×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৬ জুন ২০২১ ই-পেপার

নিরপেক্ষ আম্পায়ারেরা কেন আসবেন না, প্রশ্ন রোহিতের

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ১১ মার্চ ২০২১ ০৭:৩২
ফুরফুরে: টি-টোয়েন্টি সিরিজের জার্সিতে ফটোসেশনের ফাঁকে রোহিত, শ্রেয়স, ঋষভ, ঈশান ও অক্ষর। বুধবার। টুইটার

ফুরফুরে: টি-টোয়েন্টি সিরিজের জার্সিতে ফটোসেশনের ফাঁকে রোহিত, শ্রেয়স, ঋষভ, ঈশান ও অক্ষর। বুধবার। টুইটার

তিনটি ফর্ম্যাট থেকেই ঋষভ পন্থকে যখন বসিয়ে দেওয়া হল, তাঁর পাশে ছিলেন রোহিত শর্মা। বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে পন্থের দুরন্ত সাফল্যের পরেও রোহিত তাঁকে আগলে রাখার চেষ্টা করেন। ভারতের সীমিত ওভারের দলের সহ-অধিনায়ক চান, ঋষভকে তাঁর স্বাভাবিক ক্রিকেট খেলতে দেওয়া হোক। অযথা ওর উপরে যেন চাপ সৃষ্টি না করা হয়।


রোহিত বলেছেন, করোনা পরবর্তী সময়ে ক্রিকেটারেরা যদি বিদেশে খেলতে যেতে পারেন এবং কোভিড বিধি মেনে নিভৃতবাসে থাকেন, তা হলে আম্পায়ারেরা কেন বিভিন্ন দেশে গিেয় ম্যাচ পরিচালনা করবেন না! মোতেরায় শুক্রবার থেকে শুরু ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। যেখানে দস্তানা হাতে দেশের জার্সিতে কে থাকবেন, তা নিয়ে প্রশ্ন তুঙ্গে। কে এল রাহুল ও পন্থের মধ্যে যে কোনও একজন কিপিং করবেন। ওপেনার হিসেবে রাহুল ও শিখর ধওয়নের মধ্যে বেছে নিতে হবে একজনকে। দল নিয়ে যদিও মাথা ঘামাতে চান না রোহিত। কিন্তু তিনি মনে করেন, পন্থকে যেন তাঁর মতো ব্যাট করার অনুমতি দেওয়া হয়। তবেই টেস্টের মতো দুর্দান্ত কিছু ইনিংস আসবে ব্যাট থেকে। বুধবার ভার্চুয়াল সাংবাদিক বৈঠকে রোহিত বলেছেন, “পন্থকে যদি পন্থের মতো ব্যাট করতে দেওয়া হয়, তবেই দুর্দান্ত কিছু পারফরম্যান্স ওর ব্যাটে দেখা যাবে। আমি আগেও বলেছি, পন্থকে স্বাধীন ভাবে ব্যাট করতে দেওয়া হোক। ও ক্রিকেটটা অনুভব করে খেলে। অস্ট্রেলিয়া সফর থেকে একের পর এক দুরন্ত ইনিংস উপহার দিয়েছে ও। এখান থেকে আর ফিরে তাকানোর জায়গা নেই। উন্নত হওয়ার জায়গা আছে। ঋষভকে আর থামানো যাবে না অযথা চাপ না দেওয়া হলে। ওকে ক্রিকেটটা অনুভব করে খেলতে দিন।” রোহিত জানিয়েছেন, আগের চেয়ে অনেক বেশি পরিস্থিতি বুঝে ব্যাট করতে শিখে গিয়েছেন পন্থ। বলেন, “স্বাভাবিক ক্রিকেট খেলতে দিলে পন্থ কী করতে পারে, প্রত্যেকের জানা। আগের চেয়ে অনেক বেশি পরিস্থিতি বুঝে ব্যাট করতে শিখে গিয়েছে ও। আরও একটা ভাল সিরিজ ওর আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেবে। টিম ম্যানেজমেন্টও চায় পন্থ যেন স্বাধীন ভাবে ব্যাট করতে পারে।”


অক্টোবর-নভেম্বরে ভারতের মাটিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসর বসতে চলেছে। তার আগে ইংল্যান্ডের মতো প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে কি এই সিরিজ বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে দেখা যেতে পারে? রোহিতের স্পষ্ট উত্তর, “দেশের হয়ে খেলতে নামলে কোনও সিরিজই আর প্রস্তুতি থাকে না। প্রতিপক্ষের কথা চিন্তা না করে কী ভাবে দেশকে জেতানো যায়, চিন্তা করা উচিত। দেশের হয়ে খেলতে নামলে প্রস্তুতির চিন্তা ফেলে আসতে হয়। আমরা এই সিরিজ জেতার জন্য ঝাঁপাব। সিরিজ জিতলে ভবিষ্যৎ নিয়েও আর চিন্তা করতে হবে না। প্রত্যেকটি ম্যাচ জেতার মানসিকতা নিয়ে নামতে হবে।”

Advertisement


রোহিত টেস্ট ক্রিকেটে নিজের আচরণ পাল্টেছেন। আগের চেয়ে অনেক বেশি দায়িত্ব নিয়ে ইনিংস সাজাতে শুরু করেছেন। তবে টি-টোয়েন্টিতে নামার আগে বাড়তি কিছু পরিবর্তনের জায়গা দেখছেন না তিনি। রোহিত যদিও খুশি, মানসিকতা পাল্টে দলকে সাহায্য করতে পেরে। বললেন, “শেষ টেস্টে ৪৯ রান করেছি দেড়শোর উপর বল খেলে। আমি সত্যি খুশি, নিজের স্বাভাবিক ক্রিকেটের ঊর্ধ্বে গিয়ে দলকে সাহায্য করতে পেরে। এ ধরনের কিছু ছোট লড়াই জিততে আমি পছন্দ করি। টেস্টে আমার লক্ষ্য রান করার চেয়েও বেশি বল খেলার। এটাই আমাকে বড় ইনিংস খেলতে সাহায্য করছে।” রোহিত আরও বলেন, “টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের জন্য আলাদা কিছু করব না। একশোটির উপরে টি-টোয়েন্টি খেলা হয়ে গিয়েছে। এখন আর নতুন করে মানিয়ে নেওয়া মতো কিছু নেই।”


রোহিত জানিয়েছেন, হার্দিক পাণ্ড্য এখন পুরোপুরি সুস্থ। দারুণ ছন্দে রয়েছেন। তবে প্রথম একাদশে নেওয়া হবে কি না নিশ্চিত নন। ঠিক তেমনই সূর্যকুমার যাদব সুযোগ পাবেন কি না জানা নেই তাঁর। রোহিত যদিও চান, সূর্যকুমার ও ঈশান কিষাণ তৈরি থাকুন। দলের প্রত্যেকটি মুহূর্ত তাঁরা উপভোগ করুন। ভারতীয় দলের অন্যতম সদস্য হিসেবে নিজেদের দেখতে শুরু করুন তাঁরা।

Advertisement