×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৬ জানুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

গাওস্করের পরামর্শে ব্যাটিংয়ে বড় সমস্যা কাটিয়ে উঠেছিলাম, বলছেন ইনজামাম

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা১৪ জুলাই ২০২০ ০৫:২৫
সুনীল গাওস্করের পরামর্শ শুনে আর কখনও শর্ট-পিচ ডেলিভারিতে সমস্যায় পড়েনি ইনজামাম।

সুনীল গাওস্করের পরামর্শ শুনে আর কখনও শর্ট-পিচ ডেলিভারিতে সমস্যায় পড়েনি ইনজামাম।

রান আসছিল না। দিশেহারা লাগছিল বাইশ গজে। সেই সময় সুনীল গাওস্করের পরামর্শ হয়ে উঠেছিল পরিত্রাতা। সেই ঘটনাই প্রকাশ্যে আনলেন ইনজামাম উল হক

নিজের ইউটিউব চ্যানেলে পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক বলেছেন, “১৯৯২ সালের বিশ্বকাপে দুর্দান্ত সাফল্যের পর ইংল্যান্ড সফরে গিয়েছিলাম। ওটা ছিল ইংল্যান্ডে আমার প্রথম সফর। ওখানের পিচে কী ভাবে খেলতে হয় সেই সম্পর্কে কোনও ধারণাই ছিল না। খুব খারাপ সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলাম। শর্ট-পিচড ডেলিভারি একেবারেই খেলতে পারছিলাম না।”

সেই সময় ইংল্যান্ডে এক চ্যারিটি ম্যাচে সুনীল গাওস্করের সঙ্গে দেখা হয় ইনজির। সেখানেই পরামর্শ চান লিটল মাস্টারের। সাহায্য করেন গাওস্কর। তাতেই ঘটে বাজিমাত। গাওস্করের পরামর্শ মেনে চলে বাইশ গজে আত্মবিশ্বাস ফেরে ইনজামামের।

Advertisement

আরও পড়ুন: নেই ধোনি, গেল, দলে বিরাটকে রেখেও নেতা রোহিত! টম মুডির বিশ্ব টি২০ একাদশে বহু চমক

আরও পড়ুন: আউট আর নট আউটের মাঝামাঝি কিছু হয় নাকি? ‘আম্পায়ার্স কল’কে তীব্র কটাক্ষ সচিনের​

ঠিক কী বলেছিলেন গাওস্কর? ইনজি বলেছেন, “মরসুমের মাঝামাঝি হয়ে গিয়েছিল। তখন ইংল্যান্ডে এক চ্যারিটি ম্যাচে গাওস্করের সঙ্গে দেখা হয়। আমরা দু’জনেই ওই ম্যাচ খেলতে গিয়েছিলাম। জিজ্ঞাসা করেছিলাম, ‘সুনীল ভাই, শর্ট-পিচড বল খেলতে সমস্যা হচ্ছে। আমার কী করা উচিত?’ গ্রেটদের তো রাস্তাও গ্রেট হয়। গাওস্কর বলেছিলেন একটা ছোট কাজ করতে। তা হল, শর্ট-পিচড ডেলিভারি বা বাউন্সারের ব্যাপারে ব্যাটিময়ের সময় একদম না ভাবা। উনি বলেছিলেন যে ব্যাটিংয়ের সময় এগুলোর কথা ভাবলে ফাঁদে পড়ে যাব। বলেছিলেন, বাউন্সার এলে তা তো নিজে থেকেই ধরতে পারবে সঙ্গে সঙ্গে। তাই তা নিয়ে অযথা উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।”

আর সেই ভাবেই এর পর থেকে নেটে খাটতে শুরু করেন ইনজি। তাঁর কথায়, “নেটে ওই ভাবেই অনুশীলন শুরু করে দিই। মানসিক ভাবে জোর বাড়ানোয় খাটতে থাকি। নিজেকে বলি যে, শর্টপিচ বল নিয়ে আর ভাবব না। আর তার পর থেকে অবসরের সময় পর্যন্ত আর কখনও সমস্যায় পড়িনি।” ৩৭৮ এক দিনের ম্যাচ ও ১২০ টেস্টে ইনজি করেছেন ১১৭৩৯ ও ৮৮৩০ রান।

Advertisement