পুলিশ কমিশনার রাজীব ঘটনায় সিবিআই-পুলিশ সঙ্ঘাত নিয়ে রাজ্যপালের কাছে রিপোর্ট চেয়ে পাঠাল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। সংবাদ সংস্থা পিটিআই সূত্রে অন্তত তেমনটাই জানানো হয়েছে। এ ব্যাপারে রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ ফোন করেন। মুখ্যসচিব ও ডিজির সঙ্গে কথা বলে রাজ্যপাল গোটা ঘটনার রিপোর্ট কেন্দ্রকে পাঠাবেন বলেও সূত্রের খবর।

কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর এম কে লাল রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করবেন বলে জানা গিয়েছে। তার পরই রাজ্যপাল সিবিআই-কলকাতা পুলিশ সঙ্ঘাত নিয়ে গোটা রিপোর্ট পাঠাবে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে। এ দিকে, পশ্চিমবঙ্গের এই ঘটনা নিয়ে সোমবার উত্তাল হয়ে ওঠে লোকসভা ও রাজ্যসভা। লোকসভা কিছু ক্ষণের জন্য মুলতুবি হলেও ফের শুরু হয়। রাজ্যসভা দুপুর ২টো পর্যন্ত মুলতুবি হয়ে যায়। এ দিন লোকসভায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথি সিংহ সিবিআই-কলকাতা পুলিশ সঙ্ঘাত নিয়ে বলেন, “সিবিআইকে তদন্তে বাধা দেওয়া নজিরবিহীন ঘটনা। এটা সংবিধান ও গণতন্ত্রের পক্ষে বিপজ্জনক।”

এ দিকে, রবিবারে ঘটনার বিস্তারিত রিপোর্ট ও ভিডিয়ো ফুটেজ নিয়ে সোমবার দিল্লির উদ্দেশে রওনা দেন সিবিআই আধিকারিকরা। কেন্দ্রকে রিপোর্ট দেন তাঁরা। পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্টের কাছেও এ বিষয়ে রিপোর্ট জমা দিয়েছেন সিবিআই আধিকারিকরা। এ বিষয়ে মঙ্গলবার শুনানি হবে বলে জানিয়েছে আদালত। 

আরও পড়ুন: ভিডিয়ো-সহ সুপ্রিম কোর্টে সিবিআই, ‘তথ্য লোপাটের’ প্রমাণ চাইলেন গগৈ, কাল শুনানি

আরও পড়ুন: সিবিআই-কলকাতা পুলিশ সংঘাত নিয়ে উত্তপ্ত সংসদ, মুলতবি রাজ্যসভা

আরও পড়ুন: সিবিআই-পুলিশ কাণ্ড: মমতার পাশে রাহুল-কেজরী-তেজস্বী-অখিলেশ-চন্দ্রবাবু

সারদা কাণ্ডের তদন্তের ব্যাপারে রবিবার কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে অভিযানে গিয়েছিলেন সিবিআই অফিসাররা। তখন তাঁদের বাধা দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। রীতিমতো ‘ঘাড় ধাক্কা’ দিয়ে সিবিআই অফিসারদের পুলিশের গাড়িতে তোলা হয়ে বলেও অভিযোগ উঠেছে। পরিস্থিতি এখান থেকেই আরও ঘোরালো হয়ে ওঠে।

সিবিআই হানার খবর পেয়েই সিপি-র বাড়িতে ছুটে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পদস্থ পুলিশ অফিসারদের সঙ্গে দীর্ঘ ক্ষণ বৈঠক করেন। তার পরই তিনি ঘোষণা করেন মোদী সরকারের হাত থেকে দেশের সংবিধানকে ‘বাঁচাতে’ অবিলম্বে ধর্নায় বসবেন। সেই ঘোষণার কিছু ক্ষণের মধ্যেই ধর্মতলায় মেট্রো চ্যানেলে ধর্না শুরু করেন মমতা।

(পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্ত থেকেবাংলায় খবরজানতে পড়ুন আমাদেররাজ্যবিভাগ।)