Advertisement
২৭ জানুয়ারি ২০২৩
TMC Protest

সেতুর সঙ্গে উন্নয়নও থমকে, দাবি তৃণমূলের

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, পারাজে ডিভিসি সেচখালের উপর থাকা সেতুটি দীর্ঘ দিন ধরেই দুর্বল। ভারী যানবাহন পারাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল আগেই।

পারাজে চলছে অবস্থান-বিক্ষোভ। নিজস্ব চিত্র

পারাজে চলছে অবস্থান-বিক্ষোভ। নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব সংবাদদাতা
গলসি শেষ আপডেট: ২৯ নভেম্বর ২০২২ ০৯:৪৫
Share: Save:

সেতু নির্মাণের কাজের গতি নেই অভিযোগ তুলে সোমবার গলসি ১ ব্লকের পারাজে অবস্থান বিক্ষোভ করল তৃণমূল। বিক্ষোভকারীদের দাবি, সেতুর কাজ না এগোনোয় এলাকার উন্নয়ন থমকে রয়েছে। খুরাজ, ঝারুল, নবখণ্ড, কেন্দুয়াহাটির রাস্তা বেহাল পড়ে রয়েছে। দ্রুত তা মেরামত করতে হবে বলেও দাবি করেন তাঁরা। আইএনটিটিউসি-র ব্লক সভাপতি বাপ্পাদিত্য রায়ের নেতৃত্বে বিক্ষোভকে পূর্ণ সর্মথন জানিয়েছেন দলের ব্লক সভাপতি জনার্দন চট্টোপাধ্যায়। তাঁর দাবি, ‘‘স্থানীয় চালকল, বালিখাদানের প্রায় পাঁচ হাজার শ্রমিক আর্থিক অনটনে পড়েছেন। তাঁদের কথা ভেবে এই আন্দোলনকে সমর্থন জানাছি।’’ পঞ্চায়েত ভোটের আগে দলের ব্লক নেতৃত্বের এমন বিক্ষোভে অস্বস্তিতে তৃণমূল।

Advertisement

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, পারাজে ডিভিসি সেচখালের উপর থাকা সেতুটি দীর্ঘ দিন ধরেই দুর্বল। ভারী যানবাহন পারাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল আগেই। পরে সেতুর কিছু অংশে মেরামত করে ১২ টন পর্যন্ত যানবাহন পারাপারে অনুমোদন দেওয়া হয়। নতুন সেতুর নির্মাণেরও সিদ্ধান্ত হয়। যতদিন না নতুন সেতুর কাজ শেষ হবে, তত দিন সেতুর পাশে কাঠের সাঁকো গড়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়। এ দিন বিক্ষোভে হাজির ছিলেন শ্রমিক সংগঠনের ব্লক নেতা শেখ লালন, শেখ মহব্বত, বাবু বিশ্বাসদের মতো অনেকেই। হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে বিক্ষোভ দেখানো হয়। তাঁদের দাবি, সেতু নির্মাণের কাজ দ্রুত শেষ করতে হবে। বালিবোঝাই ট্রাক, ডাম্পার চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে। খুরাজ, ঝারুল, নবখণ্ড ও কেন্দুয়াহাটি রাস্তাগুলি দ্রুত মেরামতেরও দাবি তোলা হয়। শ্রমিক নেতাদের দাবি, পারাজের সেতুটিকে দুর্বল তকমা দিয়ে এলাকার উন্নয়ন আটকে রাখা হচ্ছে।

গলসি ১ ব্লকের কংগ্রেসের ব্লক সভাপতি শেখ নবিরুল হক বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী লাগাতার দাবি করছেন রাজ্যের ঢালাও উন্নয়ন হয়েছে। সেখানে তাঁর দলের কর্মীরাই উন্নয়ন চেয়ে বিক্ষোভ করছেন। তাঁরাই বুঝিয়ে দিচ্ছেন কোনও উন্নয়ন হয়নি।’’ বিজেপির জেলা সহ-সভাপতি রমেন শর্মার অভিযোগ, ‘‘তোলাবাজ সরকারের কর্মীরা বালি খাদান থেকে তোলা তুলতে পারছে না। তাই কারা সরকারে রয়েছে, তা-ও ভুলে গিয়েছে। তোলা তোলার দাবিতে আন্দোলনে নেমেছে।’’

তৃণমূলের বিধায়ক (গলসি) নেপাল ঘরুই অবশ্য় বিরোধীদের অভিযোগকে গুরুত্ব দিতে নারাজ। তিনি বলেন, ‘‘বিজেপি, কংগ্রেস কি বলল তা নিয়ে কিছু যায় আসেন না। কারা অন্দোলন করছেন আমার জানা নেই।’’ তাঁর দাবি, ‘‘কেউ দল বিরোধী কাজ করলে দল তাঁর বিরুদ্ধেব্যবস্থা নেবে।’’

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.