নারদের স্টিং ভিডিও-য় তাঁকে টাকা নিতে দেখা গিয়েছিল। সোমবার ইডি অফিসারদের জেরায় টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে নিলেন তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। ইডি সূত্রের খবর, জেরায় শুভেন্দু জানিয়েছেন, নারদ-কাণ্ডে তিনি টাকা নিয়েছেন। এবং সেই টাকা তিনি দলের কাজেই খরচা করেছেন।

অন্য দিকে, এ দিন সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ নিজাম প্যালেসে নারদ-কাণ্ডে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে পাঠানো হয় তৃণমূল সাংসদ নেতা মুকুল রায়কে। দুপুর পর্যন্ত সেই জিজ্ঞাসাবাদ চলছে বলে সূত্রের খবর। এর আগে মুকুলকে সারদা মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে পাঠিয়েছিল সিবিআই। দিনভর জেরা শেষে তিনি সিবিআই দফতর থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন।

এ দিন সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ সল্টলেকে সিজিও কমপ্লেক্সে পৌঁছন শুভেন্দু। ঘণ্টা চারেক তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন ইডি আধিকারিকেরা। এর পর বেলা সাড়ে ১২টা নাগাদ ইডি দফতর থেকে বেরিয়ে আসেন শুভেন্দু। এর আগে তাঁকে দু’বার নোটিস পাঠিয়েছিল ইডি। কিন্তু, সেই দু’বারই তিনি আগাম চিঠি দিয়ে আসতে পারবেন না বলে ইডিকে জানিয়ে দিয়েছিলেন। আগেই জানিয়েছিলেন, তৃতীয় বারের ডাকে তিনি ইডি অফিসে যাবেন। সেই মতো এ দিন সকালেই গিয়েছিলেন ইডি-র দফতরে।

ইডি শুভেন্দুকে প্রথম তলবি নোটিস পাঠিয়েছিল গত ৪ অগস্ট। কিন্তু, তার আগের দিনই তিনি চিঠি দিয়ে জানিয়েছিলেন, পূর্বনির্ধারিত কিছু কাজের জন্য আসতে পারবেন না। কবে যেতে পারবেন, তা পরে জানাবেন বলেছিলেন। এর পরে ২২ অগস্ট দ্বিতীয় বারের জন্য ডাকা হয় তাঁকে। কিন্তু, সে বারেও আসতে পারবেন না বলে জানিয়ে দেন পরিবহণ মন্ত্রী। এর পরে তাঁকে তৃতীয় বারের জন্য এক বার সুযোগ দেওয়া হয় বলে ইডি সূত্রে খবর।

নারদ কাণ্ডে যে ১৩ জন অভিযুক্তের নাম উঠে এসেছে, তার মধ্যে অনেককেই জেরা করেছেন ইডি অফিসারেরা। সেই তালিকায় রাজ্যের মন্ত্রী, তৃণমূলের সাংসদ ও এক আইপিএস অফিসার রয়েছেন। ইডি-র দাবি— এর আগে যাঁদের জেরা করা হয়েছে, শোভন ছাড়া বাকি সকলেই নারদ-কর্তা ম্যাথুর কাছ থেকে টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। সেই টাকা তাঁরা বিভিন্ন লোক এবং সংস্থায় দিয়েছেন বলেও দাবি করেছেন। শুভেন্দু যে দলের কাজে সেই টাকা খরচা করেছেন, তার সপক্ষে কিছু কাগজপত্রও জমা দিয়েছেন ইডি-র কাছে। আরও কাগজপত্র তাঁর কাছে চেয়ে পাঠানো হয়েছে বলে ইডি সূত্রে খবর।