বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই কলকাতায় আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি ছিল। বিকেলে শুরু হল স্বস্তির বৃষ্টি। এ দিন কলকাতার বিভিন্ন অংশে বিক্ষিপ্ত ভাবে মুষলধারে বৃষ্টি হয়। কলকাতার পাশাপাশি বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টি হয় হাওড়ায় এবং ঝাড়গ্রামের কিছু অংশেও। অলিপুর আবহাওয়া দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, এটা বজ্রগর্ভ মেঘ থেকে বর্ষার স্বাভাবিক বৃষ্টি।

রাজ্যে এ বছর বর্ষার মরসুমে বৃষ্টির ঘাটতি ছিলই। তবে শ্রাবণের শেষবেলায় এবং ভাদ্রের শুরুতে কিছুটা হলেও ঘাটতি পুষিয়েছে। গত ১৬-১৮ অগস্ট নিম্নচাপের লাগাতার বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে কলকাতা-সহ গোটা রাজ্য। বৃষ্টি থামার পরেও কলকাতার বেশ কিছু অংশে জল জমে ছিল।

আগামী তিনদিন নিম্নচাপ এবং ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস না থাকলেও বর্ষার বৃষ্টি চলবে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস। হাল্কা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে কলকাতা ছাড়াও দুই চব্বিশ পরগনা, হাওড়া ও হুগলিতে। তবে দক্ষিণবঙ্গের তুলনায় উত্তরবঙ্গে বৃষ্টিপাত বেশি হবে।

এ দিন কলকাতার বিভিন্ন অংশে বিক্ষিপ্ত  ভাবে মুষলধারে বৃষ্টি হয়। নিজস্ব চিত্র।

বৃষ্টির জন্য তাপমাত্রা সাময়িক কমলেও দিনের বেলা আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি থাকবে। পূর্বাভাস আলিপুর আবহাওয়া অফিসের।

আরও পড়ুন: দিলীপের গুঁতোতেও লক্ষ্যের থেকে ১৭ হাজার দূরে

আরও পড়ুন: নিউ দিঘার রাধারানি স্টোর্সে ‘চাওয়ালা’ মমতা