Advertisement
০৯ ডিসেম্বর ২০২২
soma das

Soma Das: চাকরি পেয়েও বন্ধুদের টানে সোমা ফের ধর্নায়

এ দিন সোমাকে আগের মতোই বিক্ষোভ মঞ্চের সামনে চাকরির দাবির পোস্টার নিয়ে বসে থাকতে দেখা যায়।

গান্ধী-মূর্তির সামনে ধর্নায় সোমা দাস। রবিবার। নিজস্ব চিত্র

গান্ধী-মূর্তির সামনে ধর্নায় সোমা দাস। রবিবার। নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ০৪ জুলাই ২০২২ ০৬:১৭
Share: Save:

কলকাতা হাই কোর্ট তাঁর বিষয়টি পৃথক ভাবে বিবেচনা করে তাঁকে দ্রুত স্কুলে নিয়োগপত্র দেওয়ার কথা বলার সময়েই সোমা দাস জানিয়েছিলেন, তিনি শুধু তাঁর একার নিয়োগ নয়, তাঁর সঙ্গে ধর্নামঞ্চে শামিল সকলেরই কাজ চান। স্কুলশিক্ষিকার চাকরিতে যোগদানের পরেও তাই তিনি তাঁর সঙ্গীদের আন্দোলনে সংহতি জানাতে হাজির হয়েছেন ধর্না-বিক্ষোভে। এক মাস আগে বীরভূমে নলহাটির মধুরা হাইস্কুলে বাংলা শিক্ষিকার পদে যোগ দিয়েছেন ক্যানসার-আক্রান্ত সোমা। তার পরেও কলকাতার ধর্মতলার গান্ধী-মূর্তির কাছে নবম-দ্বাদশের শিক্ষকপদ প্রার্থীদের বিক্ষোভ মঞ্চেই মন পড়ে রয়েছে তাঁর। তাই রবিবার, ছুটির দিনে নলহাটি থেকে ট্রেনে উঠে চলে এসেছেন সেই ধর্নামঞ্চে।

Advertisement

এ দিন বিক্ষোভ মঞ্চে বসে সোমা বলেন, “আদালতের নির্দেশে আমার চাকরি হল। কিন্তু আমি তো একা নই। এখানে যাঁরা অবস্থান বিক্ষোভ করছেন, তাঁরা সকলেই শিক্ষকতার চাকরি পাওয়ার যোগ্য। তাঁদের এত দিন ধরে বিক্ষোভ দেখাতে হবে কেন? নিজে চাকরি পেলেও মনে তাই শান্তি নেই। কাল স্কুল আছে। আজ রাতেই আবার নলহাটি ফিরে যাব।”

এ দিন সোমাকে আগের মতোই বিক্ষোভ মঞ্চের সামনে চাকরির দাবির পোস্টার নিয়ে বসে থাকতে দেখা যায়। সোমা জানান, এই বিক্ষোভ মঞ্চ থেকেই সংবাদপত্রের প্রতিবেদনের মাধ্যমে তিনি বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তাই এই মঞ্চকে তিনি কোনও ভাবেই ভুলতে পারবেন না। সোমা জানাচ্ছেন, গত ১৯ মে শিক্ষা দফতর থেকে একটি বিজ্ঞপ্তি বেরোয়। সেখানে নবম-দশমের জন্য মাত্র ১৯৩২টি এবং একাদশ-দ্বাদশের জন্য মাত্র ২৪৭টি শূন্য পদের কথা বলা হয়। অথচ তাঁদের ওয়েটিং লিস্টে রয়েছেন আরও অনেক প্রার্থী। সোমার প্রশ্ন, “নবম থেকে দ্বাদশ স্তরে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে যে নানা অনিয়ম হয়েছে, তা তো প্রমাণিত। তা হলে কর্মশিক্ষা ও শারীরশিক্ষার ওয়েটিং লিস্টে থাকা সব প্রার্থীর চাকরি সুনিশ্চিত করা সত্ত্বেও আমাদের বেলায় প্রতীক্ষার তালিকাভুক্ত সব প্রার্থীর চাকরি সুনিশ্চিত করা হবেনা কেন?’’

ইলিয়াস বিশ্বাস নামে মঞ্চে বসে থাকা এক চাকরিপ্রার্থী এ দিন বলেন, “সোমা আসায় আমাদের মনোবল বেড়েছে। এই আন্দোলন চলবে।”

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.