Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০১ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

Crops: এ বার ধানের বিপদ বাদামি শোষক পোকা

কেদারনাথ ভট্টাচার্য
কালনা ২২ অক্টোবর ২০২১ ০৫:২১
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

প্রাকৃতিক দুযোগের পরে, এ বার পূর্ব বর্ধমান জেলার চাষিদের আতঙ্ক হয়ে উঠেছে— বাদামি শোষক পোকা। চাষিদের দাবি, বিভিন্ন এলাকায় আমন ধানের জমিতে বাদামি শোষক পোকা হানা দিয়েছে। তবে কৃষি বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, বিক্ষিপ্ত ভাবে বিভিন্ন ব্লকে ক্ষতিকারক পোকার হামলা দেখা গেলেও চাষিরা সতর্ক থাকলে ক্ষতি এড়ানো সম্ভব।

এ বার পূর্ব বর্ধমান জেলায় আমন চাষ হয়েছে প্রায় ৩ লক্ষ ৭৯ হাজার হেক্টর জমিতে। বেশির ভাগ এলাকাতেই ধান গাছের বয়স প্রায় ৭০ দিন। এ সময় ধান গাছে ফুল আসতে শুরু করেছে। রায়না, খণ্ডঘোষ, কালনা ১, কালনা ২, পূর্বস্থলী ১, মন্তেশ্বরের মতো বহু ব্লকে বিক্ষিপ্ত ভাবে ধানের জমিতে বাদামি শোষক পোকা হানা দিয়েছে বলে চাষিরা জানাচ্ছেন। স্থানীয় চাষিদের কাছে অবশ্য এ পোকা ‘ভ্যানভ্যানে’ নামে পরিচিত।

নাদনঘাটের চাষি মালেক শেখ বলেন, ‘‘ধান জমিতে আচমকা ভ্যানভ্যানের হামলা শুরু হয়েছে। জমিতে পা দিলেই দেখা যাচ্ছে, ধান গাছের গোড়ার আশপাশে থিক থিক করছে এই পোকা। জমির যে সমস্ত জায়গায় পোকার হামলা বেশি, সেখানে ‘চাক চাক দাগ’ (হপারবার্ন) হয়ে গাছ শুকিয়ে মরে যাচ্ছে। নানা কীটনাশক প্রয়োগ করেও জমি থেকে পোকার দলকে মারা যাচ্ছে না।’’

Advertisement

মেমারির বড়া গ্রামের চাষি অরুণ চক্রবর্তী জানিয়েছেন, ধান জমিতে গাছ ধরে নাড়া দিলেই ঝাঁকে ঝাঁকে পোকা উড়ছে। জমির কিছু কিছু জায়গায় গাছও নষ্ট করে দিয়েছে পোকার দল।’’ জেলার এক সহ-কৃষি অধিকর্তা পার্থ ঘোষ বলেন, ‘‘বহু চাষি অতিরিক্ত ফলনের আশায় জমিতে বেশি করে চারা রোপণ করেন। ফলে, ওই সমস্ত জমিতে ধান গাছের গোড়ায় পর্যাপ্ত আলো, বাতাস পৌঁছতে পারে না। উষ্ণ এবং আর্দ্র আবহাওয়ায় এই সমস্ত জমিতে বাদামি শোষক পোকার হামলা বেশি হয়।’’ তাঁর পরামর্শ, এই পোকার হামলা ঠেকাতে আট সারির পরে জমিতে এক সারি ফাঁকা রাখা, জমি আগাছা মুক্ত রাখা, আক্রান্ত জমির জল বার করে দেওয়া, ধান গাছের গোড়ায় যাতে আলো-বাতাস পৌঁছতে পারে সে ব্যবস্থা করা , আক্রান্ত জমিতে ইউরিয়া সার প্রয়োগ না করা, সুষম মাত্রায় রাসায়নিক সার প্রয়োগ, জমিতে কীটনাশক প্রয়োগের সময় গাছের গোড়ার দিকে খেয়াল রেখে ‘স্প্রে’ করা এবং ধান গাছের গোড়ায় পাঁচ থেকে দশটি পোকা দেখা দিলে ‘স্প্রে’ হিসাবে ‘অ্যাসিফেট’, ‘থায়োমেথাক্সাম’, ‘বুপ্লোফেজিন’, ‘পাইমট্রোজিন’-এর মতো কীটনাশক প্রয়োগ করতে হবে।

জেলার আর এক সহ-কৃষি অধিকর্তা সুকান্ত মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‘জমিতে স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশের সঙ্গে উষ্ণ পরিবেশে দ্রুত বংশ বিস্তার করে বাদামি শোষক পোকার দল। ওদের মারতে গেলে চাষিদের জমির তিন দিক থেকে এক সঙ্গে কীটনাশক প্রয়োগ করতে হবে। ভারী বৃষ্টি এবং ঠাণ্ডা পরিবেশ পোকার হামলা কমায়।’’



Tags:

আরও পড়ুন

Advertisement