯ রান করলেও তাঁর উপর ভরসা রাখতে চান নাইট কর্তৃপক্ষ। ফলে আগামী বছরের আইপিএলে বাইশ গজে ফের দেখা যেতে পারে এই ক্রিকেটারকে।

নাইট রাইডার্সের কোর টিমে বরাবরই থেকেছেন উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান রবিন উথাপ্পা। ২০১৮-তে ১৬ ম্যাচে ৩৫১ রান এসেছিল তাঁর ব্যাট থেকে। টি-টোয়েন্টিতে তাঁর চওড়া ব্যাট বরাবরই ভরসা দিয়েছে নাইটদের। এ বারও যে তার ব্যতিক্রম হবে না, সেই আশাই করছেন নাইট ফ্যানেরা।

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের যে কয়েক জন তারকা ক্রিকেটারকে দলে এনেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স, তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন শিভম মাভি। তাঁকে দলে নিতে তিন কোটি টাকা ব্যয় করেছিল নাইটরা। ২০১৮-তে ৯ ম্যাচে ৫টি উইকেট শিকার করেছিলেন তিনি । এ বারও নাইটদের পেস অ্যাটাকের অন্যতম ভরসা হয়ে উঠতে পারেন ১৯ বছরের শিভম।

নাইটদের হয়ে আইপিএলে বেশ ভাল ব্যাটিং করেছিলেন শুভমান গিল। যুব বিশ্বকাপের ভাইস ক্যাপ্টেনের ব্যাট থেকে একটা ঝকঝকে হাফ সেঞ্চুরিও বেরিয়েছিল। আগামী বছরেও তাঁকে দলে রেখেছেন নাইট কর্তৃপক্ষ। ফলে বাইশ গজে ফের শুভমনের ব্যাটের ঝলকানি দেখা যেতেই পারে।

বল হাতে তো বটেই, ব্যাটেও যে এমন মারকাটারি হয়ে উঠতে পারেন সুনীল নারাইন, তা দেখা গিয়েছে আইপিএলের মঞ্চে। ২০১৮-তে তাঁকে দেখা গিয়েছে ব্যাট হাতে ওপেন করতে। তাঁর অলরাউন্ড পারফরম্যান্স ছিল তুঙ্গে। ১৬ ম্যাচে ৩৫৭ রান ছাড়াও ১৭টি উইকেট নিয়েছিলেন নারাইন।

নাইটদের হয়ে ধারাবাহিক ভাবেই পারফর্ম করে চলেছেন পীযূষ চাওলা। ২০১৮-তে ১৫ ম্যাচে ১৪ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। আগামী বছরেও নাইটদের হয়ে মাঠে দেখা যেতে পারে পীযূষকে।